দক্ষিণ সুদানে ‘ধর্ষণের শিকার’ হাজার হাজার নারী

দক্ষিণ সুদানে টানা চার বছর ধরে চলা যুদ্ধে হাজার হাজার নারী ধর্ষণ ও যৌন সহিংসতার শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

দেশটির ক্ষমতাসীন সরকারের সেনা ও বিরোধী পক্ষ— উভয়ই এ সহিংসতা চালিয়েছে।

ভুক্তভোগী নারী ও মানবাধিকার সংগঠনগুলোর সঙ্গে কথা বলে করা এক অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরেছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, দক্ষিণ সুদানের হাজার হাজার নারী গণধর্ষণের শিকার হচ্ছে। ধর্ষণের আগেই তাঁদের স্বামীদের খুন করা হয়।

দক্ষিণ সুদানে সংঘাতের নিন্দা, আরো শান্তিরক্ষী পাঠাচ্ছে জাতিসংঘ

দক্ষিণ সুদানের সাম্প্রতিক সংঘাতের কঠোর নিন্দা জানিয়েছে জাতিসংঘ। একই সঙ্গে জাতিসংঘের স্থাপনায় হামলায় উদ্বেগ জানানো হয়েছে। অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে দেশটিতে আরো শান্তিরক্ষী পাঠানোর পরিকল্পনা চলছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, গত শুক্রবার পঞ্চম স্বাধীনতা দিবসে দক্ষিণ সুদারের রাজধানী জুবায় প্রেসিডেন্ট সালভা কির এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট রিক মাচারের অনুগতদের মধ্যে সংঘাত শুরু হয়। পরে তা শহরজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে।

সংঘর্ষে প্রাথমিকভাবে ১০০ জন নিহতের খবর সরকারিভাবে জানানো হয়েছিল। পরে গতকাল রোববার মৃতের সংখ্যা ২৫২ বলা হয়। তবে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলোর বলছে নিহতের সংখ্যা হাজারের বেশি হবে।

দক্ষিণ সুদানে সংঘর্ষ, শতাধিক মৃত্যুর আশঙ্কা

দক্ষিণ সুদানের রাজধানী জুবায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে শতাধিক মৃত্যুর আশঙ্কা করা হচ্ছে। স্থানীয় সময় শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর প্রেসিডেন্ট প্রসাদের কাছ থেকে এই সংঘর্ষ শহরে ছড়িয়ে পড়ে। ওই সময় সেখানে প্রেসিডেন্ট সালভা কির এবং তাঁর এক সময়ের বিরোধী ভাইস প্রেসিডেন্ট রিক মাচারের মধ্যে আলোচনা চলছিল।

বিবিসি জানায়, বেশির ভাগ সূত্র থেকে নিহতের সংখ্যা শতাধিক বলা হচ্ছে। তবে এই সংখ্যা ১৫০ পর্যন্ত হতে পারে।

বিবিসি জানায়, সালভা কির এবং রিক মাচারের দেহরক্ষীদের মধ্যে গোলাগুলির মধ্য দিয়ে সংঘর্ষের শুরু হয়। পরে জুবা শহরের বিভিন্ন অংশে ছড়িয়ে পড়া আধা ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষে ভারী অস্ত্রও ব্যবহার করা হয়।