নোবেল শান্তি পুরস্কার পেলেন ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী

নরওয়ের অসলোতে আজ শুক্রবার শান্তিতে নোবেল পুরস্কার বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হয়েছে। এ বছর শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ আলি। তিনি ১০০তম নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী।

নোবেল কমিটি জানিয়েছে, প্রতিবেশী ইরিত্রিয়ার সঙ্গে নিজ দেশের দ্বন্দ্ব সমাধানে ভূমিকা রাখায় তাঁকে সম্মানজনক এ পুরস্কার দেওয়া হয়েছে।

শান্তিতে নোবেলের জন্য এ বছর মনোনয়ন পান ২২৩ জন ব্যক্তি ও ৭৮টি প্রতিষ্ঠান। শান্তি ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতা অর্জনের প্রচেষ্টার জন্য এবং বিশেষত প্রতিবেশী ইরিত্রিয়ার সঙ্গে সীমান্ত সংঘাত নিরসনে নিষ্পত্তিমূলক উদ্যোগের জন্য আবিকে সম্মানজনক এ পুরস্কার দেওয়া হয়েছে।

‘আকসুম আমাদের মক্কা, এই পবিত্র শহরে মসজিদ বানানো নিষিদ্ধ’

আকসুম ইথিওপিয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ ও পবিত্র শহর বলে পরিচিত। সম্প্রতি একদল মুসলিম এখন এই শহরে মসজিদ প্রতিষ্ঠার জন্য প্রচারণা চালাচ্ছে, তবে খ্রিস্টান ধর্মীয় নেতারা এই দাবি প্রত্যাখ্যান করেছেন। তাঁরা বলছেন এর চেয়ে বরং মৃত্যুই তাদের কাছ শ্রেয়।

‘আকসুম আমাদের মক্কা’ বলেন খ্রিস্টান সিনিয়র ধর্মীয় নেতা গডেফা মেরহা। তাঁদের বিশ্বাস ইসলামের পবিত্র স্থানগুলোতে যেমন গির্জা বানানো নিষিদ্ধ, তেমনি আকসুমেও কোনো মসজিদ থাকতে পারে না।

অভ্যুত্থানচেষ্টাকালে ইথিওপিয়ার সেনাপ্রধান গুলিতে নিহত

ইথিওপিয়া সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল সিয়ারে মেকননেনসহ আরো অন্তত তিনজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় আমহারা রাজ্যে এক অভ্যুত্থানচেষ্টাকালে নিহত হয়েছেন।

সেনাবাহিনীর এক জেনারেলের নেতৃত্বে ওই অভ্যুত্থানচেষ্টা চালানো হয়, রোববার দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন বরাতে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

এ ঘটনায় আমহারা রাজ্য সরকারের প্রধান আম্বাকিউ মেকননেন ও তাঁর উপদেষ্টাও নিহত হয়েছেন।

ওই অঞ্চলের নিরাপত্তা প্রধান জেনারেল আসামনিউ সিগে অভ্যুত্থানের ষড়যন্ত্র করেছিলেন বলে রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে।

ইথিওপিয়ার সেই উড়োজাহাজের সবাই নিহত

ইথিওপিয়ার রাজধানী আদ্দিস আবাবা থেকে কেনিয়ার নাইরোবিতে যাওয়ার পথে ১৫৭ জন আরোহী নিয়ে বোয়িং ৭৩৭-৮ ম্যাক্স উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হওয়ার ঘটনায় সেখানে থাকা সবাই নিহত হয়েছেন।

ইথিওপিয়ান এয়ারলাইনস এক বিবৃতিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। বার্তা সংস্থা এপি ও ইউএনবি এ তথ্য দিয়েছে।

তবে কী কারণে বিমানটি বিধ্বস্ত হয়েছে বিবৃতিতে সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানায়নি এয়ারলাইনস কর্তৃপক্ষ। বিমানটি একেবারেই নতুন ছিল এবং গত নভেম্বরে এটি ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করে।

রাষ্ট্রমালিকানাধীন ইথিওপিয়ান এয়ারলাইনসকে আফ্রিকার সবচেয়ে সেরা সেবাদানকারী এয়ারলাইনস হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

১৫৭ যাত্রী ও ক্রু নিয়ে ইথিওপিয়ার বিমান বিধ্বস্ত

রাজধানী আদ্দিস আবাবা থেকে কেনিয়া যাওয়ার পথে ১৫৭ যাত্রী ও ক্রু নিয়ে ইথিওপিয়ার একটি বিমান বিধ্বস্ত হয়েছে বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

আজ রোববার দুপুরে মার্কিন বার্তা সংস্থা থমসন রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে ইথিওপিয়ার বিমান কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘বোয়িং ৭৩৭ বিমানটি ১৪৯ যাত্রী ও আটজন ক্রু নিয়ে আদ্দিস আবাবা থেকে কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবিতে যাচ্ছিল। স্থানীয় সময় সকাল ৮টা ৪৪ মিনিটে এই দুর্ঘটনা ঘটে।’

এ ঘটনায় দেশটির প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ গভীর দুঃখ প্রকাশ করেছেন বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

ইথিওপিয়ায় জাতিগত সহিংসতায় নিহত ৪৪, বাস্তুচ্যুত ৭০ হাজার

ইথিওপিয়ার পশ্চিমাঞ্চলে জাতিগত সহিংসতায় অন্তত ৪৪ জন নিহত হয়েছেন। বাস্তুচ্যুত হয়েছেন ৭০ হাজার মানুষ।

গতকাল মঙ্গলবার জাতিসংঘের বরাত দিয়ে বিবিসি এক প্রতিবেদনে এ খবর জানায়।

বেনিশাঙ্গুল-গুমুজ প্রদেশের বাসিন্দারা জানান, গত শুক্রবার পার্শ্ববর্তী অরোমিয়া প্রদেশে বন্দুকধারীরা স্থানীয় চার কর্মকর্তাকে হত্যা করলে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। ছুরি ও পাথর নিয়ে অস্ত্রধারী যুবকরা মানুষকে ঘরবাড়ি ছেড়ে পালাতে বাধ্য করে।

জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থার তথ্যমতে, এ বছরের এপ্রিলে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত দক্ষিণ ইথিওপিয়া অঞ্চলে বাস্তুচ্যুত হয়েছেন প্রায় ১০ লাখ মানুষ।

ঘণ্টার পর ঘণ্টা হাসতে পারেন তিনি

‘হাসতে নাকি জানে না কেউ, কে বলেছে ভাই? এই শোনো না কত হাসির খবর বলে যাই।’ ছোটবেলায় আমরা সবাই কমবেশি এ ছড়া পড়েছি। কিন্তু বাস্তব জীবনে সত্যি সত্যি হাসির চর্চা আমরা কতজনই বা করি!

অথচ আমরা হাসির অভ্যাস না করলেও কেউ কেউ ঠিকই করেন। এত বেশি যে একটানা ঘণ্টার পর ঘণ্টা তিনি অনায়াসে হেসে যেতে পারেন। হাসিকে নিয়ে যান শিল্পের পর্যায়ে। অট্টহাসি, খিলখিল হাসি, মুচকি হাসি কত বাহারের যে হাসি থাকে তাঁর ঝুলিতে। এমনই একজন ‘বিশ্ব হাসি-মাস্টার’ ইথিওপিয়ার বেলাচো গারমা। আক্ষরিক অর্থেই তিনি ঘণ্টার পর ঘণ্টা একটানা হাসতে পারেন।

ইথিওপিয়ায় ভূমিধসে নিহত ৪৬

ইথিওপিয়ার রাজধানী আদ্দিস আবাবার পাশে আবর্জনা রাখার জায়গায় ভূমিধসে অন্তত ৪৬ জন নিহত হয়েছেন। গতকাল রোববার যোগাযোগমন্ত্রী নেগেরি লেনচো এ তথ্য জানিয়েছেন।

লেনচো বলেন, ভূমিধসের কারণ তদন্ত করছেন কর্মকর্তারা। তিনি আরো বলেন, ‘এটা খুব দুঃখজনক ঘটনা, কারণ সরকার ওই এলাকার বাসিন্দাদের পুনর্বাসনের চেষ্টা করছিল।’ তিনি জানান, আবর্জনা থেকে বিদ্যুৎ শক্তিতে রূপান্তরের জন্য সরকার সেখানে একটি কারখানা নির্মাণ করছিল।

মন্ত্রী বলেন, ভূমিধসে যারা নিখোঁজ রয়েছে, তাদের অনুসন্ধান করছে নিরাপত্তা বাহিনী। যেসব পরিবার আক্রান্ত হয়েছে, সরকার তাদের পুনর্বাসন করবে।

ইথিওপিয়ায় ‘পদদলিত’ হয়ে নিহত ৫২

ইথিওপিয়ার ওরোমিয়া অঞ্চলে ধর্মীয় উৎসবের মধ্যে বিক্ষোভ প্রদর্শনের সময় ‘পদদলিত’ হয়ে অন্তত ৫২ জন নিহত হয়েছেন। আজ সোমবার দেশটির সরকার এ তথ্য জানিয়েছে।

তবে প্রত্যক্ষদর্শী কিছু লোক জানিয়েছে, পুলিশ টিয়ার গ্যাস, রাবার বুলেট ও লাঠিচার্জ করলে এ পদদলনের ঘটনা ঘটে।

দেশটির প্রধানমন্ত্রী হাইলেমারিয়াম ডেসালেন বলেন, দাঙ্গাকারীরা পূর্বপরিকল্পিতভাবে হাঙ্গামায় লিপ্ত হয় এবং এর ফলে গিরিখাতে পড়ে তারা মারা গেছে। পুলিশের গুলিতে নিহতের বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেছেন।

ইথিওপিয়ায় কারাগারে আগুন, নিহত ২৩

আফ্রিকার দেশ ইথিওপিয়ার রাজধানী আদ্দিস আবাবার উপকণ্ঠে অবস্থিত কিলিন্তো কারাগারে অগ্নিকাণ্ডে কমপক্ষে ২৩ বন্দি নিহত হয়েছে। 

স্থানীয় সময় শনিবার এ অগ্নিকাণ্ড হয়। সোমবার এ খবর প্রকাশ করে স্থানীয় বিভিন্ন গণমাধ্যম। 

নিহত ব্যক্তিদের পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি। তারা সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারী ছিল বলে জানা গেছে। 

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে স্থানীয় কিছু গণমাধ্যম দাবি করে, কারারক্ষীদের গুলিতে বন্দিদের মৃত্যু হয়েছে।

সরকারের পক্ষ থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়, বন্দিদের ২১ জন দম বন্ধ হয়ে নিহত হয়। পালানোর সময় বাকি দুজন নিহত হয়।

Pages