Beta

পাঠে বিশ্লেষণে বিশ্বগল্প

পাঠশেষে পাঠকের চিঠি

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৬:৫৮

মুহিম মনির

প্রিয় মোজাফ্ফর ভাই,

ফাগুনের শুভেচ্ছা নেবেন। আশা করি ভালো আছেন। ভালো কাটছে বইমেলার বিকেলগুলো। কদিন আগেই আপনার 'পাঠে বিশ্লেষণে বিশ্বগল্প' বইটি সংগ্রহ করেছি। এ কদিনে পড়েও ফেলেছি পুরোটুকু। বলতে গেলে কি, শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আপনার গদ্যই আমাকে গেঁথে রেখেছিল বইয়ের পাতায়। থেকে থেকে মনে হয়েছে, আমি কি প্রবন্ধ পড়ছি না গল্প? অবশ্য আলোচনার এই বইটি পড়তে গিয়ে ২৬টির মতো গল্পও পড়া হয়ে গেল। জানা হলো ছোটগল্পের শিল্প ও রূপান্তর নিয়ে নানা কিছু।

এই যেমন, আমার অন্যতম প্রিয় কথাসাহিত্যিক হেমিংওয়ের কথাটাই যদি বলি, তাঁর সম্পর্কে তো আর এতটা জানতাম না। 'ছোটগল্পে বিশ্বযুদ্ধের কথক হেমিংওয়ে' লেখাটিতে কী চমৎকারভাবেই-না তাঁর সৃষ্টিশীলতা তুলে ধরেছেন। শুধু কি এ-ই? এর পর পরই এসেছে : গল্প ও গল্পপাঠ—বৃষ্টিদিনে বেড়াল; সহায়ক গল্প—এক সৈনিকের বাড়ি ফেরা; অতিরিক্ত পাঠ—'অ্যা ক্লিন, ওয়েল লাইটেড প্লেইস' গল্পের অনুবাদ পাঠ; হেমিংওয়ের দৃষ্টিভঙ্গি : একটা যথার্থ বাক্য'র মতো একেকটা অনবদ্য ও সুসমৃদ্ধ লেখা।

'অ্যা ক্লিন, ওয়েল লাইটেড প্লেইস' গল্পের অনুবাদ পাঠ' প্রবন্ধটিতে তিনজন অনুবাদকের (হাসান আজিজুল হক, কবীর চৌধুরী, মীর ওয়ালীউজ্জামান) তিনটি অনুবাদ নিয়ে যে তুলনামূলক আলোচনা করেছেন, সেটাও বিস্ময় জাগানিয়া। এমন লেখা আগে কখনো পড়িনি। পড়তে গিয়ে অনুবাদশৈলী সম্পর্কেও কিছুটা ধারণা পেলাম। ডায়াসপোরা সাহিত্য নিয়েও আগ্রহ ছিল। 'ভারতীয় ডায়াসপোরা সাহিত্যের ইতিহাস ও প্রেক্ষাপটে নাইপল' নিবন্ধটি পড়ে সেটাও মিটল অনেকাংশে।

কেবল হেমিংওয়ে বা নাইপলকে নিয়েই নয়, এমন আলোচনা করেছেন বিশ্বসাহিত্যের অমর সব স্রষ্টা জেমস জয়েস, কেট শপা, হারুকি মুরাকামি, রোয়ল্ড ডাল, অ্যাডগার অ্যালান পো, হুয়ান রুলফো, জেরোম ওয়াইডম্যানসহ আরো কয়েকজনের সাহিত্যকর্ম নিয়েও। আর 'বাংলাদেশ পর্বে' আলোচিত হয়েছেন সৈয়দ হক, হাসান আজিজুল হক, জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত, আবদুশ শাকুর, হুমায়ূন আহমেদ ও শহীদুল জহির। 'তুল্যপাঠ' পর্বে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের 'পোস্টমাস্টার' এবং মারজরি কিনান রলিংসয়ের 'আ মাদার ইন ম্যানভিল' গল্প দুটির মধ্যকার সাযুজ্য বড়োই চমৎকার করে সামনে এনেছেন, যা রীতিমতো চমকে দেয়।

আপনার 'বাঁশিওয়ালা মজ্জেল' আমার প্রিয় গল্পগুলোর একটি। তাই এ গল্পটির পেছনকার গল্পটি জানার আগ্রহ ছিল। 'সহায়ক পাঠ' পর্বে সে আগ্রটাও মিটিয়েছেন আপনি। গল্পটিকে নমুনা হিসেবে নিয়ে ছোটগল্পে নির্মিতি ও বাস্তবতার দিকগুলো ব্যাখ্যা করেছেন। সেই সঙ্গে আপনাদের গল্পবিষয়ক আড্ডাটি আমাদের বাড়তি পাওয়া।

পাঠশেষে মনে হয়েছে, 'পাঠে বিশ্লেষণে বিশ্বগল্প' বইটির উল্লেখযোগ্য স্বাতন্ত্র্য হচ্ছে প্রতিটি গল্প নিয়ে আপনার 'গল্পপাঠ' এবং গল্প বা লেখালেখি নিয়ে সংশ্লিষ্ট লেখকের দৃষ্টিভঙ্গির সংযোজন। কত কি জানা হয়ে গেল এগুলো পড়তে পড়তে! এই যেমন :

১। হারুকি মুরাকামি মনে করেন, I find writing novels a challenge, writing stories a joy. If writing novels is like planting a forest, then writing short stories is more like planting a garden.'

২। কেট শপা বলছেন, 'আমি কেন লিখি? এই প্রশ্নটা আমি প্রায়ই নিজেকে নিজে জিজ্ঞাসা করি এবং কখনোই মনের মতো উত্তর দিতে পারিনি। আমার কাছে ছোটগল্প হলো অনুভূতির স্বতঃস্ফূর্ত অভিব্যক্তি। কোথা থেকে সেটা আসে ঈশ্বর জানেন। ছোটগল্পের উৎস বা প্রণোদনা খুঁজতে যাওয়া হলো ফুলের পাপড়ি ছিঁড়ে ওর কামুকতার সন্ধান করা।'

৩। আর হুমায়ূন আহমেদ জানান, 'ছোটগল্পের কথাই ধরা যাক। এরা আমাকে খুব কষ্ট দেয়। এমনও হয়েছে একই গল্প ছবার সাতবার লিখেছি, তারপরও মনে হয়েছে—এটা কী করলাম? যা বলার ছিল তা তো বলা হয়নি। ভীষণ মন খারাপ হয়ে যায়।'

তবে এই হুমায়ূন আহমেদই যে কয়েকটি অনন্য ছোটগল্পের স্রষ্টা সেটা জানতে পারি আপনার 'হুমায়ূন আহমেদের গল্পে বাস্তবতার বহুতল' প্রবন্ধে। হুমায়ূনের লেখা নিয়ে বলতে গিয়ে আমরা অনেকেই কপাল কুঁচকাই। অথচ তাঁর গল্পের সমৃদ্ধ অধ্যায়টি অজানা রয়ে গেছে অনেকেরই। সেটিকে সামনে এনেছেন আপনি এই আলোচ্য গ্রন্থটিতে। সুযোগ করে দিয়েছেন হুমায়ূনের 'সংসার' গল্পটি পড়ার, যে অনন্য গল্পটি এর আগে পড়িনি আমি। 'পাঠে বিশ্লেষণে বিশ্বগল্প' পড়তে গিয়ে আমার মতো করে তাই অনেক পাঠকেরই এমন কিছু অভিজ্ঞতা হওয়ার কথা।

ভূমিকায় জানিয়েছেন যে, গত ১০ বছরে ছোটগল্প নিয়ে আপনার যে পাঠ ও অনুধ্যান তারই সমস্ত নির্যাস হিসেবে এই গ্রন্থখানি আলোর মুখ দেখছে। আর যখন আলোর মুখ দেখল, আলোকিত করল আশপাশ, তখন আমরা দেখলাম বইটি মূলত আমাদের জন্যই লেখা। লেখকের লেখা লেখালেখি দৃষ্টিভঙ্গি; আর সাহিত্যতত্ত্বের আলোকে পাঠোন্মোচন—সবমিলিয়ে 'পাঠে বিশ্লেষণে বিশ্বগল্প' একটি আলাদা ধরনের বই, যে ধরনের বই বাংলা ভাষায় এর আগে কেউ লিখেছেন বলে মনে হয় না। অন্তত আমার স্বল্প পাঠাভিজ্ঞতায় এমন বই পড়ার অভিজ্ঞতা নেই। বোঝা যায়, পাঠকদের প্রয়োজনেই এতটা সময় ও শ্রম ব্যয় করেছেন আপনি। যেজন্য অকুণ্ঠ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি আপনার উদ্দেশে। আশা করছি, বইটি বহুলভাবে আলোচিত হবে। হওয়ার দরকারও।

মুহিম মনির

বইয়ের নাম : পাঠে বিশ্লেষণে বিশ্বগল্প

লেখক : মোজাফ্ফর হোসেন

প্রকাশক : পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

প্রকাশকাল : ফেব্রুয়ারি ২০১৯

প্রচ্ছদ : ধ্রুব এষ

মুদ্রিত মূল্য : ৭৫০ টাকা মাত্র।

Advertisement