Beta

শরণার্থী শিবিরে পোপ, ১২ অভিবাসী নিয়েছে ভ্যাটিকান

১৭ এপ্রিল ২০১৬, ১১:৪৭

অনলাইন ডেস্ক
পোপ ফ্রান্সিস গ্রিসের শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করেছেন এবং ১২ মুসলমান শরণার্থীকে ভ্যাটিকানে নিয়ে গেছেন। ছবি : রয়টার্স

খ্রিস্টান বিশ্বের শীর্ষ নেতা পোপ ফ্রান্সিস গ্রিসের লেসবস দ্বীপের শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করেছেন। স্থানীয় সময় গতকাল শনিবার তিনি শরণার্থী শিবিরে যান। এ সময় তিনি অভিবাসনপ্রত্যাশীদের প্রতি ইউরোপের আচরণের তিরস্কার করেন। 

যুক্তরাজ্যের সংবাদমাধ্যম ইনডিপেনডেন্ট জানিয়েছে, লেসবস দ্বীপের শরণার্থী শিবিরে পাঁচ ঘণ্টা ছিলেন পোপ ফ্রান্সিস। ফেরার সময় ১২ মুসলমান অভিবাসনপ্রত্যাশীকে তিনি নিজের সঙ্গে করে ভ্যাটিকান নিয়ে যান। 

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে সবচেয়ে বড় শরণার্থী সমস্যায় পড়েছে ইউরোপ। গত বছর ১১ লাখ অভিবাসনপ্রত্যাশী যুদ্ধবিধ্বস্ত মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকা থেকে ইউরোপ পৌঁছেছে। 

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ঠেকাতে সম্প্রতি ইউরোপের অনেক দেশ সীমান্তে কড়াকড়ি আরোপ করেছে। ৫০ হাজারের মতো অভিবাসনপ্রত্যাশী আটকে আছে গ্রিসে। 

গতকাল লেসবস দ্বীপের শরণার্থী কেন্দ্রে পৌঁছে পোপ ফ্রান্সিস বলেন, ‘আজ আপনাদের সঙ্গে আমি থাকতে এসেছি, আপনারা আর একা নন।’ তরুণরা পোপের সঙ্গে হাত মেলান। অনেকে পোপের সঙ্গে ছবি তোলেন। 

ইনডিপেনডেন্ট জানিয়েছে, ইউরোপ যাওয়ার পথে ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবে মৃত্যু হওয়া অভিবাসনপ্রত্যাশীদের স্মরণ করেন পোপ। 

জানা গেছে, তুরস্ক থেকে ভূমধ্যসাগর হয়ে গ্রিসের লেসবস দ্বীপে যাওয়ার পথে চার হাজার ৪০০ মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

সম্প্রতি ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ও তুরস্কের মধ্যে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ফেরত পাঠানো নিয়ে চুক্তি হয়েছে। এই চুক্তি অনুযায়ী অবৈধ অভিবাসনপ্রত্যাশীদের গ্রিস থেকে তুরস্কে ফেরত পাঠানো হচ্ছে। মানবাধিকার সংস্থাগুলো বলছে, এমন চুক্তির মাধ্যমে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের থেকে ইউরোপের মুখ ফিরিয়ে নেওয়ার বিষয়টি প্রমাণিত হয়েছে। 

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement