Beta

মোদির সভায় ধাক্কাধাক্কি, তড়িঘড়ি করে বক্তব্য শেষ

০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১০:৩৯ | আপডেট: ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:০৯

কলকাতা সংবাদদাতা
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি শনিবার পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগনা জেলার ঠাকুরনগরে আয়োজিত জনসভায় ভাষণ দেন। ছবি : সংগৃহীত

ভারতে লোকসভা ভোটের আগে পশ্চিমবঙ্গে এসে জনসভায় মনমতো বক্তব্য দিতে পারলেন না প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। অশান্ত জনতাকে পরপর দুবার শান্ত হওয়ার অনুরোধ করেন তিনি। তবু কোনো কাজ না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত তড়িঘড়ি বক্তব্য শেষ করেই বিদায় নেন মোদি।

ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগনা জেলার মতুয়া সম্প্রদায়ের ধাম বলে পরিচিত ঠাকুরনগরে। এদিন মতুয়া মহাসংঘের উদ্যোগে ঠাকুরনগরে আয়োজন করা হয় মোদি সভার। শুরু থেকেই কানায় কানায় ভরে ওঠে সভা মাঠ। কার্যত তিল ধারণের জায়গা ছিল না।

সভায় দাঁড়িয়েই ভারতের নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের তাস খেলেন মোদি। তিনি বলেন, আমরা ভারতে আসা শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দিতে চাই। পশ্চিমবঙ্গের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের উদ্দেশে বলেন, আমি আশা করব, তৃণমূল নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাসের ক্ষেত্রে আমাদের পাশে থাকবে।

কেন্দ্রের কৃষক নীতির প্রশংসা করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেন, কেন্দ্রের সরকার কৃষকদের পাশে রয়েছে। কৃষি ঋণ মওকুফের কথাও বলেন তিনি।  কৃষকদের ব্যাংক হিসাবে বছরে ছয় হাজার রুপি করে দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি। শুক্রবার সংসদে পেশ হওয়া বাজেটে যে দেশের জনগণ উপকৃত হবে সেই কথাও তুলে ধরেন।

এর পরই সভায় বিশৃঙ্খলা চূড়ান্ত আকার নিতে শুরু করে। মোদি অশান্ত জনতাকে শান্ত হওয়ার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, মাঠে জায়গা কম হয়ে গেছে। আপনারা শান্ত হন। আজ মানুষের এই ভালোবাসা দেখে বুঝতে পারছি, কেন মমতা দিদি ভয় পেয়েছেন।

এদিকে মোদি যখন তাঁর বক্তৃতার পারদ চড়াচ্ছেন, ঠিক তখনই মাঠে উপস্থিত ভিড়ের মধ্যে শুরু হয় একে অপরকে ধাক্কা দিয়ে মঞ্চের দিকে এগিয়ে যাওয়ার প্রতিযোগিতা। ধাক্কাধাক্কিতে মাঠে বাঁশের ব্যারিকেড ভেঙে মঞ্চের পাশে এগিয়ে যায় উৎসাহী জনতা। ধাক্কাধাক্কিতে আহত হন বেশ কয়েকজন নারীসহ অনেকেই। পরপর দুবার জনতাকে শান্ত হতে বললেও কাজ না হওয়ায় তড়িঘড়ি বক্তব্য শেষ করে ঠাকুরনগরের সভা থেকে পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুরের সভার উদ্দেশে রওনা দেন প্রধানমন্ত্রী মোদি।         

Advertisement