Beta

ভৈরবে টিভি সাংবাদিকদের আয়োজনে জিল্লুর রহমান স্মরণসভা

২১ মার্চ ২০১৯, ১৫:৫১

সাবেক রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণসভার আয়োজন করে ভৈরব টেলিভিশন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন। ছবি : এনটিভি

ভৈরব টেলিভিশন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের আয়োজনে সাবেক প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার রাতে কিশোরগঞ্জের ভৈরব বাজার ছবিঘর শপিং কমপ্লেক্সে সংগঠনের কার্যালয়ে আলোচনা ও দোয়া মাহফিলের মাধ্যমে প্রয়াত এই রাজনীতিককে স্মরণ করেন সাংবাদিকরা। স্মরণসভায় মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনায় দোয়া ও বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

রাত ৮টার দিকে সংগঠনের সভাপতি আসাদুজ্জামান ফারুকের সভাপতিত্বে স্মরণসভায় মরহুমের স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য দেন সাপ্তাহিক অবলম্বন পত্রিকার সম্পাদক-প্রকাশক মো. তাজুল ইসলাম তাজভৈরবী, সময় টিভির মো. ফজলুর রহমান, ভৈরব থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. বাহালুল খান বাহার, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ও এনটিভির স্টাফ রিপোর্টার মোস্তাফিজ আমিন, দৈনিক পূর্বকণ্ঠ পত্রিকার উপসম্পাদক মো. আলাল উদ্দিন, বাংলাভিশনের প্রতিনিধি প্রভাষক সত্যজিৎ দাস ধ্রুব, চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের মো. বিল্লাল হোসেন মোল্লা, দৈনিক আজকালের খবরের কাজী আবদুল্লাহ আল মাসুম ও বৈশাখী টেলিভিশনের আদিল উদ্দিন আহমেদ।

স্মরণসভায় বক্তারা বলেন, জিল্লুর রহমানের দেশপ্রেম, অহিংস রাজনীতি, জনগণের প্রতি ভালোবাসা—এসব গুণ বুকে ধারণ করলে দেশ ও সমাজ অনেক এগিয়ে যাবে। আমাদের চারপাশের রাজনৈতিক-সামাজিক পরিবেশ হবে শান্তিময়।

জিল্লুর রহমানকে সাংবাদিকবান্ধব রাজনীতিবিদ উল্লেখ করে বক্তারা বলেন, সাংবাদিক ও সাংবাদিকদের সংগঠনের প্রতি জিল্লুর রহমানের অকৃত্রিম মমতা ছিল। তিনি সব সময় তাঁদের প্রতি সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিতেন। পেশাগত দায়িত্ব পালনে অকৃত্রিমভাবে সাহায্য করতেন। তাঁর মতো বিরলগুণের অধিকারী মানুষ একটি জনপদে খুব কমই জন্ম নেয় বলে অভিমত ব্যক্ত করেন।

জিল্লুর রহমান দেশের ১৯তম রাষ্ট্রপতি থাকাকালীন ২০১৩ সালের ২০ মার্চ সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে মারা যান। ১৯২৯ সালের ৯ মার্চ বর্তমান কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব উপজেলার ভৈরবপুর গ্রামের সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবার বলাকী মোল্লার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেছিলেন জিল্লুর রহমান। মহান ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে তাঁর রাজনীতিতে হাতেখড়ি। সে সময় তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক হল ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক (জিএস) ছিলেন। দেশের বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রাম ও ক্রান্তিলগ্নে তাঁর রয়েছে অবিস্মরণীয় ভূমিকা।

স্মরণসভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন চ্যানেল এসের প্রতিনিধি জয়নাল আবেদীন রিটন, গাজী টিভির এম এ হালিম, দৈনিক খবরপত্রের আবদুর রউফ, সিনিয়র শিক্ষক মো. নজরুল ইসলাম রিপন, এশিয়ান টেলিভিশনের হাজি সজীব আহমেদ, মাই টিভির শাহনূর, দৈনিক ইনকিলাবের এম আর রুবেল, চেম্বার সদস্য মিজানুর রহমান পাটোয়ারী, সময়ের আলোর রাজিবুল হাসান, বাংলাদেশ সময়ের মো. জামাল মিয়া, ওয়ান নিউজের হৃদয় আজাদ প্রমুখ।

Advertisement