Beta

চাটখিল থানার ওসিকে প্রত্যাহার চেয়ে হাইকোর্টে রিট

২০ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৭:১১

নিজস্ব প্রতিবেদক

নোয়াখালী-১ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকনের ওপর গুলি চালানোর ঘটনায় চাটখিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) প্রত্যাহারের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় ব্যারিস্টার খোকনের পক্ষে তাঁর আইনজীবী ব্যারিস্টার সানজিদ সিদ্দিকী রিট আবেদনটি দায়ের করেন।

সানজিদ সিদ্দিকী বলেন, ‘আবেদনটির ওপর আগামী রোববার বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চে শুনানি হতে পারে।’

এর আগে গতকাল বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও নোয়াখালী-১ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন চাটখিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) প্রত্যাহার চেয়ে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) আবেদন করেন। ওসির বিরুদ্ধে অবৈধ অস্ত্রের মদদ দেওয়া ও গ্রেপ্তার বাণিজ্যের অভিযোগ এনেছেন খোকন।

চাটখিল থানার ওসির প্রত্যাহার চেয়ে করা আবেদনে বলা হয়, ‘হাটপুকুরিয়া ঘাটলাবাদ ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মো. কামরুজ্জামান শাহীনের বাড়িতে গত ১৭ ডিসেম্বর রাত ১০টার দিকে পুলিশের উপস্থিতিতে ছাত্রলীগ-যুবলীগ ভাঙচুর ও লুটপাট করে। পুলিশের কাছে কারণ জানতে চাইলে আক্রান্তদের বলা হয়—ওসির নির্দেশ আছে।’

আবেদনে আরো বলা হয়, এ ছাড়া পোস্টার লাগাতে গেলে পুলিশ বিএনপির কর্মীদের গ্রেপ্তার করে। বিএনপিনেতা বিপুল ইসলাম পাটোয়ারীকে গ্রেপ্তার করলেও ৭০ হাজার টাকা নিয়ে ছেড়ে দেন ওসি শামসুদ্দীন। নির্বাচনী এলাকায় অবৈধ অস্ত্রের ছড়াছড়ি হলেও তা উদ্ধারে ওসির অনীহা রয়েছে। এসব অভিযোগ রিটার্নিং কর্মকর্তাকে জানিয়েও কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি। ওসি শামসুদ্দিন নিজে অবৈধ অস্ত্রের মদদ দিচ্ছেন। তাই চাটখিল থানার ওসি হিসেবে তিনি দায়িত্বে থাকলে কোনোভাবেই সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়।

এজন্য তাকে প্রত্যাহার করে তদন্তসাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সিইসির কাছে আবেদন জানান খোকন। কিন্তু সিইসি আবেদন অনুসারে ওসির বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ব্যারিস্টার সানজিদ সিদ্দিকী।

গত ১৫ ডিসেম্বর বিকেলে সোনাইমুড়ি বাজারে থানার ওসি আবদুল মজিদের ছররা গুলিতে আহত হন ব্যারিস্টার খোকন। সেজন্য সোনাইমুড়ি থানার ওসিকে অভিযুক্ত করে তাকে প্রত্যাহারে ১৬ ডিসেম্বর আবেদন করেন খোকন। সেই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল সোনাইমুড়ি থানার ওসিসহ চারটি থানার ওসিকে প্রত্যাহার করতে গতকাল পুলিশের মহাপরিদর্শককে (আইজিপি) নির্দেশ দেয় ইসি।

Advertisement