ইতিহাস : শিরোমণি ট্যাঙ্ক যুদ্ধ, বীরত্বের নিদর্শন

১৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৬:০২

স্বপ্নীল মাহফুজ

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ প্রত্যেক বাঙালির জন্য গর্ব আর অহংকারের । কিন্তু এই মুক্তিযুদ্ধের সময় ঘটে যাওয়া কিছু যুদ্ধ আমাদের এই গর্ব আরো অনেকগুণ বাড়িয়ে দেয়। অনেক যুদ্ধের ঘটনার কথা আমরা জানি, আবার অনেক লড়াইয়ের কাহিনী আড়ালে চলে গেছে। আজ এমনই এক যুদ্ধের কথা জানাব, যেটি হয় তো আমরা মনে রাখিনি, কিন্তু যে যুদ্ধের কৌশল ভারত, পোল্যান্ডসহ ৩৫টি দেশের সেনাবাহিনীর ডিফেন্স কলেজে পড়ানো হয়। সেটা হলো খুলনার শিরোমণি ট্যাঙ্ক যুদ্ধ, এটা কারো কাছে শিরোমণি সম্মুখ সমর নামেও পরিচিত।  

অনেকেরই হয়তো অজানা যে , পুরো বাংলাদেশ ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় অর্জন করলেও খুলনা শত্রুমুক্ত হয় তারও একদিন পর। অর্থাৎ ১৯৭১ সালের ১৭ ডিসেম্বরে। বিশ্বের সেরা কিছু ট্যাংক যুদ্ধের মধ্যে শিরোমণি ট্যাঙ্ক যুদ্ধ একটি। ১৯৭১ সালের ৭ ডিসেম্বর পাকিস্তানি বাহিনী যশোর সেনানিবাস ছেড়ে খুলনার দিকে অগ্রসর হয়। কিন্তু পাকবাহিনীর কমান্ডার হায়াত খানের এমন সিদ্ধান্ত যথেষ্ট সন্দেহজনক ছিল। কেননা যশোরে পাকবাহিনীর সেনানিবাস ছিল যথেষ্ট শক্তিশালী এবং সুরক্ষিত। কেউ কেউ মনে করেন মার্কিন সপ্তম নৌবহর আসার খবরে তাদের সাথে যুক্ত হতেই হায়াত খান এমন সিদ্ধান্ত নেন। আবার কেউ কেউ মনে করেন যশোর সেনানিবাসকে হায়াত খান নিরাপদ আশ্রয় ভাবতে পারছিলেন না। তাদের বিশাল ট্যাংক রেজিমেন্ট ,পদাতিক সেনা , রাজাকার বাহিনীর বিশাল শক্তি নিয়ে খুলনার শিরোমণি এলকায় জড়ো হয়।

কমান্ডার হায়াত খান সেখানে ক্যাম্প গড়ে তুলে মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন এলাকায় যুদ্ধ করতে থাকেন। হায়াত খান তার সাঁজোয়া ও গোলন্দাজ ব্রিগেডকে নিয়ে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তোলেন। রাস্তায় ট্যাঙ্ক বিধ্বংসী মাইন পুতে বিশেষ প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে তোলেন। এ খবর পেয়ে ফুলতলার চৌদ্দ মাইলে অবস্থানরত মিত্রবাহিনীর মেজর মহেন্দ্র সিং ও মেজর গনির নেতৃত্বে একটা বড় কনভয় ১৪ ডিসেম্বর খুলনার দিকে রওনা করে।

মিত্রবাহিনী যুদ্ধক্ষেত্রে নিশানার মধ্যে পৌঁছুলে পাকবাহিনী বিভিন্ন দিক থেকে তাদের ওপর অতর্কিতে হামলা চালায়। ওই যুদ্ধে মিত্রবাহিনীর বিপুল সেনা হতাহত হয়। কথিত আছে, এদিন মিত্রবাহিনীর বিমান ভুল করে ফুলতলা থেকে অগ্রসরমান মিত্র সেনাদের পাকিস্তানি সৈন্য মনে করে তাদের ওপর বোমা বর্ষণ করে। ফলে মিত্র বাহিনীর ক্ষয়ক্ষতি কয়েকগুণ বেড়ে যায়। ট্রাক ভরে ভারতীয় সেনাদের মৃতদেহ নিয়ে যেতে দেখে স্থানীয় লোকজন। পরবর্তী সময়ে মিত্রবাহিনী তাদের পরিকল্পনা বাতিল করে নতুন ভাবে ঢেলে সাজায়। মিত্রবাহিনী মেজর দলবীর সিং খুলনা অভিযানের জন্য মেজর মঞ্জুরকে অধিনায়ক করে দেন। ১৬ ডিসেম্বর পাকবাহিনী ঢাকায় আত্মসমর্পন করলেও হায়াত খান তা না মেনে তাঁর বাহিনীকে নিয়ে যুদ্ধ অব্যাহত রাখেন। এ সময় মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডো দলের প্রবল প্রতিরোধের মুখে পড়ে পাকিস্তানি ব্রিগেডিয়ার হায়াত খানের নেতৃত্বাধীন সেই ট্যাঙ্ক রেজিমেন্ট এবং চার সহস্রাধিক সৈন্য।

ভারতীয় বাহিনীর আর্টিলারি সাপোর্ট নিয়ে এগোতে শুরু করে মুক্তিবাহিনী। প্রথাগত মিলিটারি ফরমেশেনের চেয়ে একটু ব্যতিক্রম ফরমেশনে আক্রমণ হয়। তারপরও, যুদ্ধ এতই ভয়াবহ ছিল যে তা হাতাহাতি পর্যায়ে চলে যায়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর শিরোমণি যুদ্ধেই প্রথম ট্যাঙ্ক, আর্টিলারি, হাতাহাতি ও বেয়নেট চার্জ, সবই দেখা যায়। শিরোমনিতে সংঘটিত ট্যাঙ্ক যুদ্ধটি একটা ভিন্নমাত্রা সৃষ্টি করে। এ যুদ্ধের অভিনব কৌশল উদ্ভাবন করেছিলেন মেজর মঞ্জুর। তার এই বীরত্বপূর্ণ ভূমিকার কারণে তাকে বীর উত্তম খেতাবে ভূষিত করা হয়।

বর্তমানে শিরোমনি সেনানিবাসে এই মহান যুদ্ধের স্মৃতি রক্ষার্থে গড়ে তোলা হয়েছে স্মৃতিস্তম্ভ। স্মৃতিস্তম্ভের পাশেই দেখতে পাবেন এই যুদ্ধের বর্ণনাযুক্ত স্মৃতিফলক। এখানে আরো গড়ে তোলা হয়েছে চিড়িয়াখানা এবং শিশুপার্ক। এই স্থানটি সেনাবাহিনীর অধীনে পরিচালিত হয়ে আসছে।

 

তথ্যসূত্র : বাংলাদেশ ডিফেন্স নিউজের ফেসবুক পেজ।