উত্তাল সময়ের গান ‘জয় বাংলা, বাংলার জয়’

২৬ মার্চ ২০১৫, ১২:২০

গাজী মাজহারুল আনোয়ার। ছবি : সংগৃহীত

বাংলা গানের এক জীবন্ত কিংবদন্তি গাজী মাজহারুল আনোয়ার। তাঁর লেখা বহু বাংলা গান জুগিয়েছে আমাদের মনের খোরাক, সমৃদ্ধ করেছে বাংলা গানের ভাণ্ডার। গাজী মাজহারুল আনোয়ার বাংলাদেশের একজন স্বনামধন্য চলচ্চিত্র নির্মাতা। এ ছাড়া স্বাধীনতা ও দেশপ্রেম নিয়ে অসংখ্য কালজয়ী গানের স্রষ্টা। ‘জয় বাংলা, বাংলার জয়’ গানটি ছিল মুক্তিযোদ্ধাদের প্রেরণার উৎস।

এই গান সম্পর্কে গাজী মাজহারুল আনোয়ার বলেন, ‘মার্চের দিকে লেখা হয় এই গানটি, তবে ঠিক তারিখ মনে নেই। তখন সময়টা ছিল উত্তাল, সবার প্রাণে একটাই চাওয়া—জয়। এর মধ্যে বঙ্গবন্ধুর আহ্বান, যার কাছে যা কিছু আছে তাই নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ো। আমাদের হাতে কলম ছিল, আমরা কলম নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছি। সৈনিকদের পক্ষে মেজর জিয়াউর রহমান স্বাধীনতা ঘোষণা করে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। যার কাছে সুর ছিল, সে গান নিয়ে এসেছে। জহির রায়হান ক্যামেরা নিয়ে কাজে নেমেছেন। আসলে সর্বস্তরের মানুষের সম্মিলিত প্রচেষ্টার ফসল এই স্বাধীনতা। তখন আসলে গানটি লিখতে হয়নি, এমনিতেই আমার কলম দিয়ে গানের কথা বেরিয়ে গেছে। চোখের সামনে লাখো কোটি মানুষের একটাই চাওয়া, সেটি স্বাধীনতা। ওই সময়ে প্রত্যেকটা মানুষের মনের কথাগুলো শুধু এক হয়ে একটি গান হয়ে গেছে।’

মাজহারুল আনোয়ার আরো বলেন, “আমরা চেয়েছিলাম ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত একটি সমাজব্যবস্থা, যেখানে মানুষের পরিপূর্ণ স্বাধীনতা থাকবে। কিন্তু স্বাধীনতার এত বছর পরও আমরা নিজেদের কতটা স্বাধীন দাবি করতে পারি? আমাদের যাঁরা যুদ্ধে শহীদ হয়েছেন বা যাঁরা বেঁচে আছেন, তাঁদের বিষয়ে কতটুকু জানে নতুন প্রজন্ম? আমরা আমাদের সময় যা করার ছিল, করেছি। এখন সময় তরুণদের। তারা কি ধরে রাখতে পারছে এই স্বাধীনতা? এর উত্তরের জন্য আমার আরেকটি গান লিখেছি স্বাধীনতার পরে, ‘একতারা তুই দেশের কথা বলরে এবার বল...’। এখন সময় দেশের গান গাইবার, সব দল-মত একতারে দেশের গান গাইলেই দেশের সমৃদ্ধি আসবে। সমস্ত হিংসা ভুলে মানুষকে এককাতারে দাঁড়িয়ে দেশের গান গাইলেই দেশে স্বাধীনতা বা স্বাধীনতার জন্য জীবন দান সার্থক হবে।”

গাজী মাজহারুল আনোয়ার ১৯৪৩ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি কুমিল্লার দাউদকান্দি থানার তালেশ্বর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৬৪ সাল থেকে রেডিও পাকিস্তানে গান লেখা শুরু করেন। ১৯৬৫ সাল থেকে যুক্ত হন চলচ্চিত্রে। বাংলাদেশ টেলিভিশনের জন্মলগ্ন থেকেই নিয়মিত গান ও নাটক রচনা করেন। লিখতে শুরু করেন কাহিনী, চিত্রনাট্য, সংলাপ ও গান। পাশাপাশি বেশ কয়েকটি উল্লেখযোগ্য ছবির পরিচালক ও প্রযোজক গাজী মাজহারুল আনোয়ার কিছু টিভি নাটকও পরিচালনা করেন। এ পর্যন্ত তাঁর লেখায় ছবি নির্মিত হয়েছে প্রায় ৪১টি। বিবিসির জরিপে ‘হাজার বছরের শ্রেষ্ঠকালের গান’ হিসেবে ২০টি গানের মধ্যে তাঁর রচিত তিনটি গান স্থান পায়। গান তিনটি হলো—১. একতারা তুই দেশের কথা বলরে এবার বল, ২. একবার যেতে দে না আমার ছোট্ট সোনার গাঁয়, ৩. জয় বাংলা, বাংলার জয়। গাজী মাজহারুল আনোয়ার পুরস্কার ও সম্মাননা পেয়েছেন প্রচুর। ২০০২ সালে একুশে পদক লাভ করেন। স্বাধীনতাযুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য স্বাধীন দেশের সর্বপ্রথম পুরস্কার ‘বাংলাদেশ প্রেসিডেন্ট গোল্ড মেডেল অ্যাওয়ার্ড’ও লাভ করেন তিনি। পাঁচবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, বিজেএমই অ্যাওয়ার্ড, ডেইলি স্টার কর্তৃক লাইফটাইম অ্যাওয়ার্ড, একাধিকবার বাচসাস পুরস্কারসহ তাঁর অর্জিত পুরস্কারের সংখ্যা ১১০।