Beta

পূর্বাচলের ঘটনায় আরেকজন গ্রেপ্তার, ৩১৫ গুলি উদ্ধার

২০ জুন ২০১৭, ০০:০০

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার গুতিয়াব আগারপাড়া এলাকা থেকে উদ্ধার হওয়া গুলিসহ গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা। ছবি : এনটিভি

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার পূর্বাচল উপশহর থেকে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধারের মামলায় সাব্বির নামের আরেকজনকে গ্রেপ্তার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। আজ সোমবার সন্ধ্যায় উপজেলার গুতিয়াব আগারপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ওই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল ইসলাম জানান, গত ১ জুন পূর্বাচল উপশহরের ৫ নম্বর সেক্টরের লেক থেকে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় গ্রেপ্তারকৃতদের স্বীকারোক্তি ও তাঁদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী অভিযান চালিয়ে সাব্বিরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পরে তাঁর দেওয়া তথ্যমতে ওই এলাকারই একটি কবরস্থানে বাঁশঝাড়ের নিচে মাটি খুঁড়ে বাক্সবন্দি অবস্থায় নাইন এমএম পিস্তলের ৩১৫টি গুলি উদ্ধার করা হয়।

ওসি জানান, গ্রেপ্তার হওয়া সাব্বিরকে এই মামলায় আসামি করা হয়েছে। তাঁর কাছ থেকে অস্ত্র উদ্ধারের বিষয়ে আরো গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের প্রয়োজনে তাঁকে আগামীকাল আদালতে হাজির করে রিমান্ডের আবেদন করা হবে।

এর আগে গ্রেপ্তারকৃত চারজনের মধ্যে শরীফ, রাসেল ও শাহীন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। শান্ত নামের অপর আসামি বর্তমানে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের হেফাজতে রিমান্ডে রয়েছে। তাঁর দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই সাব্বিরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে গোয়েন্দা পুলিশের ওসি মাহমুদুল ইসলাম জানান।

গত ১ জুন পূর্বাচল উপশহরের ৫ নম্বর সেক্টরের লেক থেকে ৬২টি সাব মেশিন গান (এসএমজি), দুরবিনযুক্ত দুটি রকেটলঞ্চার, ৪৪টি ম্যাগাজিন, ৭ পয়েন্ট ৬২ বোর ও নাইন এমএম পাঁচটি পিস্তল, দুটি ওয়াকিটকি, ৪২টি হ্যান্ড গ্রেনেড ও পাঁচ বস্তা গুলি, ডেটোনেটর, বোমা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়। ৩ জুন শনিবার সন্ধ্যা ৬টায় রূপগঞ্জের ভোলাব ইউনিয়নের বাসন্দা (পাইশকা) এলাকার শীতলক্ষ্যা নদী থেকে আরো পাঁচটি এসএমজি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি মাহমুদুল ইসলাম বাদী হয়ে ছয়জনকে আসামি করে অস্ত্র আইনে একটি মামলা করেন।

Advertisement
Advertisement