Beta

এবার ইউরোপজুড়ে গণভোটের দাবি

২৪ জুন ২০১৬, ২১:১৫

অনলাইন ডেস্ক
প্রতীকী ছবিটি রয়টার্স থেকে নেওয়া।

যুক্তরাজ্যের গণভোটে ২৮টি দেশের জোট ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন (ইইউ) ছাড়ার পক্ষে গণরায় আসার পর ইউরোপজুড়ে গণভোটের দাবিতে নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে। এরই মধ্যে যুক্তরাজ্যের পদাঙ্ক অনুসরণ করে এবার ইউরোপজুড়ে গণভোটের আহ্বান জানিয়েছে রক্ষণশীল দলগুলোর সংগঠন কনজারভেটিভ পার্টি এলায়েন্স (সিপিএ)।

সংগঠনটির প্রধান সংগঠক ও মুখপাত্র জ্যাঁ জ্যাক ফেজ আজ শুক্রবার এ ব্ষিয়ে সংবাদমাধ্যমের কাছে এক বিবৃতি পাঠিয়েছেন। বিবৃতিতে ফেজ বলেন, ব্রিটেনবাসীর মতো ইউরোপেরও এই জোট (ইইউ) নিয়ে ভাবার সময় এসেছে। সত্যিকারের কল্যাণের জন্য প্রতিটি দেশের জনগণের মতামত নিয়ে আঞ্চলিক এই জোটের কার্যক্রম এগিয়ে নিয়ে যাওয়া উচিত।

এদিকে ইউরোপের দেশ ফ্রান্সে গণভোট আয়োজনের আহ্বান জানিয়েছে দেশটির ডানপন্থী দল ‘ন্যাশনাল ফ্রন্ট’ (এফএন)। গণভোটের ফলাফল আসার পর ফ্রান্সের ন্যাশনাল ফ্রন্ট দলের নেত্রী মেরিন ল্য পেন টুইট করেছেন, ‘ভিক্টরি ফর ফ্রিডম’। ওই টুইটে তিনি আরো বলেন, ‘আমি যেমনটা বছরের পর বছর ধরে বলে আসছি, ফরাসিদেরও এখন অবশ্যই একই ধরনের গণভোট পেতে হবে। একই ধরনের গণভোট হওয়া উচিত অন্যান্য ইইউ দেশগুলোতেও।’

রয়টার্স জানিয়েছে, এফএন দীর্ঘদিন ধরেই ইইউ থেকে ফ্রান্সের বেরিয়ে আসার পক্ষে দাবি জানিয়ে আসছে। গণভোটের মাধ্যমে ব্রিটেনের ইইউ থেকে বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে এ দাবি এখন আরো জোরালো হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

বিশ্লেষকদের বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, ইইউ রাজনীতিকরা এখন শঙ্কায় রয়েছেন যে, এসবের তোড়ে পুরো জোটের অস্তিত্ব সংকটে পড়ে যেতে পারে।

এদিকে নেদারল্যান্ডসের অভিবাসনবিরোধী রাজনীতিক এবং বিরোধী রাজনৈতিক দল ন্যাশনাল ফ্রিডম পার্টির প্রধান নেতা গ্রিট উইল্ডার্স বলেছেন, এখন নেদারল্যান্ডসে ‘নেক্সিট’ ভোট দরকার। আজ শুক্রবার ব্রেক্সিটের ফলের পর এক সংবাদ সম্মেলনে উইল্ডার্স বলেন, ‘ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে নেদারল্যান্ডসের সদস্যপদ সম্পর্কে যত দ্রুত সম্ভব ডাচ জনগণের মতামত নেওয়া উচিত। আমাদের দেশ, আমাদের অর্থ, আমাদের সীমান্ত এবং আমাদের নিজস্ব অভিবাসন নীতির দায়িত্বে আমরাই থাকতে চাই।’

সম্প্রতি এক জনমত জরিপে দেখা গেছে, নেদারল্যান্ডসের ৫৪ শতাংশ মানুষই এ ব্যাপারে গণভোট চান।

বিবিসি জানায়, আগামী বছরের মার্চ মাসে নেদারল্যান্ডসে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কিছু মতামত জরিপে দেখা গেছে, উইল্ডার্স এগিয়ে আছেন।

আর আজকের সংবাদ সম্মেলনে উইল্ডার্স বলেন, ‘আমি যদি প্রধানমন্ত্রী হই, তবে নেদারল্যান্ডসে ইইউ ছাড়ার ব্যাপারে গণভোট হবে। ডাচ জনগণকেই সিদ্ধান্ত নিতে দিন।’

এদিকে অস্ট্রিয়াতেও ইইউ ছাড়ার পক্ষে জনমত তৈরি হয়েছে। আজ ব্রিটেনে জনরায়ের পরিপ্রেক্ষিতে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সেবাস্তিয়ান কারজ জানান, যুক্তরাষ্ট্রের ইইউ ছেড়ে দেওয়া হয়তো এই জোটটি সামলাতে পারবে। কিন্তু অন্যান্য দেশেও যে এই সম্পর্কে পারিপার্শ্বিক সমান্তরাল প্রতিক্রিয়া তৈরি হওয়ার সম্ভাবনাকে উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

ইউরোপীয় ইউনিয়নে যোগ দেওয়ার ব্যাপারে তুরস্কেও গণভোট হতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান। দীর্ঘদিন ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) তুরস্কের সদস্যপদের বিষয়টি ঝুলে থাকার পরিপ্রেক্ষিতে তিনি এ মন্তব্য করেন। আঙ্কারার ব্যাপারে ইইউর মনোভাবেরও কঠোর সমালোচনা করেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট।

গত বুধবার ইস্তাম্বুলে এক সমাবর্তন অনুষ্ঠানে এ বিষয়ে কথা বলেন এরদোয়ান। তিনি বলেন, ‘আমরা ব্রিটেনের মতো জনগণের ওপর বিষয়টি ছেড়ে দিতে পারি। ইউরোপীয় ইউনিয়নে যোগ দেওয়ার ব্যাপারে আমরা আলোচনা অব্যাহত রাখব না এখানেই ইতি টানব, তা গণভোটের মাধ্যমে জনগণের কাছ থেকে জানতে পারি। এ ক্ষেত্রে জনগণ যদি বলে আলোচনা ‘অব্যাহত থাকুক’, তাহলে আমরা তা চালিয়ে যাব।

রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান বলেন, ‘তুরস্ক মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাষ্ট্র হওয়ায় ইউরোপীয় ইউনিয়ন সদস্য হিসেবে আমাদের মেনে নিতে চায় না। আমরা এটা জানতাম। কিন্তু আমরা আমাদের আন্তরিকতা দেখানোর চেষ্টা করেছি।’

এরদোয়ান বলেন, তুরস্ককে ১৯৬৩ সালে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য হওয়ার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়। দীর্ঘ ৫৩ বছর পার হলেও তা এখনো হয়নি।

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement