Beta

৪০ বছর আগে ঈশ্বর চুল না কাটতে আদেশ দিয়েছেন : সকাল দেব

১৭ জুলাই ২০১৯, ১৮:৪৪

অনলাইন ডেস্ক

কেউ যদি মাত্র দুই থেকে তিন দিন চুল না ধৌত করে তাতেই কেমন যেন অস্থির লাগে। কারণ নিয়মিত চুল না ধুলে চুলে ধুলা জমে নোংরা হয়ে যায়। কিন্তু একজন মানুষ টানা ৪০ বছর তাঁর চুল কাটেননি এবং মাথায় সাবান-শ্যাম্পু ব্যবহার করেননি ভাবা যায়!

এমনই এক অদ্ভুত কাণ্ড ঘটালেন ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় বিহার প্রদেশের মুঙ্গার জেলার বাসিন্দা সকাল দেব টুডডু। অদ্ভুত জটা চুলওয়ালা এই ব্যক্তির বয়স ৬৩ বছর। আর তাঁর চুল ছয় ফুট দীর্ঘ।

সকাল দেব তাঁর সেই চুলের জট মাথার ওপর পাগড়ির মতো পেঁচিয়ে রাখেন। কারণ তাঁর চুল এতটাই লম্বা যে তা মাটি পর্যন্ত নেমে আসে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম মেট্রো এক প্রতিবেদনে জানায়, সকাল দেব বলেন, ৪০ বছর আগে এক রাতে তিনি ঘুমিয়েছিলেন। ঘুম থেকে ওঠে দেখতে পান তাঁর মাথার চুল জট বেঁধে গেছে। এটাকে তিনি স্বর্গীয় আশীর্বাদ হিসেবে মনে করেন। তিনি আরো জানান, ঈশ্বর তাঁকে চুল না কাটতে আদেশ দিয়েছেন। এবং ধূমপানসহ আরো কয়েকটি অভ্যাস ত্যাগ করতেও আদেশ দিয়েছেন। আর সেই রাতের পর থেকে এখনো পর্যন্ত তিনি তাঁর চুল কাটা থেকে বিরত রয়েছেন।

বিহার প্রদেশের মুঙ্গার জেলার বাসিন্দারা তাঁর এই কর্মের জন্য পরম শ্রদ্ধা করেন এবং সম্মানসূচক উপাধি মহাত্মা জি বলে ডাকেন।

সৃষ্টিকর্তার প্রতি তাঁর আনুগত্যের বহিঃপ্রকাশ হিসেবে সেদিন থেকেই সকাল দেব ধূমপান এবং মদ্যপান ছেড়ে দেন। আর তাঁর এই সৃষ্টিকর্তার প্রতি আনুগত্যের কারণে ওই এলাকায় তিনি খুব পরিচিত এবং সচেয়ে সম্মানিত সাধুদের একজন।

শুধু তাই নয়, সন্তানহীন দম্পতিদের চিকিৎসাও করেন তিনি। সন্তান লাভের আশায় তাঁর কাছে আসেন অনেক নিঃসন্তান দম্পতি। তাঁর কাছে চিকিৎসা নিতে অনেক দূর-দূরান্ত থেকে লোকজন আসে।

সকাল দেব বনবিভাগে প্রায় ৩১ বছর ধরে সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে চাকরি করেছেন। তিন ছেলে ও তিন মেয়ে, সাত নাতি-নাতনি ও স্ত্রী রুপিয়া দেবীকে নিয়ে বিহারে বসবাস করেন তিনি।

Advertisement