Beta

লাইক পেতে জীবন বাজি রেখে এমন ছবি!

০৬ মে ২০১৯, ১৭:১৩

অনলাইন ডেস্ক
বেলজিয়ামের দম্পতি জিন ও ক্যামিলের ভয়াবহ স্টান্ট। ছবি : ইনস্টাগ্রাম

ভ্রমণের শখ জিন ও ক্যামিল দম্পতির। ঘুরে বেড়ান এ দেশ-ও দেশ। সুউচ্চ পাহাড় আর সমতলের সৌন্দর্য দুচোখ ভরে দেখেন তাঁরা। নীল জলরাশি আর বরফের ছোঁয়ায় উজ্জীবিত হন। আর কার না রোমাঞ্চিত হতে ভালো লাগে!

কিন্তু এ দম্পতির ভয়ংকর নেশা আছে। জীবন বাজি রেখে ভয়াবহ সব জায়গায় ছবি তোলেন তাঁরা। আর সেইসব ছবি শেয়ার করেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। সম্প্রতি তেমনই এক ‘বন্য চুমু’র ছবি ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছেন ইউরোপের দেশ বেলজিয়ামের ব্রাসেলসে বসবাসরত এ দম্পতি!

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলের অনলাইন সংস্করণ প্রতিবেদন আরো জানিয়েছে, তাঁদের ‘বন্য চুমু’র ছবি দেখে তিরস্কার করেছেন অন্তর্জাল ব্যবহারকারীরা। সম্প্রতি শ্রীলঙ্কায় ভ্রমণে যান জিন-ক্যামিল। সেখানে চলন্ত ট্রেনের বাইরে হেলে পড়ে চুমুর দৃশ্য ক্যামেরাবন্দি করেছেন তাঁরা। এ দম্পতির ভয়াবহ স্টান্ট দেখে রীতিমতো ভড়কে গেছেন সবাই।

ছবিতে দেখা যাচ্ছে, জিন এক হাতে চলন্ত ট্রেনের দরজার হ্যান্ডেল ধরে বাইরে হেলে পড়েছেন আর তাঁর ওপর চড়ে চুম্বনে মেতেছেন ক্যামিল—তাঁর আবেগী চুম্বনে ডান পা ছুঁয়েছে জিনের পাঁজর!

ছবি দেখে সমালোচকেরা তিরস্কার করেছেন এই দম্পতিকে। তাঁরা বলছেন, ভয়ংকর এই স্টান্টের প্রচার করছেন তাঁরা, যা জীবনের জন্য হুমকিস্বরূপ।

গত এপ্রিলে শ্রীলঙ্কা ভ্রমণ করেন ওই দম্পতি। সেখানে তোলা ছবি ইনস্টাগ্রাম পেজে শেয়ার করেছেন ওই দম্পতি। তবে দ্রুতই অন্য এক সাইটে তাঁদের ছবি রি-পোস্ট করা হয়। শ্রীলঙ্কার ক্যান্ডি থেকে এলায় যাওয়ার পথে নৈসর্গিক দৃশ্য নজর কাড়ে ভ্রমণপিপাসুদের। সেখানেই ভয়াবহ এ ছবিটি তোলা।

ক্যাপশনে ওই দম্পতি দৃশ্যটিকে বর্ণনা করেছেন, ‘আমাদের বন্য চুমুগুলোর একটি’ হিসেবে এবং আরো লিখেছেন, একে অন্যের প্রতি ‘অন্ধ বিশ্বাসের’ মুহূর্ত সেটি।

তবে সমালোচকেরা এই দম্পতিকে ‘স্টুপিড’ আখ্যা দিয়ে ‘ঝুঁকিপূর্ণ আচরণের’ জন্য তিরস্কার করেছেন। একজন মন্তব্য করেছেন, ‘এবং এভাবেই মানুষ মরে।’ আরেকজন লিখেছেন, ‘একে রোমাঞ্চকর বলব না, ইনস্টাগ্রামে লাইক পাওয়ার জন্য নির্বোধেরা জীবনের ঝুঁকি নিচ্ছে।’

বেলজিয়ামের এই যুগল আনুষ্ঠানিকভাবে ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট খোলেন ২০১৭ সালের জুনে। দক্ষিণ আমেরিকায় তাঁরা পাঁচ মাসের লম্বা সফরও করেছিলেন। ইনস্টাগ্রামে ভালোবাসাপূর্ণ অনেক ছবিই আছে তাঁদের। আছে ঝুঁকিপূর্ণ ছবিও।

Advertisement