Beta

এবার দিদির নৌকা ডুবছেই, বললেন মোদি

০৩ এপ্রিল ২০১৯, ১৮:৫৪ | আপডেট: ০৩ এপ্রিল ২০১৯, ২১:০০

কলকাতা সংবাদদাতা
বুধবার দুপুরে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের শিলিগুড়িতে এক নির্বাচনী জনসভায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ছবি : সংগৃহীত

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে এবার দিদির (মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়) নৌকা ডুবছেই। আজ বুধবার দুপুরে পশ্চিমবঙ্গের শিলিগুড়িতে এক নির্বাচনী জনসভায় এভাবেই মুখ্যমন্ত্রী মমতার সরকারের উদ্দেশে বক্তব্য দেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এদিন একাধিক ইস্যুতে পশ্চিমবঙ্গের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের উদ্দেশে আক্রমণাত্মক বক্তব্য দেন মোদি।

সভামঞ্চে উঠে ‘ভারত মাতা কি জয়’ বলে ভাষণ শুরু করে সভাস্থলে অসংখ্য মানুষের ভিড়ের কথা উল্লেখ করে প্রথমেই মোদি বলেন,  আপনাদের উপস্থিতিই জানান দিচ্ছে পশ্চিমবঙ্গে এবার দিদির নৌকা ডুবছেই।

বালাকোট প্রসঙ্গে বিরোধীদের পাকিস্তানের হিরো বলে কটাক্ষ করেন মোদি। সেই সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করে বলেন, পাকিস্তানের মাটিতে বালাকোটে ঘরে ঢুকে জঙ্গিদের মারা হয়েছে। আর ভারতের আঘাতে সবথেকে বেশি ব্যাথা পেয়েছেন কলকাতায় বসে থাকা দিদি। দিদির যতোটা ব্যথা হয়েছে ইসলামাবাদ বা লাহোরের তা হয়নি।

মোদি এদিন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী ও তাঁর দলের সমালোচনা করে বলেন, কংগ্রেস ভারতের সেনাবাহিনীকে বিশ্বাস করে না। তারা ভারতের আইনে বিশ্বাস রাখে না। কংগ্রেস, মমতা দিদি একই মুদ্রার এপিঠ আর ওপিঠ।

মোদি এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ‘স্পিডব্রেকার’ বলে তকমা দেন। তাঁর দাবি, অন্যান্য রাজ্য যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, সেইভাবে বাংলা এগোতে পারছে না। কারণ পশ্চিমবঙ্গে ‘স্পিডব্রেকার’ হিসেবে দাঁড়িয়ে রয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিন সভামঞ্চ থেকে মোদি অভিযোগ তোলেন, যে সমস্ত কেন্দ্রীয় প্রকল্পে পশ্চিমবঙ্গের সুবিধা হতো সেইসব প্রকল্প সমস্তটাই মমতা বন্ধ করে দিয়েছেন। মোদির দাবি, যে ৭০ লাখ কৃষককে উপকৃত করার জন্য কেন্দ্রের যে স্কিম আছে রাজ্যে তা থমকে দিয়েছেন মমতা। পাশাপাশি রাজ্যে আয়ুষ্মান ভারতের স্কিম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আটকে দেওয়ায় পশ্চিমবঙ্গের ক্ষতি হয়েছে বলেও দাবি করেন মোদি।

মমতা সরকারের বিধায়ক ও মন্ত্রীদের আক্রমণ করে মোদি বলেন, মমতা সরকারের বিধায়ক থেকে মন্ত্রীরা চিটফান্ড কাণ্ডে জড়িত। তারা মানুষের টাকা লুট করেছেন।

মোদি এদিন পশ্চিমবঙ্গ থেকে বিজেপি প্রার্থীদের জয়ী করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, প্রার্থী যেই হোন না কেন, আপনারা আমাকে ভোট দিন।        

Advertisement