Beta

‘ডিম বয়’ বলল, মুসলমানরা সন্ত্রাসী নয়

১৭ মার্চ ২০১৯, ১৬:২৪

অনলাইন ডেস্ক
অস্ট্রেলিয়ান সিনেটর ফ্রেজার অ্যানিংয়ের মাথায় ডিম ভাঙার পর নিরাপত্তাকর্মীরা কিশোর কনোলিকে আটক করে। পরে অবশ্য তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। ছবি : সংগৃহীত

মুসলমানদের নিয়ে বিরূপ মন্তব্যকারী অস্ট্রেলিয়ান সিনেটর ফ্রেজার অ্যানিংয়ের মাথায় ডিম ভাঙা সেই কিশোরের পরিচয় মিলেছে। ১৭ বছর বয়সি ওই কিশোরের নাম উইল কনোলি। কিশোরটি অস্ট্রেলিয়ার বাসিন্দা।

ঘটনার পর টুইটারে কনোলি লিখেছে, ‘মুসলমানরা সন্ত্রাসী নয়। সন্ত্রাসবাদের কোনো ধর্ম নেই।’

গতকাল শনিবার এক অনুষ্ঠানে অস্ট্রেলিয়ার সিনেটর ফ্রেজার অ্যানিংয়ের মাথায় ডিম ভাঙে ওই কিশোর। শুধু তাই নয় বিষয়টি নিজের মোবাইলে ভিডিও করে কনোলি। তবে ফ্রেজার নিজেই ওই কিশোরকে মারধর করেন।

ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার পর মুসলমানদের নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেন সিনেটর ফ্রেজার অ্যানিং। টুইট বার্তায় ওই সিনেটর বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের রাস্তায় ওই ঘটনার প্রকৃত কারণ হচ্ছে অভিবাসন কর্মসূচি, যা উগ্র মুসলিমদের নিউজিল্যান্ডে থাকার অনুমোদন দিচ্ছে।’

এর পরই বেশ তোপের মুখে পড়েন ফ্রেজার অ্যানিং। এরই প্রতিবাদে গতকাল শনিবার ওই কাণ্ডটি ঘটায় কিশোর উইল কনোলি। তাকে পুলিশ আটক করে পরে ছেড়ে দেয়। তবে সামাজিক মাধ্যমে এরই মধ্যে ওই কিশোরকে নিয়ে রীতিমত হৈ চৈ শুরু হয়ে গেছে।

নিজের টুইটারে কনোলি ওই ঘটনা নিয়ে মন্তব্য করেছে। কনোলি লিখেছে, ‘ওই মুহূর্তে মানুষ হিসেবে আমি গর্বিত। আপনাদের বলতে চাই, মুসলমানরা সন্ত্রাসী নয় এবং সন্ত্রাসবাদের কোনো ধর্ম নেই। যারা মুসলমানদের সন্ত্রাসী সম্প্রদায় মনে করে, তাদের মাথা অ্যানিংয়ের মতোই শূন্য।’   

এদিকে সিনেটর ফ্রেজার অ্যানিংয়ের সমালোচনা করেছেন খোদ অস্ট্রেলিয়ান প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন।  

গত শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুইটি মসজিদে গুলি করে নির্বিচারে মানুষ হত্যা করে এক সন্ত্রাসী। ওই ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৫০ জন নিহত হয়েছে। ব্রেন্টন ট্যারেন্ট নামে ওই সন্ত্রাসীকে আটক করা হয়েছে। ট্যারেন্ট অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক।

সেখানকার আল নূর মসজিদেই জুমার নামাজ পড়ার জন্য রওনা দেন বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা। পাঁচ মিনিট দেরি করায় ভয়াবহ ঘটনা থেকে বেঁচে যান তাঁরা। পরে দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে হোটেলে ফিরে যান ক্রিকেটাররা।

Advertisement