Beta

কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানের ‘সংবরণ নীতি’র প্রশংসায় চীন

০৭ মার্চ ২০১৯, ১৯:৩৫

রয়টার্স
গত বছরের ৩ নভেম্বর চীন সফরকালে বেইজিংয়ের গ্রেট হলে চীনা প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াঙয়ের (ছবিতে নেই) সঙ্গে বৈঠকরত পাকিস্তানি প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান (মাঝে)। ছবি : রয়টার্স

কাশ্মীর ইস্যুতে ভারতের সঙ্গে পাকিস্তান আলোচনার আগ্রহ প্রকাশ করায় এবং ‘সংবরণ নীতি’র অনুসরণ করায় পাকিস্তানের প্রশংসা করেছে চীন। গত মাসে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে আত্মঘাতী বোমা হামলার পর থেকে দুটি প্রতিবেশী দেশের মধ্যে উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

চীনের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কং জুয়ানিউ বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে এমন প্রশংসা করে বলেন, যেকোনো পরিস্থিতিতে বেইজিং ও ইসলামাবাদ একে অপরের কৌশলগত অংশীদার এবং সহযোগিতা করে আসছে। আগের দিন বুধবার পাকিস্তান সফরে যান চীনের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

বিবৃতিতে চীনা পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, ‘চীন পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যেকার চলমান সংকট গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে এবং শুরু থেকেই আলোচনার মাধ্যমে ভারতের সঙ্গে উত্তপ্ত অবস্থা কাটাতে উদ্যোগ নেওয়ায় পাকিস্তানকে সাধুবাদ জানাচ্ছে চীন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, চীন প্রত্যেকটি দেশের ভূখণ্ডের সার্বভৌমত্বকে শ্রদ্ধার দৃষ্টিতে দেখে চীন। আমরা চাই না, এ ক্ষেত্রে কোনো দেশ আন্তর্জাতিক সম্পর্কের নিয়ম ভঙ্গ করুক। চীন সব সময় আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা এবং শান্তির পক্ষে।

চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওই বিবৃতিতে জানানো হয়, পাকিস্তান সফররত চীনা পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কোরেশীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

১৪ ফেব্রুয়ারি আত্মঘাতী হামলায় ৪০ জনের মতো ভারতীয় আধাসামরিক পুলিশ সদস্য নিহত হয়। এ হামলার দায় স্বীকার করে জইশ-ই-মোহাম্মদ। এরপর থেকে পাকিস্তান আন্তর্জাতিক চাপের মুখে রয়েছে। এ ঘটনার পর কাশ্মীরের আকাশপথে মুখোমুখি অবস্থানে চলে যায় পরমাণু অস্ত্রধর দুটি দেশ। হামলা পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটে। গত শুক্রবার পাকিস্তান তাদের হাতে আটক ভারতীয় পাইলটকে মুক্তি দিলে পরিস্থিতি কিছুটা নিম্নগামী হয়।

Advertisement