Beta

বিজেপির দুই জনপ্রতিনিধি একে অপরকে জুতাপেটা করলেন

০৭ মার্চ ২০১৯, ০৯:৩০ | আপডেট: ০৭ মার্চ ২০১৯, ১০:১৪

কলকাতা সংবাদদাতা
ভারতের উত্তরপ্রদেশ রাজ্যে বিজেপির এক জনপ্রতিনিধি অপর এক জনপ্রতিনিধিকে প্রকাশ্যে সভার মধ্যে জুতোপেটা করেন। এই দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়। ছবি : সংগৃহীত

ভারতের উত্তর প্রদেশ রাজ্যে বিজেপির এক জনপ্রতিনিধি অপর এক জনপ্রতিনিধিকে প্রকাশ্যে সভার মধ্যে জুতাপেটা করলেন। সরকারি বৈঠকের মধ্যেই বিজেপির এক বিধায়ক জুতাপেটা করলেন একই দলের এক সংসদ সদস্যকে। এ ঘটনার ভিডিও রীতিমতো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তর প্রদেশ রাজ্যের সন্ত কবির নগরে। জানা গেছে, স্থানীয় বিজেপি সংসদ সদস্য শরদ ত্রিপাঠির সঙ্গে এক প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তরের নাম পরিবর্তন নিয়ে প্রথমে কথাকাটাকাটি শুরু হয় দলীয় বিধায়ক রাকেশ সিং বাঘেলের। প্রথমে দুজনের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় হলেও পরে পা থেকে জুতা খুলে রাকেশকে মারতে থাকেন শরদ ত্রিপাঠি। এর পরেই নিজের চেয়ার থেকে উঠে শারদকে পাল্টা মারতে থাকেন রাকেশ। চলে হাতাহাতি, জুতাপেটা।

জানা যায়, বুধবার সন্ত কবির নগরে  বিজেপির জেলা সমন্বয়ের বৈঠক চলছিল। এলাকার কাজকর্ম নিয়ে এবং বিভিন্ন প্রকল্প রূপায়ণের বিষয়ে চলছিল আলোচনা। যেখানে উপস্থিত ছিলেন বিজেপির একাধিক নেতৃত্ব, সরকারি আমলা এবং পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তারাও। স্থানীয় একটি রাস্তার শিলান্যাসে কেন তাঁর নাম রাখা হয়নি, তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন সংসদ সদস্য শরদ ত্রিপাঠি।

জবাবে বিধায়ক রাকেশ বাঘেল জানান, তাঁর নির্দেশেই ভিত্তিপ্রস্তরে সংসদ সদস্যের নাম রাখা হয়নি। এর পরেই ক্ষেপে যান সংসদ সদস্য শরদ ত্রিপাঠি। উত্তপ্ত কথাবিনিময় শুরু হয় দুজনের মধ্যে। সংসদ সদস্যকে জুতা দিয়ে মারার হুমকি দেন রাকেশ বাঘেল। সঙ্গে সঙ্গে পাল্টা হিসেবে রাকেশকে পেটাতে শুরু করেন সংসদ সদস্য শরদ ত্রিপাঠি।

মার খাওয়ার পর রাকেশ সিং বাঘেলও জুতা খুলে উত্তমমধ্যম দেন সংসদ সদস্য শরদ ত্রিপাঠিকে। দুই জনপ্রতিনিধির ওই আচরণে হতভম্ব হয়ে যান বৈঠকের অন্যরাও। অগত্যা মধ্যস্থতায় নামেন পুলিশ কর্তারা। কিন্তু ততক্ষণে গোটা ঘটনা সাংবাদিকদের ক্যামেরাবন্দি হয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়ে।

৪৭ বছর বয়সী শরদ ত্রিপাঠি সন্ত কবির নগরের নির্বাচিত বিজেপির সংসদ সদস্য। অন্যদিকে, ৫২ বছর বয়সী রাকেশ সিং বাঘেলা স্থানীয় বিজেপির বিধায়ক এবং উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের তৈরি হিন্দু যুব বাহিনীর সদস্য। তবে এই ঘটনা নিয়ে বিজেপির শীর্ষ কর্তারা কেউই আপাতত মুখ খোলেননি।

Advertisement