ঘূর্ণিঝড়ের পর জাপানে শক্তিশালী ভূমিকম্প, নিহত ২

০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৩:০৫

ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে ক্ষতবিক্ষত পরিস্থিতির মধ্যেই জাপানের হোক্কাইডো প্রদেশে শক্তিশালী ভূমিকম্প হয়েছে। ৬ দশমিক ৭ মাত্রার এই ভূমিকম্পে দুজন নিহতের তথ্য দিয়েছে সরকারি কর্তৃপক্ষ। কমপক্ষে ৩২ জন নিখোঁজ রয়েছেন। ভূমিকম্পের ফলে সৃষ্ট ভূমিধসে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বহু ঘরবাড়ি।

আজ বৃহস্পতিবার ভোররাতের ভূমিকম্পে উত্তরাঞ্চলীয় দ্বীপ হোক্কাইডোর প্রায় ৩০ লাখ ঘরবাড়ি বিদ্যুৎবিহীন হয়ে পড়েছে। বাতিল হয়েছে বেশ কিছু বিমানের ফ্লাইট ও ট্রেনযাত্রা।

রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন এনএইচকে টিভির বরাতে বার্তা সংস্থা থমসন রয়টার্স জানায়, রাত ৩টা ২ মিনিটে হওয়া এই ভূমিকম্পে ব্যাপক ভূমিধস হয়েছে। ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে হোক্কাইডোর  কয়েকটি শহরের বহু এলাকা।

ভূমিকম্পটির উৎপত্তিস্থল হোক্কাইডোর রাজধানী শহর সাপ্পোরোর ৬৮ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ভৌগোলিক জরিপ সংস্থা।

জাপানের হোক্কাইডো প্রদেশে বৃহস্পতিবার সকালে শক্তিশালী ভূমিকম্পের ফলে সৃষ্ট ভূমিধসে ভেঙে পড়া বাড়ি। ছবি : জিজি প্রেস

তবে ভূপৃষ্ঠের ৩৭ কিলোমিটার নিচে ঘটে যাওয়া এ ভূমিকম্পে সুনামির আশঙ্কা নেই বলে জাপানের আবহাওয়া কার্যালয় জানিয়েছে।

সরকারের মুখ্য সচিব ইয়োশিহিদি সুগা জানান, হোক্কাইডো প্রদেশের তমারি পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রটির কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হলেও বিকল্প ব্যবস্থায় তা চালু করা গেছে।

দেশটির প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে ভোর ৬টার আগেই অফিসে পৌঁছান এবং সাংবাদিকদের বলেন, ‘উদ্ধারকাজ ত্বরান্বিত করতে একটি নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র চালু করা হয়েছে। ২৫ হাজার সদস্যকে উদ্ধারকাজে অংশ নিতে পাঠানো হয়েছে। আমার সরকারের প্রধান কাজ হচ্ছে দেশের মানুষের জীবন রক্ষা করা। সাপ্পোরোর বেশ কয়েকটি শহরে জরুরি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে।

স্থানীয় সরকারের কর্মকর্তারা বলছেন, হতাহত লোকজনের সঠিক সংখ্যা ও ক্ষয়ক্ষতির মাত্রা নির্ধারণ করতে আরো সময়ের প্রয়োজন।