Beta

ঈদুল আজহার দিন ফের উত্তপ্ত জম্মু-কাশ্মীর

২২ আগস্ট ২০১৮, ১৫:৩০

কলকাতা সংবাদদাতা
ছবি : সংগৃহীত

ঈদুল আজহার দিন ভারতের জম্মু-কাশ্মীর ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠল। কাশ্মীরের মাটিতে উড়ল পাকিস্তান এবং জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) পতাকা। শ্রীনগরের রাস্তায় সংঘর্ষ বাধে ভারতীয় সেনাবাহিনী এবং বিচ্ছিন্নতাবাদীদের মধ্যে।

এদিন সকালে ঈদুল আজহা উপলক্ষে স্থানীয় মসজিদে নামাজ শেষ করার পরেই বিচ্ছিন্নতাবাদীরা রাস্তায় নেমে পড়েন। শুরু হয় ভারতবিরোধী স্লোগান।

জানা যায়, হাতে পাকিস্তানের ও ইসলামিক স্টেটের পতাকা নিয়ে ভারতীয় জওয়ানদের ওপর পাথর নিক্ষেপ করতে শুরু করে তারা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশের একটি গাড়ি ঘটনাস্থলে পৌঁছালে সেই গাড়িতেও হামলা চালায় বিক্ষোভকারীরা। শ্রীনগর ছাড়াও জম্মু-কাশ্মীরের অনন্তনাগে নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর হামলা হয় বলে জানা গেছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে কাঁদানে গ্যাস ছুড়তে হয় নিরাপত্তা বাহিনীকে।

অন্যদিকে, এদিন সকালেই কাশ্মীরের সোপিয়ান জেলার ঝাঝরিপোরা গ্রামে ঈদগাহের বাইরে ফায়াজ আহমেদ নামের এক পুলিশ অফিসারকে খুন করে জঙ্গিরা। নামাজের পর জঙ্গিরা এলোপাতাড়ি গুলি চালাতে শুরু করলে মৃত্যু হয় ওই পুলিশ কর্মীর।

এ ছাড়া কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলায় ঈদের আগের দিন রাতে এক বিজেপি নেতা সাবির আমেদ খানকে গুলি করে খুন করে জঙ্গিরা। জানা যায়, জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলায় নিজের বাড়ির কাছেই গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান তিনি। ২৬ বছর বয়সী এই বিজেপি নেতা ঈদ উপলক্ষে পুল ওয়ামায় নিজের বাড়িতে ফিরছিলেন। শ্রীনগরে কর্মসূত্রে ভাড়া থাকতেন তিনি। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শ্রীনগর থেকে বাড়ি ফেরার সময় বাড়ির কাছেই জঙ্গিরা গুলি করে খুন করে তাঁকে। সব মিলিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে উপত্যকায় মোতায়েন করা হয়েছে বিশাল পুলিশ বাহিনী।

এদিকে, ভারতজুড়ে আজ উদযাপিত হচ্ছে মুসলিম সম্প্রদায়ের ঈদুল আজহা। ভারতের বিভিন্ন স্থানে এদিন সকাল থেকে যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় ঈদ উৎসব শুরু হয়। সারা দেশের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গেও চলছে ঈদুল আজহা উদযাপন।

এদিন সকাল থেকেই কলকাতার নাখোদা মসজিদ, টিপু সুলতান মসজিদ, পার্ক সার্কাস ময়দানসহ বিভিন্ন মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। তবে কলকাতায় সবচেয়ে বড় নামাজের জামাত রেড রোডে। সকাল ৯টায় কলকাতার রেড রোডে শুরু হয় ঈদের নামাজ। হাজার হাজার মুসল্লি এদিন ঈদের নামাজ আদায় করেন। নামাজের শেষে মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ একে অপরের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। মুসলিম সম্প্রদায়ের কাছে দিনটি ত্যাগের। এদিন সকালে মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ যে যার সাধ্যমতো পশু কোরবানি দেন এবং তারপর গরিব-দুঃখীদের দানের মধ্য দিয়ে দিনটি উদযাপন করেন।

ঈদুল আজহা উপলক্ষে দেশবাসীকে এদিন শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement