Beta

১৭ ফিলিস্তিনিকে হত্যা করায় নেতানিয়াহুর প্রশংসা

০১ এপ্রিল ২০১৮, ১২:৫২ | আপডেট: ০১ এপ্রিল ২০১৮, ১৩:৫৫

অনলাইন ডেস্ক
ইসরায়েল-গাজা সীমান্তে শুক্রবার বিক্ষোভের সময় ইসরায়েলি সেনার হামলায় দেড় হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি আহত হয়েছে। ছবি : রয়টার্স

সীমান্তে বিক্ষোভের সময় ফিলিস্তিনের ১৭ নাগরিককে হত্যার ঘটনায় ইসরায়েলি দেশটির সেনাসদস্যদের প্রশংসা করেছেন প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু।

স্থানীয় সময় শনিবার এক বিবৃতিতে নেতানিয়াহু এ প্রশংসা করেন।

সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা জানায়, দেশের সীমান্ত রক্ষা করা এবং ইসরায়েলি নাগরিকদের শান্তিপূর্ণ উৎসব পালনে সহযোগিতা করায় ইসরায়েলি সেনাদের ধন্যবাদ দেন নেতানিয়াহু। তিনি বলেন, ‘আমাদের সেনারা খুব ভালো করেছে।’

এদিকে সীমান্তবর্তী গাজা উপত্যকায় এ হামলার ঘটনায়  নিন্দার ঝড় বইছে ফিলিস্তিনি বিক্ষোভকারীদের মধ্যে। বেশ কয়েকটি দেশ ও মানবাধিকার সংস্থা এ হামলার নিন্দা জানিয়েছে।

ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়, পূর্ব গাজা সীমান্ত থেকে সরিয়ে দিতে বিক্ষোভকারীদের ওপর ইসরায়েলি সেনারা সরাসরি গুলি, রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে। এতে  দেড় হাজারের বেশি বিক্ষভকারী আহত হয়েছে।

ইসরায়েলের সেনাবাহিনী জানিয়েছে, বিক্ষোভকারীরা নিরাপত্তাবেষ্টনী ও সেনাদের লক্ষ্য করে পাথর ছুড়ছিল। এ জন্য উসকানিদাতের ছত্রভঙ্গ করতে গুলি করা হয়েছে।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, ফিলিস্তিনিরা প্রতিবছর ৩০ মার্চকে ‘ভূমি দিবস’ হিসেবে পালন করে থাকে। ১৯৭৬ সালের এই দিনে ফিলিস্তিনিরা যখন তাদের জমি দখলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাচ্ছিল, তখন ইসরায়েলি সৈন্যদের গুলিতে ছয়জন নিহত হয়।

১৯৪৮ সালের এই দিনে লাখ লাখ ফিলিস্তিনি তাদের বাড়িঘর ফেলে শরণার্থী শিবিরে বা অন্য স্থানে চলে আসতে বাধ্য হয়েছিল। কারণ, ইসরায়েল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পর তাদের বাড়িঘর দখল হয়ে যায়, তারা বিতাড়িত হয়।

দিবসটি স্মরণে এবারও ছয় সপ্তাহব্যাপী বিক্ষোভের ডাক দেওয়া হয়। এবারের বিক্ষোভের মূল স্লোগান ছিল ‘গ্রেপ মার্চ টু রিটার্ন’ বা ‘নিজের ভূমিতে ফিরে যাওয়ার মিছিল’। এর অংশ হিসেবেই গতকাল মিছিল নিয়ে ফিলিস্তিনিরা ইসরায়েল সীমান্তের দিকে যাচ্ছিল। মিছিলে হাজার হাজার ফিলিস্তিনি অংশ নেয়। ছয় সপ্তাহব্যাপী এই বিক্ষোভ শেষ হবে আগামী ১৫ মে।

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement