Beta

আর্জেন্টিনার নিখোঁজ সাবমেরিন থেকে সংকেত মিলেছে

১৯ নভেম্বর ২০১৭, ১০:১৩

অনলাইন ডেস্ক
দক্ষিণ আটলান্টিক মহাসাগরে গত বুধবার এআরএ স্যান হুয়ান নামের আর্জেন্টিনার একটি সাবমেরিন নিখোঁজ হয়। ছবি : রয়টার্স

দক্ষিণ আটলান্টিক মহাসাগরে নিখোঁজের তিন দিন পর আর্জেন্টিনার সাবমেরিন এআরএ স্যান হুয়ান থেকে সংকেত পাওয়া গেছে। সংকেতের সূত্র ধরে সাবমেরিনটির অবস্থান নির্ণয় করার চেষ্টা চলছে।  

স্থানীয় সময় শনিবার সাবমেরিনটি থেকে সাতবার স্যাটেলাইট ফোনের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয়। ওই ফোনকলগুলোর সিগন্যালকে সূত্র ধরেই সামনে এগোচ্ছেন উদ্ধারকর্মীরা। 

বিবিসির খবরে বলা হয়, গত বুধবার সকালে সাবমেরিনটির সঙ্গে সব ধরনের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। আর্জেন্টিনার পাতাগোনিয়া উপকূল থেকে ৪৩২ কিলোমিটার দূরে দক্ষিণ আর্জেন্টিনা সাগরে অবস্থানকালে সাবমেরিনটির সঙ্গে শেষবারের মতো যোগাযোগ হয় দেশটির নৌবাহিনীর। নৌযানটিতে ৪৪ জন নাবিক ছিল বলে জানা গেছে।

এদিকে নিখোঁজের দুদিন পর শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে জরুরি ভিত্তিতে সাবমেরিনটি উদ্ধারে কাজ শুরু হয়। পাশাপাশি উদ্ধারকাজে অংশ নিতে প্রস্তুত রয়েছে ব্রাজিল, উরুগুয়ে, পেরু, চিলি, ব্রিটেন ও সাউথ আফ্রিকা। সর্বশেষ সাবমেরিনটির খোঁজে অংশ নেয় যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার একটি বিমান।

আর্জেন্টিনার নৌবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এআরএ স্যান হুয়ান সাবমেরিনটি উশুয়াইয়া এন রুট থেকে বুয়েন্স আয়ারস প্রদেশের মার দেল প্লাতা শহরে যাচ্ছিল। পথেই নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সঙ্গে সেটির যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়। বৈদ্যুতিক সমস্যার কারণে এটা হতে পারে হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নৌবাহিনীর মুখপাত্র বালবি জানান, কোনো কারণে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হলে সাবমেরিনকে সাধারণত পানির ওপরে ভাসিয়ে রাখা হয়। তাই আশা করা যাচ্ছে, সেটি পানির ওপরেই পাওয়া যাবে।

এআরএ স্যান হুয়ান নামের ওই সাবমেরিন জার্মানিতে নির্মিত। ডিজেল ও বিদ্যুৎ চালিত যুদ্ধযানটি ১৯৮৩ সালে যাত্রা শুরু করে। সে সময় স্যান হুয়ানই ছিল সর্বাধুনিক সাবমেরিন।

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement