Beta

গৌতম গম্ভীর একটা অশিক্ষিত ও বেকুব : আফ্রিদি

২৫ মে ২০১৯, ২২:৩১ | আপডেট: ২৫ মে ২০১৯, ২২:৩৭

অনলাইন ডেস্ক
খেলার মাঠে গৌতম গম্ভীর ও শহিদ আফ্রিদি। পুরোনো ছবি

বেজে উঠেছে ক্রিকেট বিশ্বকাপের দামামা। এরই মধ্যে দলগুলো তাদের প্রস্তুতি ম্যাচও খেলা শুরু করে দিয়েছে। উত্তেজনাপূর্ণ আসরে ব্যাটে-বলে কসরত দেখাতে প্রস্তুত বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া সেরা ১০ দল। আর ঠিক সেই মুহূর্তে বারা ভাতে ছাই দিতে এলেন ভারতের সাবেক ক্রিকেটার গৌতম গম্ভীর।

গম্ভীরকে উগ্রজাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী খেলোয়াড় বলে মনে করেন অনেক ক্রিকেট ভক্ত। তাই যেন তিনি আবার হাতে কলমে প্রমাণ দিলেন।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় সন্ত্রাসী হামলার জেরে বিশ্বকাপে পাকিস্তানকে বয়কট করার আহ্বান জানিয়েছিলেন গম্ভীর। সর্বশেষ ভারতের লোকসভা নির্বাচনে জেতার পরও একই মন্তব্য করেন তিনি।

সম্প্রতি গম্ভীর বলেন, ভারত ও পাকিস্তান বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠলেও পাকিস্তানের সঙ্গে খেলা পরিহার করা উচিত ভারতের।

অন্যদিকে মাঠের বাইরে বাকযুদ্ধে গম্ভীরকে মোকাবিলা করতে যেন প্রস্তুতই থাকেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার শহিদ আফ্রিদি।

সম্প্রতি পাকিস্তানের স্থানীয় এক টেলিভিশন চ্যানেলে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে আফ্রিদি বলেছেন, ‘আপনার কি মনে হয়, গম্ভীর কথা বলার সময় নিজের বুদ্ধির প্রয়োগ করে? ও একজন বেকুব! কোনো শিক্ষিত মানুষ কি এভাবে কথা বলে?’

এটুকু বলেই থামেননি আফ্রিদি। বরং গম্ভীরকে নির্বাচিত করায় ভারতীয়দেরও একহাত নিয়ে বলেন, ‘ভারতীয়রা এমন এক লোককে ভোট দিয়েছে, যার কোনো বুদ্ধিই নেই।’

এর আগেও দুজনে বাকযুদ্ধে জড়িয়েছিলেন। কথার এই লড়াইটা শুরু করেন মূলত আফ্রিদিই। সম্প্রতি প্রকাশিত হওয়া পাকিস্তানি অলরাউন্ডারের আত্মজীবনী ‘গেম চেঞ্জার’ বইয়ে ভারতীয় ওপেনার গৌতম গম্ভীরকে নিয়ে বেশ আপত্তিজনক কথা লিখেছেন। যা প্রকাশিত হওয়ার পরই গম্ভীর টুইট করে আফ্রিদিকে এক প্রকার মানসিক রোগীই আখ্যা দেন।

আত্মজীবনীতে গম্ভীরকে ব্যক্তিগত শত্রু হিসেবে তুলে ধরে ব্যক্তিত্বহীন আখ্যায়িত করেন আফ্রিদি। লিখেন, ‘কিছু শত্রু থাকে ব্যক্তিগত, আর কিছু পেশাগত। প্রথমটি গম্ভীরকেই বলা যায়। তাঁর আচরণে বেশ সমস্যা আছে। তাঁর কোনো ব্যক্তিত্ব নেই। ক্রিকেটের মতো দুর্দান্ত বিষয়ে তিনি এক অদ্ভুত চরিত্র। যার কোনো বিরাট রেকর্ড নেই কিন্তু প্রচণ্ড ঔদ্ধত্য আছে।’

‘ডন ব্রাডম্যান ও জেমস বন্ডের মিশ্রিত আচরণ তাঁর (গম্ভীরের)। করাচিতে আমরা তাঁর মতো লোককে কৃপণ বলি। এটা সত্যি আমি হাসিখুশি ও ইতিবাচক লোক পছন্দ করি। তিনি আক্রমণাত্মক বা প্রতিদ্বন্দ্বী কিনা সেটা ব্যাপার নয়। কিন্তু তাঁকে অবশ্যই ইতিবাচক হতে হবে যা, অবশ্যই গম্ভীর নন।’

Advertisement