Beta

‘চালবাজ’ নিয়ে চালবাজিতে বিরক্ত দর্শক

২৮ এপ্রিল ২০১৮, ১৪:৫৭

বাংলাদেশে সাফটা চুক্তির মাধ্যমে মুক্তি পেয়েছে কলকাতার চলচ্চিত্র ‘চালবাজ’। ছবির মূল ভূমিকায় অভিনয় করেছেন শাকিব খান। তাঁর বিপরীতে অভিনয় করেছেন কলকাতার নায়িকা শুভশ্রী।

ছবিটি গতকাল শুক্রবার মুক্তি পেয়েছে ১০৫টি হলে। এর আগে ২০ এপ্রিল শুক্রবার ছবিটি মুক্তি পেয়েছিল কলকাতায় ৯১টি হলে।

দেশের সিনেমা হলে সাধারণ তো চারটি শো চালানো হয়। সকাল ১১টা থেকে একটি, ২টা থেকে আরেকটি, সন্ধ্যা ৬টা ও রাত ৯টায় শো দেখানো হয়।

গতকাল সকাল ১১টার শো এর আগে ঢাকার সিনেমা হলগুলোতে টিকেট কাউন্টার খোলা ছিল এবং দর্শক নিজের হাতে টিকেট কেটে ছবিটি দেখেছেন। কিন্তু বেলা ২টার শোর আগে সিনেমা হলে টিকেট কাউন্টার বন্ধ করে দেওয়া হয়। ব্ল্যাকে শুরু হয় টিকেট বিক্রি। এমন খবর এনটিভি অনলাইনকে জানিয়েছেন ‘জোনাকি’ সিনেমা হলের স্টাফ  মোহাম্মদ শাহাবুদ্দিন।

‘জোনাকি’ সিনেমা হলের সামনে ছিল দর্শকদের উপচেপড়া  ভিড়। ভেতরে গিয়ে দেখা যায় টিকেট কাউন্টার বন্ধ।

মোহাম্মদ শাহাবুদ্দিন ২০০ টাকা করে বিক্রি করেছেন ডিসির টিকেট। কাউন্টারে  লেখা ছিল ডিসির টিকিট ৯০ টাকা। এ বিষয়ে শাহাবুদ্দিন বলেন, ‘সকাল ১১টার শো শেষ হওয়ার পর আমরা বুঝতে পেয়েছি ছবিটি দর্শক দেখবেন। তারপর দুপুর ১টা থেকে দর্শক হলে আসা শুরু হলে আমরা যারা সিনেমা হলের স্টাফ আছি তারা মিলে সব টিকেট কিনে নিই। তারপর ব্ল্যাকে  টিকেট বিক্রি করেছি।’

শাহাবুদ্দিন আরো বলেন, ‘ডিসি ৯০ টাকা ছিল, আমরা বিক্রি করেছি ১৫০ টাকায়। আর সন্ধ্যার শোতে বিক্রি করেছি ২০০ টাকা। মনে হয় আগামী কয়েকদিন এভাবেই চলবে।’

এদিকে, বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন সিনেমা দেখতে  আসা দর্শক সামসুল আলম।

এনটিভি অনলাইনকে আলম বলেন, “আমরা ভালো সিনেমা দেখতে চাই। কিন্তু দেখার মতো সিনেমা এখন আর তেমন নির্মাণ করা হয় না। ‘চালবাজ’ কেমন হবে জানি না, কিন্তু মনে হয়েছে ভালো একটা ছবি। সে হিসেবে আমার মতো অনেক দর্শকই সিনেমা হলে এসেছে। কিন্তু ৯০ টাকার টিকেট ২০০ টাকায় কিনতে খারাপ লাগছে। এটা অন্যায়। সিনেমা হলের কর্তৃপক্ষের চালবাজি নিয়ে আমার খুব বিরক্ত।”

সামসুল আলমের মতো সমস্বরে তখন অনেক সাধারণ দর্শক প্রতিবাদ করতে থাকেন। টিকেট প্রায় শেষ শুনে পরিবেশ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়।

শুধু রাজধানীর পল্টনের ‘জোনাকি’ সিনেমা হলে নয়, ঢাকার অন্য হলগুলোতেও  একই চিত্র দেখা যায়। মতিঝিলের মধুমিতা সিনেমা হলে গেটের পাশের স্থানে একাধিক লোক  ব্ল্যাকে টিকেট বিক্রি  করেছেন। কাউন্টার বন্ধ ছিল। ১৫০ টাকার টিকিটি বিক্রি হয়েছিল ৩০০ টাকায়।

মধুমিতা হলের টিকিট চেকার মোহাম্মদ কালাম বলেন, ‘অনেক দিন পর এভাবে  টিকিট  ব্ল্যাকে বিক্রি করার সুযোগ পেলাম। গত বছর দুই ঈদের পর আর  টিকিট  ব্ল্যাক করার সুযোগ পাইনি। এই ছবির জন্য পারলাম।’

এটা তো অপরাধমূলক কাজ। কেন এমন করা হচ্ছে জানতে চাইলে মোহাম্মদ কালাম  বলেন, ‘আমরা প্রায় ৩২ জন স্টাফ আছি এই সিনেমা হলে। সারা বছর বেতন পাই না বললেই চলে। তার পরও চাকরি করি দুই ঈদে টিকিট ব্ল্যাক করার আশায়। দুই ঈদের টাকায় আমরা সারা বছর সংসার চালাই। এখন শাকিব খানের ছবি মুক্তি পাওয়ার পর এত দর্শক দেখে একটা সুযোগ নিলাম।’

চলতি বছরে আর কোনো সিনেমায় এ  ধরনের কাজ করেছেন কি না, জানতে চাইলে কালাম বলেন, “‘আমি নেতা হবো’ সিনেমা হলে মুক্তি পাওয়ার পর প্রথম দিন একশোতে ব্ল্যাক করতে পেরেছিলাম। এ ছাড়া যে ছবিগুলো মুক্তি পেয়েছিল সেখানে দর্শকই তো তেমন আসেনি।’

ব্ল্যাক  টিকেট প্রসঙ্গে মিরপুরের সনি সিনেমা হলের ম্যানেজার আব্দুস সামাদ বলেন, ‘ব্ল্যাক মানেই ছবি হিট। আমরাই নতুন ছবি ব্ল্যাক  করেছি তা নয়, বহু আগে থেকেই ব্ল্যাক টিকেট সবাই বিক্রি করত। এভাবে কিছুদিন চলতে থাকলে আমরা কিছু আয় করতে পারব।’

দীর্ঘদিন ধরেই সাফটা চুক্তির মাধ্যমে কলকাতার ছবি বাংলাদেশে মুক্তি পাচ্ছে, কিন্তু কোনো ছবি ব্যবসায়িকভাবে সফল হতে পারেনি। তবে ‘চালবাজ’ মুক্তির তারিখ ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই সিনেমা হল মালিকদের বুকিং শুরু হয়ে যায়। জানা যায়, ছবিটি সর্বোচ্চ টাকা দিয়ে সিনেমা হল মালিকরা নিয়ে গেছেন, যা চলতি বছরে বাংলাদেশের কোনো ছবি পায়নি। সিনেমাটি দর্শক প্রিয়তা পাওয়ায় তাঁরাও সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন।

বাংলাদেশের প্রযোজক গোলাম কিবরিয়া লিপু তাঁর এন ইউ ট্রেডার্সের মাধ্যমে ছবিটি বাংলাদেশে আমদানি করেছেন।

জয়দীপ মুখার্জি পরিচালিত এই ছবিতে শাকিব ও শুভশ্রী ছাড়াও অভিনয় করেছেন রজতভ দত্ত, সুপ্রিয় দত্ত, সৈয়দ হাসান ইমাম, আশীষ বিদ্যার্থী। ছবিটি প্রযোজনা করেছে কলকাতার এস কে মুভিজ।

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement