রাজশাহী বোর্ডের চেয়ারম্যান ওএসডি

২৮ জুন ২০১৯, ১১:৫৬

রাজশাহীর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদের প্রেষণ প্রত্যাহার করে তাঁকে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) করা হয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ থেকে জারি করা দুটি পৃথক প্রজ্ঞাপনে ওই নির্দেশ দেওয়া হয়। শিক্ষা বোর্ডের নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে রাজশাহী সরকারি মহিলা কলেজের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহা. মোকবুল হোসেনকে নিয়োগ দেওয়ার কথাও জানানো হয় প্রজ্ঞাপনে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ‘অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ ৩০ জুনের মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) পদে অবমুক্ত হবেন। অন্যথায় একই তারিখ অপরাহ্ণে তাৎক্ষণিকভাবে অবমুক্ত বলে গণ্য হবেন।’ 

এতে আরো বলা হয়, রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সরকারি কলেজ-২ শাখার উপসচিব ড. শ্রীকান্ত কুমার চন্দ স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বিসিএস (সাধারণ শিক্ষা) ক্যাডারের অধ্যাপক ড. মোহা. মোকবুল হোসেনকে (আইডি-৪৩৫৪) পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত নিজ বেতন ও বেতনক্রমে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, রাজশাহীর নতুন চেয়ারম্যান নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান পদ থেকে অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদকে প্রত্যাহার করায় ‘জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদ’ সরকারকে অভিনন্দন জানিয়েছে। তিনি সাড়ে চার বছর ধরে রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডে কর্মরত ছিলেন। প্রথমে সচিব পদে এবং পরে চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। এ সময়ে অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদের বিরুদ্ধে সাড়ে চার কোটি টাকার অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। সেটি এখন তদন্ত করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দুর্নীতির অভিযোগ এনে বিভিন্ন সময়ে অধ্যাপক আজাদকে অপসারণের দাবিতে নগরীতে মানববন্ধন ও বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে সামাজিক সংগঠন ‘জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদ’। তাঁকে অপসারণের দাবি জানিয়ে সংগঠনটি বিভিন্ন সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, রাজশাহী সিটি মেয়র, রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনারকে স্মারকলিপিও দিয়েছে।

নতুন চেয়ারম্যান মোহা. মোকবুল হোসেন সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত ও বিগত সময়ে হওয়া বোর্ডের অনিয়ম ও দুর্নীতির তথ্য-উপাত্ত প্রকাশ করে প্রতিষ্ঠানটির সুনাম ফিরিয়ে আনবেন বলে প্রত্যাশা করছেন বোর্ডের কর্মকর্তারা।