‘আমি বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর হতে চাই’

১৯ জুলাই ২০১৮, ২২:৩৭

নিজস্ব সংবাদদাতা
ফল পেয়ে আইডিয়াল কমার্স কলেজের উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থীরা। ছবি : এনটিভি

‘আল্লাহ যদি বাঁচিয়ে রাখেন, আমি বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর হতে চাই। দেশের হয়ে কাজ করতে চাই। ব্যাংক লুট কিংবা সোনা চুরি বন্ধ করতে চাই।’

ফলাফল শোনার পরে উল্লাস করতে করতে কথাগুলো বলছিলেন নবী হোসাইন। এবারের উচ্চ মাধ্যমিক (এইসএসসি) পরীক্ষায় তিনি জিপিএ ৫ পেয়েছেন। নবী হোসাইন আইডিয়াল কমার্স কলেজের শিক্ষার্থী।

নবী হোসাইন বলেন, ‘ভালোই লাগছে। বাবা-মার আশা পূরণ করতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছি। আমি দেশের জন্য কাজ করতে চাই। বাবা-মাকে অনেক ভালো রাখতে চাই।’

আজ বৃহস্পতিবার সারা দেশে একযোগে প্রকাশিত হয়েছে এসএইচসি পরীক্ষার ফল। দুপুরে রাজধানী ফার্মগেটের আইডিয়াল কমার্স কলেজের ক্যাম্পাসে গিয়ে দেখা যায়, উল্লাস মুখর পরিবেশ। ক্যাম্পাসের ভেতরে ছাত্রছাত্রীরা আনন্দে আত্মহারা।

সারা দেশের গড় পাসের হার ভালো না হলেও ৯৭ দশমিক ৪২ শতাংশ পাসের হার নিয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত কলেজের অধ্যক্ষ মো. বিল্লাল হোসেন। ওই কলেজ থেকে ১৫৫ জন পরীক্ষার্থীর অংশ নেন। এর ভেতরে চারজন জিপিএ ৫ পেয়েছে। চারজন অকৃতকার্য হয়েছে।

একই কলেজের মুস্তাসিম হেলাল জিপিএ ৫ পেয়েছেন। তিনি বলেন, ‘খুব ভালো লাগছে। প্রথমত ভালো একটা সাবজেক্ট পেয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে চাই। এরপর ভালো কিছু করতে চাই। আমার কী যে আনন্দ লাগছে, যা বলে বোঝাতে পারব না। মা-বাবার মুখে হাসি দেখতে খুব ভালো লাগবে। এখনি বাসায় যাব। মাকে সালাম করব।’

অকৃতকার্য এক ছাত্র কাঁদছিলেন। বন্ধুর গলা জড়িয়ে ধরে ওই ছাত্র বলেন, ‘আমার তো ফেল করার কথা না রে। এটা হতে পারে না। আমি খাতা কল (পুনরায় নিরীক্ষণ) করব।’

আইডিয়াল কমার্স কলেজের অধ্যক্ষ মো. বিল্লাল হোসেন বলেন, ‘প্রায় ৯৮ ভাগ পাস করেছে আমার কলেজে। খুব ভালো লাগছে। গতবার রেজাল্ট একটু খারাপ হওয়াতে আমি এবার চেয়েছিলাম শতভাগ পাস করাতে। কোনোভাবে হয়তো স্লিপ খেয়ে গেছে চারজন। ওভারঅল আমি খুশি। আমার প্রতিষ্ঠানও খুশি।’

এদিকে তেজগাঁও সরকারি কলেজের মামুন হোসেন নামের এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘একটুর জন্য এ প্লাস পাইনি। খারাপ লাগছে খুব। আর একটু হলেই হয়ে যেত।’

তেজগাঁও কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের এক শিক্ষার্থী অকৃতকার্য হওয়ায় ক্যাম্পাসের ভেতরে দাঁড়িয়ে কাঁদছিলেন। এ সময় তাঁর মা তাঁকে সান্ত্বনা দেন।

তেজগাঁও কলেজের সহকারী অধ্যক্ষ মো. হারুন-অর-রশিদ বলেন, ‘খুব ভালো না পাসের হার। তবে গড় পাসের হার হিসেবে খারাপ না। মোট পাসের হার ৬৩ দশমিক ১২ শতাংশ। মোট পরীক্ষার্থী এক হাজার ৫২ জন। এর ভেতরে ফেল করেছে ৩৮৮ জন। গতবারের মতোই রেজাল্ট হয়েছে।’