‘ব্যাংকিং খাতের সমস্যা দুই মাসের মধ্যে সমাধানযোগ্য’

২৪ জুন ২০১৮, ২২:১৪

আর্থিক খাতে খুব বড় ধরনের সমস্যা বিরাজ করছে না বলে মনে করেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি জানান, ব্যাংকিং খাতের সমস্যা দুই মাসের মধ্যে সমাধানযোগ্য।

আজ রোববার সিপিডি বাজেট সংলাপ শীর্ষক আলোচনাসভায় এসব কথা বলেন পরিকল্পনামন্ত্রী। রাজধানীর একটি হোটেলে ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

 প্রস্তাবিত বাজেটে ব্যাংকিং খাতে কর সুবিধা দেওয়ার মাধ্যমে বিনিয়োগ বাড়ার আশা প্রকাশ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী।   

বিএনপির উদ্দেশে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, ‘আপনারা আপনাদের সময়ের কথা চিন্তা করেন। আপনাদের সময় কত মাস ব্যাংকে গিয়ে টাকা পাওয়া যায়নি,এলসি সেটেলমেন্ট করা যায়নি এবং এলসি খোলা যায়নি। এর অর্থ এই নয় আমাদের সময় অনিয়ম হয় নাই ব্যাংকিং ক্ষেত্রে। ব্যাংকিং ক্ষেত্রে অনিয়ম হয়েছে।’ 

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘ব্যাংকিং ফাইনান্স এই সেক্টরে আমরা ম্যাসিভলি রিফর্ম নিয়ে আসব। এটি কোনো কঠিন কাজ না । আমি আবারও বলব, ব্যাংকিং খাতে যে সমস্ত দুর্ভাবনা; ইটস এ ম্যাটার অব টু মানথস (দুই মাসের ব্যাপার মাত্র)। ইন টু মানথস উই ক্যান গেট ব্যাক টু ওল্ড পজিশন (দুই মাসে আগের জায়গায় ফিরে যাব)।

দেশের অর্থনীতিতে কাঠামোগত অনেক পরিবর্তন এসেছে উল্লেখ করে মুস্তফা কামাল বলেন, ‘বাজেট এলে এখন আর আগের মতো দ্রব্যমূল্য বাড়ে না।’

অনুষ্ঠানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘আপনারা ট্যাক্স কমাচ্ছেন কার? ট্যাক্স কমাচ্ছেন ব্যাংকগুলোর যেগুলো লুট করা হচ্ছে।’

আমীর খসরু আরো বলেন, ‘আপনার ডেভেলপমেন্টের কথা বলছেন, বিনিয়োগের কথা বলছেন কোথ থেকে টাকা দেবে? ব্যাংকগুলো সমানে লুটপাট করে এমন জায়গায় গিয়েছে, ডিপোজিটরের টাকা ফেরত দিতে পারছে না।’  তিনি আরো বলেন, ‘ভোটের কী কোনো প্রয়োজনীয়তা আছে বাংলাদেশে, যে আপনি ভোটারকে অ্যাড্রেস করবেন? পুরা ভোটার তো আমাদের নির্বাচনী প্রক্রিয়ার বাইরে। আর এই প্রক্রিয়ার মধ্যে যারা আছে তাদের জন্য বাজেট।’  

অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক রেহমান সোবহান।