Beta

টিটিটিআইয়ের শিক্ষার্থীরা সনদের পাশাপাশি পেলেন নিয়োগপত্র

২২ জুন ২০১৬, ২৩:০৫

গাজীপুরে টিটিটিআইয়ের প্রশিক্ষণার্থীদের মধ্যে সনদপত্র প্রদান করা হয়। ছবি : এনটিভি

প্রশিক্ষণার্থীদের মধ্যে সনদপত্র ও পুরস্কার বিতরণ করেছে ট্রাস্ট টেকনিক্যাল ট্রেনিং ইনস্টিটিউট (টিটিটিআই)। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পরিচালিত ওই প্রতিষ্ঠানে প্রশিক্ষণ নেওয়া ২০১ জনের হাতে তুলে দেওয়া হয় নিয়োগপত্র।

আজ বুধবার গাজীপুরের শিমুলতলীতে বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরি (বিএমটিএফ) ক্যাম্পাসে টিটিটিআইয়ের কেন্দ্রীয় হলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে জানুয়ারি-জুন ২০১৬ পর্বের প্রশিক্ষণার্থীদের মধ্যে  সনদপত্রসহ অন্যান্য পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অ্যাডজুট্যান্ট জেনারেল ও টিটিটিআইয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মেজর জেনারেল এস এম মতিউর রহমান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সনদপত্র ও পুরস্কার এবং নিয়োগপত্র বিতরণ করেন। অনুষ্ঠানে টিটিটিআইয়ের অধ্যক্ষ লে. কর্নেল (অব) মো. আছয়াদুর রহমান খান এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান আরএফএল গ্রুপের জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক জাবের আল রাহাত খান বক্তব্য দেন।

প্রতিষ্ঠানের ভাইস প্রিন্সিপাল মেজর (অব) শ্যামলেন্দু কবিরাজ, টিটিটিআই, বাংলাদেশ মেশিন টুলস কারখানা ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এসময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে টিটিটিআই পরিচালিত আটটি ট্রেডকোর্সের প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারীকে সনদ ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। এ ছাড়া ইংরেজি ও আরবি ভাষা কোর্সের শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারীদের  মধ্যে সনদ ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানে টিটিটিআই কর্তৃপক্ষ জানান, জানুয়ারি-জুন ২০১৬ পর্বে কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন কোর্সসহ গাড়ি চালনা ও অটোমেকানিকস,ওয়েল্ডিং, রেফ্রিজারেশন ও এয়ার কন্ডিশনিং, রেডিও অ্যান্ড টিভি রিপেয়ারিং, প্লাম্বিং, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড হাউজ ওয়্যারিং, মেশনিং অ্যান্ড রড বাইন্ডিং ট্রেড কোর্সে মোট ৯৬৮ জন ছাত্রছাত্রী কোর্স সমাপ্ত করে। এর মধ্যে ২৮১ জন  সামরিক, ২৫ জন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি), ২৬ জন এমইএস (সেনা), ১০ জন আনসার ভিডিপি এবং ৬২৬ জন বেসামরিক ছাত্রছাত্রী ছিল। বেসামরিক প্রশিক্ষণার্থীদের মধ্যে ২৪০ প্রশিক্ষণার্থী বিশ্বব্যাংক কর্তৃক পরিচালিত স্কিলস অ্যান্ড ট্রেনিং ইনহেন্সম্যান্ট প্রজেক্টের (এসটিইপি) আওতায় বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। চলতি অর্থবছর থেকে প্রতি সেশনে ৩০০ জন গরিব ছেলেমেয়েকে এ প্রজেক্টের আওতাভুক্ত করা হয়েছে।

টিটিটিআই কর্তৃপক্ষ আরো জানান, শুধু প্রশিক্ষণ প্রদানই নয়, প্রশিক্ষণের পর প্রশিক্ষণার্থীদের জন্য বাংলাদেশ সেনাবাহিনীসহ সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মসংস্থানেরও ব্যবস্থা করা হচ্ছে।  টিটিটিআই থেকে প্রশিক্ষণ সম্পন্নকারী  ২০১ জনকে আরএফএল গ্রুপের গাজীপুর ও নরসিংদী কারখানায় চাকরির জন্য নিয়োগ প্রদান করা হয়। বুধবারের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির নিকট তাদের নিয়োগপত্র হস্তান্তর করেন প্রাণ আরএফএল গ্রুপের জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক জাবের আল রাহাত খান। এসময় আরএফএলের ওই কর্মকর্তা ভবিষ্যতে টিটিটিআই থেকে আরো বেশি দক্ষ লোক নিয়োগের বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেন। এ ছাড়া নিজস্ব রিক্রুটিং এজেন্সির মাধ্যমে সৌদি আরব, কুয়েতসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশেস্বল্প খরচে দক্ষ জনশক্তি রপ্তানি করা হচ্ছে। 

গাজীপুরের শিমুলতলীতে বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরির ক্যাম্পাসে ২০০৯ সালের ১ জুন বাংলাদেশ সেনাবাহিনী দেশের যুবকদের কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষিত করার লক্ষ্যে ট্রাস্ট টেকনিক্যাল ট্রেনিং ইনস্টিটিউট (টিটিটিআই) প্রতিষ্ঠা করে। বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত এ প্রতিষ্ঠানে ছাত্রছাত্রীরা প্রশিক্ষণের পাশাপাশি মাসিক বৃত্তি পেয়ে থাকে। এখান থেকে সরাসরি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে ভর্তির সুযোগ পায় প্রশিক্ষণার্থীরা। এ ছাড়া দেশে-বিদেশে চাকুরীর ব্যবস্থা ও আত্মকর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে থাকে প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ। প্রশিক্ষণার্থীরা বিশ্ব ব্যাংক পরিচালিত স্কিল অ্যান্ড ট্রেনিং ইনহেন্সমেন্ট প্রজেক্টের (এসটিইপি) আওতায় প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে। এ প্রতিষ্ঠানে বর্তমানে আটটি ট্রেডকোর্সে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement