Beta

আবরার ফাহাদ হত্যায় অনিক সরকারের জবানবন্দি

১২ অক্টোবর ২০১৯, ১৬:৫৭

আদালত প্রতিবেদক
বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ রাব্বী হত্যা মামলার ৩ নম্বর আসামি বুয়েট ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অনিক সরকার (গোলচিহ্নিত)। তাঁর পাশে মামলার ৫ নম্বর আসামি বুয়েট ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত উপসমাজসেবা সম্পাদক ইফতি মোশাররফ সকাল। ৮ অক্টোবর ঢাকার চিফ ম্যাজিস্ট্রেট আদালত থেকে তোলা। ছবি : স্টার মেইল

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ রাব্বীকে পিটিয়ে হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন শাখা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অনিক সরকার (২২)। আজ শনিবার ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আতিকুল ইসলামের আদালতে তিনি ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

আদালত-সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, আবরার ফাহাদকে কীভাবে পিটিয়ে হত্যা করেছেন স্বীকারোক্তিতে সেই বর্ণনা দিয়েছেন মামলার ৩ নম্বর আসামি অনিক সরকার। তবে আইনত নিষেধ থাকায় সেই বর্ণনা কেউ দিতে চাননি।

অনিক সরকার রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার বড়ইকুড়ি গ্রামের মো. আনোয়ার হোসেন ও শাহিদা বেগমের ছেলে। তিনি বুয়েটের শেরেবাংলা হলের ছাত্র। পড়েন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চতুর্থ বর্ষে। আবরার ফাহাদ হত্যার পরের দিন ৭ অক্টোবর তাঁকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরের দিন ৮ অক্টোবর তাঁকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে পাঠান আদালত। সেই রিমান্ড শেষ হওয়ার এক দিন আগেই আজ তিনি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিলেন।

আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় আজ শনিবার পর্যন্ত মোট ১৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ঢাকা মহানগর  পুলিশ (ডিএমপি)। এর মধ্যে গত বৃহস্পতিবার এ ঘটনায় প্রথম ঢাকা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন মামলার ৫ নম্বর আসামি বুয়েটের বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র এবং বুয়েট ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত উপসমাজসেবা সম্পাদক ইফতি মোশাররফ সকাল।

গতকাল শুক্রবার জবানবন্দি দিয়েছেন মামলার ৭ নম্বর আসামি বুয়েট ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত ক্রীড়া সম্পাদক মো. মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন। এ চাঞ্চল্যকর হত্যার ঘটনা তদন্তের দায়িত্ব পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগকে দেওয়া হয়েছে।

Advertisement