Beta

বিয়ের দুই মাসের মাথায় জাপা নেতার মেয়েকে ‘খুন’

১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২২:৪৩

গাজীপুরে জাতীয় পার্টির নেতার সদ্যবিবাহিতা মেয়ে শোভা রাজমনি হোসনা। ছবি : সংগৃহীত

গাজীপুরে জাতীয় পার্টির (জাপা) এক নেতার সদ্যবিবাহিতা মেয়েকে তাঁর স্বামী খুন করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় নিহতের স্বামী রবিউল ইসলামকে (২৭) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

নিহতের নাম শোভা রাজমনি হোসনা (২০)। তিনি মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার বিশ্বাসপাড়া এলাকার মো. আবদুল হালিমের মেয়ে। আবদুল হালিম গাংনী উপজেলা জাতীয় পার্টির (জেপি) সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক।

নিহত শোভার স্বজনরা তাঁকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ করলেও চিকিৎসকরা এ ঘটনাকে আত্মহত্যা বলে ধারণা করছেন।

নিহত শোভার বাবা আবদুল হালিম ও স্বজনরা অভিযোগ করে জানান, গাজীপুরে ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (ডুয়েট) ভর্তির জন্য ভাড়া বাসায় থেকে কোচিং করছিলেন শোভা। গত ১২ জুলাই মাগুরার জেলা সদরের শেহেলডাঙ্গা গ্রামের সোহরাব হোসেনের ছেলে রবিউল ইসলামের সঙ্গে শোভার বিয়ে হয়। বিয়ের পর শোভা স্বামী রবিউলের সঙ্গে ডুয়েটের পাশেই গাজীপুর শহরের উত্তর ভুরুলিয়া এলাকার ফ্ল্যাটে ভাড়া থাকতেন। বিয়ের কিছুদিন পর থেকে যৌতুক বাবদ ৩০ লাখ টাকা বাবার বাড়ি থেকে এনে দেওয়ার জন্য রবিউল তাঁর স্ত্রী শোভাকে চাপ দেন। এর জন্য মারধরও করেন বলে জানা যায়। গতকাল মঙ্গলবার রাত পৌনে ১২টার দিকে শোভা ফোন করে তাঁর মা ও বাবাকে যৌতুকের জন্য স্বামী তাঁকে মারধর করেছে বলে জানান। এ সময় আবদুল হালিম তাঁর মেয়েকে রাতটুকু সহ্য করে সকালে বাড়ি চলে আসতে বলেন। এর কিছুক্ষণ পর শোভার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। বুধবার ভোর ৪টার দিকে মেয়ের বাসার মালিকের স্ত্রী ফোন করে শোভা অসুস্থ বলে জানিয়ে শোভার বাবা-মাকে দ্রুত গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আসতে বলেন। দুপুর ১২টার দিকে হাসপাতালে গিয়ে মেয়ের লাশ দেখতে পান শোভার বাবা।

শোভার বাবার দাবি, রবিউল যৌতুকের টাকা না পেয়ে শোভাকে নির্যাতনের পর শ্বাসরোধে হত্যা করেছে। ঘটনা ধামাচাপা দিতে গলায় দড়ি লাগিয়ে লাশ ঝুলিয়ে রেখে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রচারের চেষ্টা চালাচ্ছে। নিহত শোভার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

গাজীপুর মহানগর পুলিশের সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) রিয়াজ উদ্দিন জানান, স্বামী রবিউল রাত ৪টায় অচেতন অবস্থায় স্ত্রী শোভাকে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। শোভার গলা ও হাতে কালচে দাগ রয়েছে। স্বজনদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে শোভার স্বামীকে আটক করা হয়েছে। স্বামীর দাবি, শোভা ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যা করেছেন।

এ ব্যাপারে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এজাজ শফী জানান, এ ঘটনায় নিহত শোভার বাবা মো. আবদুল হালিম বাদী হয়ে সদর থানায় হত্যা মামলা করেছেন। রবিউলকে ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। মৃত্যুর কারণ নির্ণয়ের জন্য লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) প্রণয় ভূষণ দাস জানান, গলায় রশির দাগ ও হাতে ব্লেডের ছোট ছোট আঘাতের চিহ্ন থেকে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে শোভা আত্মহত্যা করেছে। তবে ময়নাতদন্তের চূড়ান্ত প্রতিবেদনের পরই তাঁর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

Advertisement