Beta

জি এম কাদেরের দাবি

প্রতিবছরের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের স্থায়ী তালিকা করতে হবে

০৩ আগস্ট ২০১৯, ১৪:৫১

নিজস্ব সংবাদদাতা
শনিবার কুড়িগ্রাম জেলার পাঁচগাছি ইউনিয়ন কলেজ মাঠে বন্যার্তদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণকালে বক্তব্য দেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের। ছবি : এনটিভি

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের বলেছেন, প্রতিবছরই কুড়িগ্রাম ও রংপুরসহ উত্তারাঞ্চলের লাখ লাখ মানুষ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়। প্রতি বছর বন্যায় যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয় তাদের মাঝে ত্রাণ বিতরণের জন্য স্থায়ী তালিকা করতে হবে। বন্যার সময় তাদের কার্ড অনুযায়ী ত্রাণ পৌঁছে দিতে হবে।

জি এম কাদের বলেন, ‘বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত অনেক মানুষই কষ্টের মধ্যেও ত্রাণের জন্য লাইনে দাঁড়াতে চায় না। তাই তালিকা অনুযায়ী ত্রাণ দিলে সবার মাঝে সুষ্ঠুভাবে ত্রাণ বিতরণের স্থায়ী বন্দোবস্ত হবে।’

আজ শনিবার বেলা ১১টার দিকে কুড়িগ্রাম জেলার পাঁচগাছি ইউনিয়ন কলেজ মাঠে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণকালে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের এ কথা বলেন।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, ‘প্রধান বিরোধী দল হিসেবে আমরা সাধ্যমতো বন্যার্তদের পাশে দাঁড়িয়েছি। হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সব সময় বন্যার্তদের পাশে ছিলেন। আমরাও তাঁর দেখানো পথে দুর্গত মানুষদের সেবায় নিয়োজিত থাকব। আমাদের প্রিয় নেতা পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শোককে শক্তিতে পরিণত করে গণমানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রাম করব। ত্রাণ বিতরণে কোনো অনিয়ম হলে আমরা সংসদে তা তুলে ধরব।’

শনিবার কুড়িগ্রাম জেলার পাঁচগাছি ইউনিয়ন কলেজ মাঠে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের। ছবি : এনটিভি

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে জি এম কাদের বলেন, ‘সাধারণ মানুষের মধ্যে ডেঙ্গু আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। মানুষের মধ্যে ভীতিকর অবস্থা বিরাজ করছে। ডেঙ্গু জ্বরে মানুষ মারা যাচ্ছে, সরকার মানুষের ডেঙ্গুভীতি দূর করতে পারেনি।’

এ সময় জাতীয় পার্টির মহাসচিব ও সংসদে বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, ‘আমাদের কোনো অ্যালায়েন্স নেই। আগামী জাতীয় নির্বাচনে জাতীয় পার্টি এককভাবে নির্বাচন করবে।’

রংপুরের ২২টি আসনেই জয়ী হতে পার্টিকে আরো শক্তিশালী করতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহবান জানান তিনি। পাশাপাশি বন্যা নিয়ন্ত্রণে উত্তারাঞ্চলের সব নদ-নদীতে ড্রেজিং করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান মসিউর রহমান রাঙ্গা।

Advertisement