Beta

বাজেটে ব্যবসায়ী ও সুবিধাভোগীদের স্বার্থ রক্ষা করা হয়েছে : বিএনপি

১৪ জুন ২০১৯, ২০:৪৮ | আপডেট: ১৪ জুন ২০১৯, ২০:৫১

নিজস্ব প্রতিবেদক
দলের চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে সদ্য ঘোষিত বাজেট নিয়ে কথা বলেন বিএনপির শীর্ষ নেতারা। ছবি : এনটিভি

প্রস্তাবিত বাজেট জনগণের বিরুদ্ধে দেওয়া হয়েছে এমন অভিযোগ করে বিএনপি বলছে বাজেটে  স্বাস্থ্য, শিক্ষা খাতসহ সাধারণ মানুষের মূল সমস্যাগুলোকে গুরুত্ব দেওয়া হয়নি। কৃষকের জন্য কোনো সুখবর নেই উল্লেখ করে দলটি অভিযোগ করেছে ব্যবসায়ী আর সুবিধাভোগীদের স্বার্থ রক্ষা করা হয়েছে বাজেটে। বাজেটের ঘাটতি জনগণের পকেট কেটে আদায় করা হবে বলেও অভিযোগ করেছে দলটি।

প্রস্তাবিত বাজেটের আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানাতে আজ শুক্রবার দলের চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বিএনপি। বাজেটকে উচ্চাভিলাসী আখ্যায়িত করে বিএনপির তরফ থেকে বলা হয় বাজেটের আকার বড় করার চমক সৃষ্টির প্রতিযোগিতায় নেমেছে সরকার। বাজেট নিয়ে জনমনে কোনো উচ্ছাস নেই উল্লেখ করে দলটি অভিযোগ করে বাজেটে উপেক্ষা করা হয়েছে সাধারণ মানুষের স্বার্থ।

দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘দেশের মানুষের বিরুদ্ধে এই বাজেট দেওয়া হয়েছে। মূল সমস্যাগুলোর কিছুই বাজেটে আসেনি। এই দেশের মানুষের প্রধান যে সমস্যা অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য, তার কোনটা পূরণ হচ্ছে এখানে?  কোনটাই পূরণ হওয়ার মতো বরাদ্দ এখানে রাখা হয়নি।’

দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যরিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকারের সুবিধাভোগীদের জন্যই এই বাজেটটা করা হয়েছে। আমাদের কৃষকরা আন্দোলন করেছেন, এমনকি আত্মহত্যা করছেন। কিন্তু কৃষকরা ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন না। তাদের দুঃখ কষ্ট লাঘব করার কোন ব্যবস্থা এই বাজেটে রাখা হয়নি।’

দেশের অর্থনীতি কিছু সংখ্যক মানুষের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে অভিযোগ করে বিএনপি নেতারা বলেন, ‘যারা বাজেট প্রণয়ণ করছে তারা অর্থনীতি নিয়ন্ত্রণ করছে আবার সরকারও পরিচালনা করছে।’

দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান বলেন, ‘বাংলাদেশের পঞ্চাশ বছরের ইতিহাসে কোনদিন কোন ব্যবসায়ী কিন্তু অর্থমন্ত্রী হয় নাই। পৃথিবীর কোন দেশে সাধারণত হয় না। ব্যবসায়ী যিনি অর্থমন্ত্রী তিনি তো ব্যবসায়ীদের স্বার্থ দেখবেন, জনগণের স্বার্থ কখন দেখবেন?’

প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্র অর্জন সম্ভব নয় মন্তব্য করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দেশে বেকারত্ব চরম পর্যায়ে পৌঁছানো ও বিনিয়োগ কমে যাওয়াসহ সামষ্টিক অর্থনীতির ইনডেক্সগুলোর সাথে কোনো সামঞ্জস্য নেই জিডিপির প্রবৃদ্ধির।’ বাজেটের ঘাটতি মোকাবিলায় ঋণ নির্ভর বাজেট দেওয়া হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘এর বোঝা চাপবে সাধারণ মানুষের ওপর।’

নিম্ন মধ্যবিত্তদের ওপর করের চাপ আরো বাড়বে বলে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে প্রকল্প ব্যয় বহুগুণ বাড়িয়ে বাজেট প্রণয়ন করা হচ্ছে। করের মাধ্যমে, ভ্যাটের মাধ্যমে এই টাকা জনগণের পকেট থেকে কেটে নেবে সরকার।’

প্রস্তাবিত বাজেটে দুর্নীতিবাজদের কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ করে বিএনপি।

Advertisement