Beta

খালেদা জিয়ার মুখে ঘা হয়েছিল, এখন খেতে পারছেন : বিএসএমএমইউ

২৯ মে ২০১৯, ১২:৪৮ | আপডেট: ২৯ মে ২০১৯, ১৬:২৭

নিজস্ব সংবাদদাতা
আজ বুধবার বিএসএমএমইউ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে মাহবুবুল হক সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন। ছবি : সংগৃহীত

কয়েক দিন আগে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুখে ঘা হয়েছিল, এখন সেটি ভালোর পথে। তিনি স্বাভাবিক খাওয়া-দাওয়া করতে পারছেন বলে দাবি করেছে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে বিএনপির উদ্বেগের মধ্যেই আজ বুধবার বিএসএমএমইউ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে মাহবুবুল হক এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি করেন।

গত ২৪ মে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার কথা তুলে ধরে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘খালেদা জিয়া অত্যন্ত অসুস্থ। অন্যের সাহায্য ছাড়া বিছানা থেকেও উঠতে পারছেন না। আগে বাঁ হাত নাড়াতে পারতেন না, এখন ডান হাতও নড়াচড়া করতে পারেন না।’

অবিলম্বে খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘সরকারের উচিত ছিল খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের অবস্থা জানিয়ে বুলেটিন দেওয়া। কিন্তু আজ পর্যন্ত তারা এমন কিছু করেনি। তারা কি খালেদা জিয়াকে জেলখানায় মেরে ফেলতে চাচ্ছে? আমি আবারও বলতে চাই, দেশনেত্রীর কোনো ক্ষতি হলে তার জন্য সম্পূর্ণ দায়ী থাকবে সরকার।’

তবে এসব তথ্যকে ‘ভুল’ বলে আজকের সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেছেন বিএসএমএমইউ হাসপাতালের পরিচালক। তিনি বলেন, ‘আমাদের মেডিকেল বোর্ড, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ না করেই এই সংবাদগুলো প্রচার করা হয়। এগুলো ভুল তথ্য। উনার কখনোই এ অবস্থা ছিল না এখানে আসার পরে, এখনো নাই। উনি আগের চেয়ে অনেক ভালো আছেন। উনি গ্র্যাজুয়ালি ইমপ্রুভিং।’

সাবেক প্রধানমন্ত্রীর খাওদা-দাওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে মাহবুবুল হক বলেন, ‘গত ৮ থেকে ১০ দিন আগে উনার (খালেদা জিয়া) জিহ্বায় একটি ঘা হয়েছিল। আপনাদের জীবনের ইতিহাস আছে, সবারই জিহ্বায় বা মুখে ঘা হয়। এটা আমার হয়, সবারই হয়। উনারও সেটাই হয়েছে, অন্য কোনো কারণে নয়। উনার এই ঘা প্রায় ৯০ শতাংশই ইমপ্রুভ। উনি এখন নরমাল খাবার খাচ্ছেন।’

‘তবুও দাঁতের ডাক্তার দিয়ে উনার এটা চেক করাব আমরা, আদার কোনো ডেন্টাল ফল্ট থেকে হয়েছে কি না। উনি রোজাও রাখছেন, আর এ ক্ষেত্রে উনি ছোলাসহ রোজার অন্য আইটেমগুলোও খাচ্ছেন।’

‘উনার সঙ্গে যে মেয়েটা আছে, উনার চয়েসমতো উনি রান্না করে দেন। উনার মেন্যু অনুযায়ী উনি রান্না করে খান। পাশেই আমাদের এখানে চুলা আছে,’ যোগ করেন হাসপাতাল পরিচালক।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে মাহবুবুল হক বলেন, ‘আপনারা জানেন, উনি যে সমস্যাগুলো নিয়ে এসেছেন, এগুলো ফোনিক ডিজিস, এগুলো ঠিক হতে একটু সময় লাগে এবং খুব স্লো ইমপ্রুভ হয়। এবং উনি ভালোই ইমপ্রুভ করছেন। উনার ডায়াবেটিস, আরথ্রাইটিস এবং অন্যান্য যে দুর্বলতা ছিল, এগুলো অনেক ইমপ্রুভ, উনি খুব ভালো আছেন। আমি বলব, উনার এই বয়সে উনি খুবই ভালো আছেন।’

‘ডায়াবেটিসের নিয়ন্ত্রণে, উনার আরথ্রাইটিসের ব্যথা অনেক কমে গেছে। উনার দুর্বলতা অনেক ইমপ্রুভ করেছে। আর কোনো সমস্যা নাই। আর নতুন করে কোনো সমস্যার কথা উনি বলেননি। চিকিৎসা নেওয়া ও থাকাতেও উনার কোনো সমস্যা হচ্ছে না। উনি সম্পূর্ণ কমফোর্টেবল ও ভালো আছেন,’ যোগ করেন পরিচালক।

Advertisement