Beta

ভৈরবে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানদের বরণ ও বিদায় সংবর্ধনা

২৩ মে ২০১৯, ২৩:১৬

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আলহাজ মো. সায়দুল্লাহ মিয়াকে বরণ ও সাবেক চেয়ারম্যান মো. গিয়াস উদ্দিনকে বিদায় সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। ছবি : এনটিভি

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আলহাজ মো. সায়দুল্লাহ মিয়াকে বরণ ও সাবেক চেয়ারম্যান মো. গিয়াস উদ্দিনকে বিদায় সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। উপজেলা পরিষদের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ মিলানয়তনে বৃহস্পতিবার দুপুরে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ইসরাত সাদমীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে সায়দুল্লাহ মিয়াকে বরণ ও গিয়াস উদ্দিনকে বিদায় জানায় উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসন, আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ-সহযোগী সংগঠন, ভৈরব প্রেসক্লাব, বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি, শিক্ষক সমিতিসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও পেশাজীবী সংগঠন।

বিদায় সংবর্ধনার জবাবে সাবেক চেয়ারম্যান মো. গিয়াস উদ্দিন পাঁচ বছর তাঁর দায়িত্বকালে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসহ জনগণের সার্বিক সহযোগিতার জন্য সবাইকে কৃতজ্ঞতাসহ ধন্যবাদ জানান। দায়িত্ব পালনকালে তাঁর ভুল-ত্রুটি হয়ে থাকলে, তাঁকে ক্ষমা করে দেওয়ারও অনুরোধ জানান তিনি।

বরণ করে সংবর্ধনার জবাবে নবনির্বাচিত চেয়ারমান, মুক্তিযোদ্ধা সায়দুল্লাহ মিয়া বলেন, মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে দেশের মানুষকে পরাধীনতা থেকে মুক্ত করার জন্য অস্ত্র হাতে তুলে নিয়েছিলাম। এরপর ১৯৭২ সাল থেকে মরহুম জিল্লুর রহমানের পাশে থেকে ভৈরববাসীর উন্নয়নে কাজ করে গেছি। এখনো করছি। মাননীয় এমপি নাজমুল হাসান পাপনের প্রতিনিধি এবং আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে ভৈরববাসীর কল্যাণে কাজ করছি। আজ থেকে আগামী পাঁচ বছর ভৈরব উপজেলাবাসীর সার্বিক কল্যাণে কাজ করব।

সায়দুল্লাহ মিয়া এ প্রসঙ্গে বলেন, আজ এই সংবর্ধনায় আসার আগে বাড়ি থেকে বিদায় নিয়ে এসেছি। এখন থেকে বাড়ির গণ্ডির সব দায়িত্ব থেকে বিদায় নিয়েছি। আমার দিন-রাতের কাজ থাকবে উপজেলা পরিষদকে ঘিরে। উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়ন আর সেখানকার মানুষদের নিয়ে।

এ সময় সায়দুল্লাহ মিয়া উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান, উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারী, আওয়ামী লীগসহ প্রতিটি রাজনৈতিকদলের নেতা-কর্মী এবং সব শ্রেণির মানুষের সার্বিক সহায়তা প্রত্যাশা করেন।

আলোচনা সভায় এ সময় পৌরসভার মেয়র মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট ফখরুল আলম আক্কাছ, কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদের প্যানেল-চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মির্জা মো. সুলায়মান, সাবেক রাষ্ট্রপতি মরহুম জিল্লুর রহমানের একান্ত সচিব অধ্যাপক মো. লুৎফর রহমান ফুলু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর আলম সেন্টু প্রমুখ বক্তব্য দেন।

Advertisement