Beta

যেভাবে পাওয়া যাবে বিআরটিসির আগাম টিকেট

১৬ মে ২০১৯, ২২:০৯

অনলাইন ডেস্ক

আসন্ন পবিত্র ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের নিরাপদ গন্তব্যে পৌঁছানোর জন্য বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন (বিআরটিসি) আগামী ২০ মে থেকে আগাম টিকেট বিক্রি শুরু করবে। প্রতিবারের মতো এবারও বিআরটিসি যাত্রী সাধারণের আরামদায়ক যাত্রা নিশ্চিতের লক্ষ্যে আগামী ২৭ মে থেকে ‘ঈদ স্পেশাল সার্ভিস’-এর আয়োজন করেছে।

বিআরটিসির চেয়ারম্যান ফরিদ আহমদ ভূঁইয়া আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীতে তাঁর কার্যালয়ে বাসসকে এ কথা জানিয়েছেন।

ফরিদ আহমদ বলেন, ‘আগামী ২০ মে থেকে বিআরটিসির সংশ্লিষ্ট ডিপো হতে ঈদের অগ্রিম টিকেট বিক্রয় শুরু হবে এবং ১০ জুন পর্যন্ত ঈদ সার্ভিসের এই বাস চলাচল করবে। ঢাকাস্থ মতিঝিল, জোয়ারসাহারা, কল্যাণপুর, গাবতলী, মোহাম্মদপুর, মিরপুর বাস ডিপো, যাত্রাবাড়ী এবং গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জ বাস ডিপো (ফুলবাড়িয়াস্থ সিবিএস-২) হতে আগাম টিকেট বিক্রি করা হবে।’

বিআরটিসিরি চেয়ারম্যান আরো জানান, সরকারের আমদানিকৃত নতুন দেড়শ বাসসহ মোট এক হাজার ৮৯টি বাস- ঈদ স্পেশাল সার্ভিসে ব্যবহার করা হবে। এর মধ্যে ৬৪৯টি বাস ঢাকা থেকে এবং ৩৯০টি ঢাকার বাইরে থেকে বিভিন্ন জেলায়-উপজেলায় চলাচল করবে। কোথাও কোনো বাস বিকল হলে বা দুর্ঘটনায় পড়লে সেখানে সরবরাহ করার জন্য ৫০টি বাস সংস্থায় রিজার্ভ থাকবে।

বিআরটিসির ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (অপারেশন) মনিরুজ্জামান বাবু বাসসকে জানান, মতিঝিল বাস ডিপোর নিয়ন্ত্রণে থাকবে ঢাকা থেকে নাগরপুর, দাউদকান্দি, বাজিতপুর, খুলনা, দিনাজপুর, নেত্রকোনা রুট। কল্যাণপুর বাস ডিপোর নিয়ন্ত্রণে থাকছে রংপুর, পঞ্চগড়, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, কুষ্টিয়া, রাজশাহী, শেরপুর, জামালপুর, নেত্রকোনা, নাগরপুর, গোবিন্দগঞ্জ, রানিশংকৈল, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর রুট। গাবতলী ডিপোর নিয়ন্ত্রণে থাকছে রংপুর, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও রুট। জোয়ারসাহারা বাস ডিপোর নিয়ন্ত্রণে থাকবে বিশ্বরোড-পাঁচদোনা, রংপুর, নওগাঁ, জয়পুরহাট, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ ও বগুড়া রুট। মিরপুর বাস ডিপোর নিয়ন্ত্রণে থাকছে রংপুর, কুষ্টিয়া, কুড়িগ্রাম, দিনাজপুর ও নওগাঁ রুট। মোহাম্মদপুর বাস ডিপোর নিয়ন্ত্রণে রংপুর রুট। তিনি আরো জানান, গাজীপুর বাস ডিপোর নিয়ন্ত্রণে থাকছে বিশ্বরোড-পাঁচদোনা, কিশোরগঞ্জ, টাঙ্গাইল, জামালপুর, নেত্রকোনা, ময়মনসিংহ, রংপুর, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও রুট। যাত্রাবাড়ী বাস ডিপোর নিয়ন্ত্রণে রয়েছে ঢাকা থেকে গৌরীপুর, টঙ্গী-মাওয়া, চট্টগ্রাম, সিলেট রুট। নারায়ণগঞ্জ বাস ডিপোর নিয়ন্ত্রণে রয়েছে ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা-মেঘনা উপজেলা, বিশ্বরোড-পাঁচদোনা রুট। অন্যদিকে কুমিল্লা বাস ডিপোর নিয়ন্ত্রণে থাকবে ঢাকা-কুমিল্লা, ঢাকা-বরুড়া রুট। নরসিংদী বাস ডিপোর নিয়ন্ত্রণে রয়েছে ঢাকা-নরসিংদী ও ঢাকা-ভৈরব রুট। সিলেট বাস ডিপোর নিয়ন্ত্রণে থাকছে সিলেট-তারাকান্দা রুট।

যাত্রীসাধারণকে বিআরটিসির ঈদ স্পেশাল সার্ভিস গ্রহণের অনুরোধ জানিয়ে বিআরটিসির চেয়ারম্যান বলেন, ‘যাত্রীসাধারণের চলাচলের সুবিধার্থে আগামী ৩ জুন হতে ঢাকার বিভিন্ন ডিপো বা টার্মিনালে জরুরি সার্ভিস দেওয়ার জন্য ৫০টি বাস রিজার্ভ থাকবে। এই বাসগুলো মিরপুর ১২ নম্বরস্থ মিরপুর বাস ডিপো, নন্দনপার্কের সামনে, কল্যাণপুর বাস ডিপো, চন্দ্রা মোড়ে, মতিঝিল বাস ডিপো, মহাখালী বাস টার্মিনাল, জোয়ারসাহারা বাস ডিপো, মোহাম্মদপুর বাস ডিপো, হেমায়েতপুর বাস স্ট্যান্ড এবং চন্দ্রা বাস স্ট্যান্ডে রিজার্ভ থাকবে। এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য বিআরটিসির ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।

বিআরটিসিরি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, টিকিটসহ যেকোনো প্রয়োজনে যাত্রী সাধারণ যোগাযোগ করতে পারবেন-ম্যানেজার (অপা.) যথাক্রমে মতিঝিল বাস ডিপো- ০১৭১২২৮১১২১, কল্যাণপুর বাস ডিপো- ০১৭১১৫৭৮৭৪৪, গাবতলী বাস ডিপো- ০১৮১৮৪৮৫৩৮৮, জোয়ারসাহারা বাস ডিপো- ০১৬১৯৪৫৭২৪৫, মিরপুর বাস ডিপো- ০১৭৪০০৯৮৮৮৮, মোহাম্মদপুর বাস ডিপো- ০১৭১২২২৪০৩৮, গাজীপুর বাস ডিপো- ০১৮১৭৭৮২৮৬৬, যাত্রাবাড়ী বাস ডিপো- ০১৭১১৩৯১৫১৪, নারায়ণগঞ্জ বাস ডিপো- ০১৭১৬৬৮৪১৪৪, কুমিল্লা বাস ডিপো- ০১৭৫৮৮৮০০১১ এবং নরসিংদী বাস ডিপো- ০১৫৫৩৩৪৯৫৬৭ নম্বরে।

বিআরটিসি সূত্র আরো জানায়, গত বছরের ঈদে বিআরটিসির ৯০৪টি বাস চলাচল করে। এর মধ্যে ৪৭৫টি বাস ঢাকা থেকে এবং ৩৭৫টি বাস ঢাকার বাইরে থেকে বিভিন্ন জেলায় উপজেলায় চলাচল করে। বিআরটিসি কর্তৃপক্ষ জানায়, অন্যান্য বাস থেকে এই বাসের তুলনামূলক ভাড়া কম বলে স্বল্প আয়ের মানুষ বিআরটিসি বাসে সবচেয়ে বেশি চলাচল করে। বিশেষ করে পোশাককর্মীরা এসব বাসে বেশি যাতায়াত করে।

বিআরটিসি কর্তৃপক্ষ জানায়, রাজধানীতে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়, সরকারি অফিস ও অন্যান্য গন্তব্যে চলাচলকারী বাস ঈদের ছুটিতে চলবে না, এ সময় এগুলো বিভিন্ন জেলায় যাবে। ঈদের ছুটি শেষ হলে এসব বাস আবার স্বাভাবিক নিয়মে চলবে।

Advertisement