Beta

কিশোরগঞ্জে চলন্ত বাসে নার্সকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ

০৭ মে ২০১৯, ১৭:১৭ | আপডেট: ০৭ মে ২০১৯, ১৭:৪৯

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদি উপজেলায় চলন্ত বাসে এক নার্সকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে আটক বাসচালক নূরুজ্জামান ও তাঁর সহকারী লালু মিয়া। ছবি : এনটিভি

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদি উপজেলায় চলন্ত বাসে এক নার্সকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় বাসচালক নূরুজ্জামান ও তাঁর সহকারী লালু মিয়াকে আটক করা হয়েছে।

নিহত নার্স শাহিনুর আক্তার তানিয়া (২৩) কটিয়াদির  লোহাজুড়ি ইউনিয়নের বাহেরচর গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের মেয়ে। তিনি রাজধানীর ইবনে সিনা হাসপাতালে নার্স হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

তবে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার দায়িত্বে নিয়োজিত কটিয়াদি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শফিকুল ইসলাম জানান, চলন্ত বাস থেকে তাড়াহুড়া করে নামার সময় গুরুতর আহত হয়ে তানিয়ার মৃত্যু হয়।

জানা যায়, শাহিনুর আক্তার তানিয়া গতকাল সোমবার বিকেলে নিজ বাড়িতে আসার জন্য ঢাকার মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে স্বর্ণলতা পরিবহনের একটি বাসে উঠে রওনা হন। রাত সাড়ে ৯টার দিকে কটিয়াদি আসার পর তানিয়া ও অপর দুই যাত্রী ছাড়া বাকি সবাই নেমে যান। পরে উজানচর নামক স্থানে অন্য দুই যাত্রীও নেমে যান। বাসটি কিশোরগঞ্জ-ভৈরব সড়কের বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের বিলপাড় গজারিয়া নামক স্থানে পৌঁছানোর পর বাসের চালক ও সহকারীসহ অন্যরা তানিয়াকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ ওঠে। রাত পৌনে ১১টার দিকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তানিয়াকে কটিয়াদি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।

তানিয়ার বড় ভাই বাদল মিয়া জানান, ধর্ষণের পর গলায় ওড়না পেচিয়ে শ্বাসরোধ করে তাঁর বোনকে হত্যা করা হয়েছে।

কটিয়াদি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শফিকুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় অভিযুক্ত চালক ও সহকারীকে আটক করা হয়েছে। তানিয়ার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ জেলা হাসহাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। এ ঘটনায় এখনো কোনো মামলা হয়নি।

Advertisement