Beta

আইন মেনে বিদেশি টেলিভিশন চ্যানেল চালানোর আহ্বান তথ্যমন্ত্রীর

১৭ এপ্রিল ২০১৯, ২১:১৫ | আপডেট: ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ২১:৩২

নিজস্ব প্রতিবেদক
বুধবার দুপুরে সচিবালয়ে কোয়াব প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠকের পর বক্তব্য দেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। ছবি : এনটিভি

আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে সিটি করপোরেশন এলাকায় ক্যাবল নেটওয়ার্ক ডিজিটাল করার আহ্বান জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। সেই সঙ্গে আইন মেনে বিদেশি টেলিভিশন চ্যানেল বাংলাদেশে চালানোর আহ্বান জানিয়েছেন।

আজ  বুধবার দুপুরে সচিবালয়ে ক্যাবল অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (কোয়াব) প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠকে এই আহ্বান জানান মন্ত্রী। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন কোয়াব প্রতিনিধিরা।

লাইসেন্সের শর্ত ভেঙে ক্যাবল অপারেটররা যেন বিজ্ঞাপন, সিনেমা বা নিজস্ব অনুষ্ঠান প্রচার না করেন সে ব্যাপারে  আগামী জুনের মধ্যে ব্যবস্থা নিতে বলেছেন তথ্যমন্ত্রী।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘সারাদেশে টেলিভিশন চ্যানেল প্রচারের কাজ করছেন ক্যাবল অপারেটররা। কিন্তু এই সুযোগে অনেকেই বিজ্ঞাপন, সিনেমা এবং নিজস্ব অনুষ্ঠান প্রচার করছেন, যা পুরোপুরি লাইসেন্সের শর্তের লঙ্ঘন। আর তথ্য মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী অনেকেই দেশি চ্যানেলগুলো সিরিয়ালে আগে রাখছেন না। এসব বিষয়ে শৃঙ্খলা আনার পাশাপাশি ডাউনলিংক করা চ্যানেলে যেন বিজ্ঞাপন প্রচার হতে না পারে সে ব্যাপারেও ক্যাবল অপারেটরদের সহযোগিতা চান মন্ত্রী।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তৃণমূল পর্যায়ে বেসরকারি চ্যানেলগুলো পৌঁছানোর জন্য ক্যাবল অপারেটরদের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। তবে, তাদেরও বিদ্যমান আইন মেনে চলা উচিত।’ তিনি বলেন, বিদেশি চ্যানেলগুলোতে এ দেশের বিজ্ঞাপন প্রচারের কোনো সুযোগ নেই এবং বিদেশি টিভি চ্যানেলের বিজ্ঞাপন বন্ধ করতে ক্যাবল অপারেটররাই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

ড. হাছান মাহমুদ লাইসেন্স প্রাপ্তির ধারাবাহিকতায় বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর ক্রমতালিকা অনুসরণ করতে কোয়াব নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান। মন্ত্রী বলেন, ‘ক্যাবল অপারেটরদের অবশ্যই সম্প্রচারের ক্ষেত্রে টিভি চ্যানেলগুলোর ক্রমতালিকা অনুসরণ করতে হবে।’

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, দেশে প্রায় ছয় হাজার ক্যাবল অপারেটর রয়েছে এবং স্থানীয় ও বিদেশি চ্যানেল সম্প্রচারের ক্ষেত্রে তাদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে।

ক্যাবল অপারেটররা বলেন, লাইসেন্সের শর্ত মানতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেবেন তারা। তবে ডিজিটালাইজেশনের জন্য অনেক অর্থের প্রয়োজন। এজন্য সহজ শর্তে ঋণ এবং শুল্কমুক্ত সেট-টপ বক্স আমদানির সুবিধা করে দেওয়ার দাবি জানান তারা।

কোয়াবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এস এম আনোয়ার পারভেজ বলেন, ‘মন্ত্রী মহোদয় আজকে বলেছেন, আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই সকল সিটি করপোরেশন এলাকাগুলোকে ডিজিটাইলেজশন বাধ্যতামূলকভাবে করতে হবে।’

এর আগে মন্ত্রণালয় গত ১ এপ্রিল থেকে বিদেশি চ্যানেলগুলোতে বাংলাদেশি বিজ্ঞাপন সম্প্রচার বন্ধ করতে দেশের সব ক্যাবল অপারেটরের প্রতি আহ্বান জানিয়ে কয়েকটি নোটিশ দিয়েছে।

এ ছাড়া দেশের ইলেকট্রনিক মিডিয়ার একটি প্ল্যাটফর্ম ডাউনলিংকের ‘অবৈধ ব্যবহার’ বন্ধের দাবি জানায়। প্ল্যাটফর্মের মতে, ডাউনলিংক ব্যবহারের এই চর্চার ফলে দেশের স্থানীয় প্রাইভেট চ্যানেলগুলোর পাশাপাশি বাংলাদেশের গণমাধ্যম শিল্প ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

বিদেশি চ্যানেলে স্থানীয় পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচারের মাধ্যমে বাংলাদেশের বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর রাজস্ব ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলেও তারা জানায়।

ক্যাবল নেটওয়ার্ক ডিজিটাল হলে অপারেটর, সরকার এবং টেলিভিশন চ্যানেল সব পক্ষই লাভবান হবে বলে জানান তারা।

সভায় তথ্য সচিব আবদুল মালেক, কোয়াবের সদস্য ও নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

Advertisement