Beta

ক্রাইস্টচার্চে হামলা

মোজাম্মেল গিয়েছিল ২০ লাখ টাকা ঋণ করে, শোকস্তব্ধ পরিবার

১৭ মার্চ ২০১৯, ১৭:২৭ | আপডেট: ১৭ মার্চ ২০১৯, ১৭:২৯

অনলাইন ডেস্ক
নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুই মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় হতাহতের ঘটনায় বাংলাদেশ সরকারের নিখোঁজের তালিকায় থাকা চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলার মোজাম্মেল হক সেলিমের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। ছবি : এনটিভি

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুই মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় হতাহতের ঘটনায় বাংলাদেশ সরকারের নিখোঁজের তালিকায় রয়েছে চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলার মোজাম্মেল হক সেলিমের নাম।

আজ রোববার দুপুরে উপজেলার খাদেরগাঁও ইউনিয়নের হুরমাহিশা গ্রামে মিয়াজী বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, মা আমেনা বেগম এখন অনেকটা বাকরুদ্ধ। ছেলের জন্য কাঁদতে কাঁদতে চোখের পানি শুকিয়ে গেছে তাঁর।

‘নিখোঁজ’ তালিকায় নাম থাকার পরও মোজাম্মেলের বাড়িতে চলছে স্বজন হারানোর আহাজারি। ক্রাইস্টচার্চে বসবাসকারী মোজাম্মেলের এক বন্ধুর মাধ্যমে পরিবার জানতে পেরেছে, সেদিনের ঘটনায় মোজাম্মেল না ফেরার দেশে চলে গেছেন। 

গত শুক্রবার জুমার নামাজের সময় ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে নৃশংস হামলায় অন্তত ৫০ জন নিহত ও ৪৮ জন আহত হন। নিহতদের মধ্যে চারজন বাংলাদেশি রয়েছেন বলে আজ রোববার পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানিয়েছেন। এর মধ্যে দুজনের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে।

এ ঘটনায় বাংলাদেশ সরকারের নিখোঁজ ব্যক্তিদের যে তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে সেখানে মোজাম্মেল হোসেন নামে একজনের নাম রয়েছে। এ তালিকায় আরো রয়েছেন- ওমর ফারুক ও জাকারিয়া ভূঁইয়া। 

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, নিউজিল্যান্ড সরকার বাংলাদেশকে জানিয়েছে, নিহত প্রত্যেকের পরিবারের একজন ঘনিষ্ঠ আত্মীয়ের কাছে তারা মরদেহ হস্তান্তর করবে এবং তারা মরদেহ দেশে ফিরিয়ে আনতে পারবে।

‘নিখোঁজ’ মোজাম্মেলের বড় ভাই শাহাদাত হোসেন মিজি বার্তা সংস্থা ইউএনবিকে বলেন, সাড়ে তিন বছর আগে নিউজল্যান্ডে পড়ালেখার জন্য যান সেলিম। দেশে একটি প্রাইভেট মেডিকেলে ডেন্টালে পড়াশুনা শেষ করেন। উচ্চশিক্ষার জন্য মতলবের নারায়ণপুর অগ্রণী ব্যাংক থেকে প্রায় ২০ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে তাঁকে বিদেশে পাঠান বড় ভাই। 

শাহাদাত আরো বলেন, ‘শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে মোজাম্মেলের ইমু নম্বর বন্ধ পাওয়া যায়। পরবর্তী সময়ে ওর এক বন্ধুর কাছ থেকে জানতে পারি সে সন্ত্রাসী হামলায় মারা গেছে। ভাইয়ের মৃত্যুর খবর শুনে এখন দিশেহারা। কারণ ভাইকে নিয়ে আমাদের অনেক স্বপ্ন ছিল। কিন্তু তাঁর মৃত্যুতে এখন সব স্বপ্ন শেষ হয়ে গেছে।’

মোজাম্মেলের মামা দেলোয়ার হোসেন বলেন, মোজাম্মেল হক সেলিম খুবই ভদ্র ও শান্ত প্রকৃতির ছিল। নারায়ণপুর উচ্চ বিদ্যালয় পড়া শেষ করে সে ঢাকায় চলে যায়। উচ্চ মাধ্যমিক ঢাকায় পড়েন। সব শেষে ঢাকা মিরপুর মার্কস মেডিকেল কলেজ থেকে ডেন্টাল বিষয়ে বিএসসি (ডেন্টাল) সম্পন্ন করেন। ২০১৫ সালে নিউজল্যান্ডে চলে যান।

মতলব দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল হোসেন বলেন, বিষয়টি আমরা জেনেছি এবং খোঁজ-খবর নিচ্ছি।

Advertisement