Beta

ইউসুফ বাঁচতে চায়, প্রয়োজন তিন লাখ টাকা

৩০ জানুয়ারি ২০১৯, ১৮:০৮

নিজস্ব প্রতিবেদক

হাসপাতালের বিছানায় শীর্ণকায় দেহটি নিয়ে পড়ে আছে ১৫ বছরের ইউছুফ। নিজ শক্তিতে হাত-পা নাড়তে পারে না। ডাকলে চোখ খুলে একটু তাকায়। আবার সেই আগের মতোই আধমরা অবস্থায় নিস্তেজ হয়ে পড়ে থাকে। পাশেই বসে ছেলেকে সুস্থ করে তোলার প্রাণান্তকর চেষ্টা করে চলেছেন মা পিয়ারা বেগম। মা-ছেলের এভাবেই এক মাস ধরে কেটে যাচ্ছে হাসপাতালে।

চাঁদপুর জেলার হাজিগঞ্জ উপজেলার ২ নং বাকিলা ইউনিয়নের দিগৈ-ছয়ছিলা গ্রামের দরিদ্র দিনমজুর আনিছুর রহমানের একমাত্র ছেলে। নিজের ভিটেমাটি বিক্রি করে ভাগ্যের চাকা ঘুরানোর বুকভরা আশা নিয়ে আনিছুর বছর তিনেক আগে বিদেশে যান। গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ায় মালিক তাকে দেশে  ফেরত পাঠিয়ে দেয়। সেইদিন থেকেই মেধাবী ছাত্র ইউসুফ পড়ালেখা ছেড়ে দিয়ে স্থানীয় বাজারে লেদমেশিনের হেলপার হিসেবে কাজে লেগে যায়। সামান্য রোজগার দিয়েই বাবার চিকিৎসা ও সংসারের ন্যূনতম চাহিদা পূরণের চেষ্টা করে আসছে ইউসুফ। 

গত ২৬ ডিসেম্বর ইউসুফ স্থানীয় বাজার থেকে উপজেলা সদরে যাওয়ার সময় সড়ক দুর্ঘটনায় মারাত্মকভাবে আহত হয়। তার মাথা ফেটে মগজ বেরিয়ে যায়। দ্রুত তাকে চাঁদপুর সদর হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসকরা ঢাকায় নিয়ে আসতে বলেন। বর্তমানে সে রাজধানীর কাকরাইল ইসলামী ব্যাংক সেন্ট্রাল হাসপাতালের ১০৩৮ নং বিছানায় নিউরো সার্জন অধ্যাপক ডা. রেজাউল করিম খানের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

চিকিৎসক জানালেন, ইউসুফের মস্তিস্কে বড় ধরনের রক্তক্ষরণ হয়েছে। বোধ না থাকায় পিঠেও পচন ধরেছে। তার দুটি অপারেশন করাতে হবে। এ জন্য প্রায় তিন লাখ টাকা প্রয়োজন। ইউসুফের মা পিয়ারা জানালেন, বাড়িতে একটি গরু ছিল। এটি বিক্রি করে তা দিয়েই এত দিন ওষধ কিনেছি। এখন চিকিৎসা খরচ চালানোর মতো আর কোনো উপায় দেখছি না। আমার জীবনের একমাত্র সম্বল এ ছেলেটি। তাকে বাঁচানোর জন্য কোনো হৃদবান ব্যক্তি যদি সাহায্যের হাত নিয়ে এগিয়ে আসেন আমরা চির কৃতজ্ঞ থাকব।

সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা : পিয়ারা বেগম, ইসলামী ব্যাংক সেন্ট্রাল হাসপাতাল, কাকরাইল, ঢাকা। বিছানা নং ১০৩৮। ফোন : ০১৮২১১৬২০৫০ এবং বিকাশ নং ০১৮১২২৮৯৮৪৯ ও ০১৮১৭৫৭৯০১০।

অ্যাকাউন্ট নং– ডাচ-বাংলা ব্যাংক লি. ২৪৬১৫১১১৯৯১, নাম মো. মেহেদী হাসান (ইউসুফের আত্মীয়)।

Advertisement