Beta

আটকের জন্য ওত পেতে ছিল পুলিশ : রিজভী

১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:০৫

নিজস্ব সংবাদদাতা
কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির নেতা রুহুল কবির রিজভী। ছবি : এনটিভি

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী অভিযোগ করে বলেছেন, ‘সারা দেশে বিএনপিকে মানববন্ধনের অনুমতি দিলেও দলের নেতাকর্মীদের আটক করার জন্য ওত পেতে ছিল পুলিশ।’

আজ সোমবার বিকেলে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত জরুরি সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন রুহুল কবির রিজভী।

কারাবন্দি বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও তাঁর নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে পূর্বঘোষিত মানববন্ধন কর্মসূচি থেকে এদিন ঢাকাসহ সারা দেশে এ পর্যন্ত বিএনপির দুই শতাধিক নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন রিজভী।

রিজভী বলেন, ‘জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করতে আসা নেতাকর্মীদের সরকারের আজ্ঞাবহ পুলিশ বাহিনী বিনা উসকানিতে আটক করে। এ ছাড়া সারা দেশে বিএনপি ও অঙ্গ-সংগঠনের প্রায় দুই শতাধিক নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে। বিএনপির নির্বাহী কমিটির সহজলবায়ু বিষয়ক সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, নির্বাহী কমিটির সদস্য আব্দুল মতিন ও যুবদল ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সিনিয়র সহসভাপতি শরিফ হোসেনকে প্রেসক্লাবের সামনে থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘সরকার বিদায়ের প্রাক্কালে আতঙ্কিত হয়ে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে দিয়ে বিরোধী দলের কর্মসূচির ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছে। দলমন্য কিছু সংখ্যক পুলিশকে ব্যবহার করে সমগ্র পুলিশ বাহিনীকেই বিতর্কিত করছে। পুলিশকে জনগণের বিরুদ্ধে ব্যবহার করে তাদের ভাবমূর্তিকে চরম কালিমালিপ্ত করা হচ্ছে। পুলিশের ওপর জনগণের আস্থা এখন শূণ্যের কোঠায়। পুলিশ এখন আইনের লোক হওয়ার বদলে আওয়ামী লীগের লোক হওয়ার কারণে কবর থেকে উঠে আসা লাশের বিরুদ্ধে পুলিশকে উদ্দেশ্য করে ককটেল ছুঁড়ে মারার মামলা দেওয়া হয়। এ ছাড়া বাদী আসামিকে না চিনলেও পুলিশ আসামির বিরুদ্ধে চাঁদাবজির মামলা দেয়, ঘটনা না ঘটলেও অগ্রিম মামলা হয় থানায়।’

সাবেক এ ছাত্রনেতা বলেন, ‘এখন সারা দেশে বিরোধী দলের নেতাকর্মীরা গায়েবি নাশকতার মামলার আসামি হচ্ছে। এসব করে সরকার বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার পাহাড় তৈরি করছে। মূঢ় অহঙ্কার ও উন্মত্তায় বিচার বুদ্ধি হারিয়ে পুলিশকে লেলিয়ে দেওয়া হয়েছে বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলোর শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির ওপর। আজকেও রাজধানীসহ সারাদেশে বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির ওপর হামলে পড়েছে সরকারি বাহিনী। আজকে বিএনপির কর্মসূচির ওপর পুলিশের আক্রমণ নৃশংস দস্যুতার নামান্তর মাত্র। কিন্তু এসব করে সরকারের শেষ রক্ষা হবে না। যতই ট্রেন ও লঞ্চে চড়েন না কেন ডুবন্ত নৌকাকে আর ভাসানো যাবে না। ছলচাতুরী আর নিপীড়ন-নির্যাতনের অবসান হতে আর বেশিদিন সময় নেই।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, সহদপ্তর সম্পাদক মুনির হোসেন, তাইফুল ইসলাম টিপু, যুবদলের কেন্দ্রীয় নেতা গিয়াস উদ্দীন মামুন।

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement