Beta

সেভেন মার্ডার : খাগড়াছড়িতে মানবাধিকার কমিশন

২৭ আগস্ট ২০১৮, ১৮:১০ | আপডেট: ২৭ আগস্ট ২০১৮, ১৯:৩৫

খাগড়াছড়ির সদর উপজেলার স্বনির্ভর বাজার এলাকায় সাতজনকে হত্যার ঘটনা তদন্তে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের একটি প্রতিনিধিদল আজ সোমবার সকালে সেখানে পৌঁছেছে। ছবি : এনটিভি

দুটি আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলের মধ্যে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে খাগড়াছড়ির সদর উপজেলার স্বনির্ভর বাজার এলাকায় সাতজনকে হত্যার ঘটনা তদন্তে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের একটি প্রতিনিধিদল সেখানে পৌঁছেছে।  

কমিশনের তিন সদস্যের প্রতিনিধিদলটি দুদিনের সফরের অংশ হিসেবে আজ সোমবার ঘটনাস্থল স্বনির্ভর বাজার এলাকা পরিদর্শন করেন।

প্রতিনিধিদলে রয়েছেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের তথ্য ও অনুসদ্ধান কমিটির আহ্বায়ক নুরুন নাহার ওসমানি, কমিশনের সদস্য বঞ্চিতা চাকমা ও রবিউল ইসলাম।

এ সময় সেখানে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা তদন্তে খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসনের গঠিত তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক অতিরিক্ত জেলা হাকিম (এডিএম) আবু ইউছুফ ও সদস্য সচিব সৈয়দ শামছুল তাবরীজ উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিনিধিদলের সদস্যরা স্থানীয় ব্যবসায়ী, ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের  (ইউপিডিএফ-প্রসিত খিসা) সমর্থিত দলের নেতাকর্মী, স্থানীয় জনগণের কাছ থেকে ঘটনার দিনের বর্ণনা শুনেন। পরে বিকেলে তাঁরা এ ব্যাপারে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজুরি চৌধুরী'র বক্তব্য শুনেন। প্রতিনিধিদলের সদস্যদের খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও জেলা পুলিশ সুপারের (এসপি) সঙ্গে কথা বলারও কথা রয়েছে।

স্বনির্ভর এলাকা পরিদর্শনকালে প্রতিনিধিদলের আহ্বায়ক নুরুন নাহার ওসমানি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা বিষয়টির তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে মানবাধিকার চেয়ারম্যানের কাছে একটি প্রতিবেদন জমা দেব।’

গত ১৮ আগস্ট সকালে সদর উপজেলার স্বনির্ভর বাজার এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে গোলাগুলির সময় ছয়জন নিহত হন। এ সময় গুলিবিদ্ধ হন আরো তিনজন। একইদিন এই ঘটনার প্রতিবাদে আরেকটি সমাবেশে হামলায় আরো একজন নিহত হন।

নিহতরা সবাই ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের (ইউপিডিএফ-প্রসিত খিসা) সদস্য বলে দাবি করেছেন দলটির কেন্দ্রীয় সংগঠক ও জেলা সমন্বয়কারী মাইকেল চাকমা। তিনি এ ঘটনার জন্য পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (জেএসএস-এম এন লারমা) গ্রুপকে দায়ী করেছেন।

যদিও এ ঘটনার সঙ্গে নিজেদের কোনো ধরনের সম্পৃক্ততা অস্বীকার করেছেন জেএসএস-এম এন লারমার নেতারা।

ঘটনা তদন্তে অতিরিক্ত জেলা হাকিম (এডিএম) আবু ইউসুফকে আহ্বায়ক এবং খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ মো. শামছুল তাবরীজকে সদস্য সচিব করে পাঁচ সদস্যের এ তদন্ত  কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন—খাগড়াছড়ির সহকারী পুলিশ সুপার আবদুল আওয়াল, খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক নয়নময় ত্রিপুরা, খাগড়াছড়ি ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপসহকারী পরিচালক জসিম উদ্দিন মজুমদার।

ঘটনার দুদিন পর ২০ আগস্ট সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) গৌতম চন্দ্র সরকার বাদী হয়ে  অজ্ঞাত ২০-২৫ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন।

সাম্প্রতিক সময়ে পাহাড়ে আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে অন্ত:কোন্দলের জের ধরে বেশ কয়েকজন রাজনৈতিক নেতাকর্মীকে হত্যার ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছে পার্বত্য তিন জেলায়। আতঙ্ক বিরাজ করছে পাহাড়ের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মানুষের মনে।

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement