Beta

ভুলে ভরা স্মার্টকার্ড পেল মৌলভীবাজারবাসী

১২ আগস্ট ২০১৮, ২৩:০৮

এস এম উমেদ আলী, মৌলভীবাজার
স্মার্টকার্ডে মৌলভীবাজার জেলার ইংরেজি বানান ভুল হয়েছে। ছবি : সংগৃহীত

দ্বিতীয় ধাপে গত বুধবার থেকে মৌলভীবাজারসহ ২৭টি জেলায় স্মার্টকার্ড বিতরণ শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। কিন্তু নামের ভুল, ঠিকানাসহ হরেক রকম ভুলের স্মার্টকার্ড পাচ্ছে মৌলভীবাজারবাসী। এসব ভুল ছাড়াও সবাই জেলার ইংরেজি নামের ভুল বানানের স্মার্টকার্ড পাচ্ছে। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করছে জেলার বাসিন্দারা।

নির্বাচন অফিস জানায়, ইসি থেকে মৌলভীবাজার জেলায় দুই লাখ ২২ হাজার ৮৫২টি স্মার্টকার্ড প্রিন্ট হয়ে এসেছে। যার সব কয়টিতে ইংরেজি মৌলভীবাজার বানানটি ভুল রয়েছে। যেখানে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসনসহ সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে লেখা হয় Moulvibazar। কিন্তু নির্বাচন কমিশনের বিতরণ করা স্মার্টকার্ডে রয়েছে লেখা রয়েছে Maulvibazar।

জেলার বানানে ভুলে আসায় জেলাজুড়ে চলছে সমালোচনা। নির্বাচন কমিশনের দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের এ ধরনের ভুল নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

একটি স্মার্টকার্ডে দেখা যায়, ‘রেখা রানী দাশ’ নামের এক নারীর জাতীয় পরিচয়পত্রে বাবার নাম ছিল শ্যামা দাশ। স্মার্টকার্ডে ‘শ্যামা’ কেটে শুধু এসেছে দাশ।

আবদুল করিম নামের একজনের স্মার্টকার্ডের পেছনের দিকে ঠিকানায় লেখা রয়েছে মুসরিম কোয়াটার, হবে মুসলিম কোয়াটার। আর তাঁর জন্মস্থানের জায়গায় মৌলভীবাজার না লিখে দেওয়া হয়েছে চাঁদপুর।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, নির্বাচন কমিশনে যারা কাজ করছে তাদের অবহেলার কারণে এ ধরনের ভুল হয়েছে। সরকারের এত টাকা ব্যয় করে বানানো স্মার্টকার্ডটিতে জেলার নাম, ব্যক্তির নাম, পিতা ও মাতার নাম ভুল রয়েছে। যেখানে নির্বাচন কমিশন বলছে, জাতীয় পরিচয়পত্রের ডাটা ট্রান্সফার করে স্মার্টকার্ডে যোগ করা হয়েছে। সেখানে কী করে একজন ব্যক্তির বাবার নাম পরিবর্তন হয়, জেলার নাম পরিবর্তন হয়। এ ধরনের ভুল কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।

জেলার বানান ভুলের সত্যতা নিশ্চিত করে মৌলভীবাজার জেলার নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মোখলেছুর রহমান বলেন, আমরা বিষয়টি নিয়ে ঢাকায় নির্বাচন কমিশনারের কার্যালয়কে অবহিত করেছি। ঢাকা থেকে যে সিদ্ধান্ত জানাবে, সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জেলায় স্মার্টকার্ড বিতরণের প্রক্রিয়াটি অব্যাহত থাকবে।

এ বিষয়ে মৌলভীবাজার পৌরসভার মেয়র মো. ফজলুর রহমান জানান, সংশোধন না হলে প্রতিটা পদক্ষেপে ভোগান্তি পোহাতে হবে এ জেলার মানুষের। এসব গুরুত্বপূর্ণ বিষয় কীভাবে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টির আড়াল হলো। আগের জাতীয় পরিচয়পত্রগুলো ভুলে ভরা ছিল। এবার সারা জেলাকে ভুল করে দিল।

জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম এনটিভি অনলাইনকে বলেন, ‘আমরা সফটওয়ারে মৌলভীবাজার বানানটি ঠিক করে দিয়েছি। এ জন্য কেউ ভোগান্তির শিকার হবে না। এরপরও যদি কেউ চান তাহলে নতুন কার্ড করে নিতে পারবেন।’

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement