Beta

খুন্তির ছ্যাঁকা আর গরম পানি ঢেলে নির্যাতন!

২৩ জুলাই ২০১৮, ০৯:১৮ | আপডেট: ২৩ জুলাই ২০১৮, ১০:২৮

ছ্যাঁকা দিয়ে, গরম পানি ঢেলে মাহির ওপর নির্যাতন করা হয়। ছবি : এনটিভি

মাহির বয়স মাত্র আট। ওর বাবা-মা নেই। মাহির দুই চোখের নিচের অংশ বেশ ফুলে আছে। ডান হাতে বেশ বড়সড় একটা দাগ। মারধর করার পর খুন্তি দিয়ে ছ্যাঁকা দেওয়া হয় তার হাতে! গায়ে ঢেলে দেওয়া হয় গরম পানি!

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার পূর্ব ইসদাইর এলাকার একটি বাসায় কাজ করত মাহি। তিন মাস ধরে ওই বাসায় কাজ করত সে। আর তখন থেকেই শিশুটিকে নিয়মিত মারধর করত ওই বাসায় থাকা দম্পতি।

গত শুক্রবার মধ্যরাতে মাহিকে মারধর করে ডান হাতে খুন্তির ছ্যাঁকা দেওয়া হয়। শুধু তাই না, শিশুর গায়ে গরম পানি ঢেলে দেয় ওই দম্পতি। আতাউল্লাহ খোকন ও ঊর্মি আক্তার নামের ওই দম্পতিকে আটক করেছে পুলিশ। গত শনিবার তাদের আটক করা হয়।

স্থানীয় বাসিন্দারা মাহিকে উদ্ধার করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে।

নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘মাহির বাবা-মা নেই। নির্যাতনের খবর পেয়ে ফতুল্লা থানা পুলিশ শিশুটিকে উদ্ধার করছে। নির্যাতনের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ঊর্মি আক্তার ও আতাউল্লাহ খোকনকে আটক করা হয়েছে। তিন মাস আগে এই দম্পতি মাহিকে তাদের বাসায় কাজ করার জন্য নিয়ে আসে।’

মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘ওই দম্পতি দীর্ঘদিন ধরেই মেয়েটিকে অমানবিক নির্যাতন করছিল। মাহিকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি ওই দুজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। ’

শিশুটি এখন পুলিশের হেফাজতে আছে। তার স্বজনদের খোঁজ পাওয়া যায়নি। পাওয়া গেলে শিশুটিকে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে পুলিশ জানায়।

জাকির হোসেন নামের স্থানীয় বাসিন্দা বাদী হয়ে ফতুল্লা থানায় একটি মামলা করেছেন। মামলাটি করে আসামিদের আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ। গতকাল রোববার আদালতে শিশুটির জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement