বাংলাদেশের ভর্তায় মাতল কলকাতা

২১ আগস্ট ২০১৬, ২৩:১০

পশ্চিমবাংলায় বাংলাদেশি খাবারের জনপ্রিয়তা সবসময়ই তুঙ্গে। পশ্চিমবাংলার খাদ্য রসিকদের কাছে বাংলাদেশের হরেক রকমের খাবারের জনপ্রিয়তা সবসময়। সেই জনপ্রিয়তা ফের  পাওয়া গেল কলকাতায় অনুষ্ঠিত বাংলাদেশের ‘ভর্তাকাহন’ অনুষ্ঠানে।

আজ রোববার দুপুরে কলকাতার গলফগ্রিন উদয় সদনে বাংলাদেশের বিভিন্ন পদের ভর্তা নিয়ে অনুষ্ঠিত হলো ‘ভর্তাকাহন’ উৎসব। যে উৎসবের মধ্যমণি ছিল বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের হরেক রকমের ভর্তা।

কলকাতার সোমনাথ রায় চৌধুরীর পরিচালনায় এই ভর্তাকাহন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে বাংলাদেশ থেকে এসেছেন নয়না আফরোজ। তিনি জানান, বাংলাদেশের মোট নয় রকমের ভর্তা এদিন পরিবেশন করা হয়েছে। তবে এই অনুষ্ঠানের অয়োজনের কথা তিনি তাঁর সোশ্যাল নেটওয়ার্ক সাইটে ঘোষণা করতেই ব্যাপক হারে সাড়া পেয়েছিলেন। এদিন অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের ভর্তা খেয়ে কলকাতার মানুষ অনেক প্রশংসা করেছেন বলেও জানান তিনি।

নয়না আফরোজ জানান,বাংলাদেশ ভর্তার মধ্যে মূল আইটেম ছিল,কালোজিরা,তিলবাদাম, কাচকলার খোসা, কাঁঠাল বিচি, কচু, ইলিশ-কুমড়া, লাউ-বাতাসা সঙ্গে টাকি (কলকাতার ল্যাঠা) মাছ, চিংড়ি ভর্তা, ডিম ভর্তা। নয়না বলেন,‘আমি কলকাতার মেয়ে। এখন বাংলাদেশের বউ। আর বাংলাদেশে গিয়েই এই ধরনের ভর্তা করা শিখেছি।’

একদিনের এই খাদ্য উৎসবে শামিল হন কলকাতার বহু মানুষ। বাংলাদেশের এই ধরনের নানা পদের ভর্তা খেয়ে স্বভাবতই প্রশংসায় পঞ্চমুখ কলকাতার মানুষ। মাটির থালায় করে আদি বাঙালি ঘরানায় পরিবেশিত এই একদিনের  বাংলাদেশের ভর্তা সমৃদ্ধ খাদ্য উৎসব ‘ভর্তাকাহন’ রীতিমতো কলকাতার বুকে সাড়া ফেলে দিয়েছে।