Beta

সৌদি আরবে বিদেশি নারী চালক নেওয়ার পরিকল্পনা

০১ অক্টোবর ২০১৭, ১৮:৫৬ | আপডেট: ০১ অক্টোবর ২০১৭, ১৯:১৪

আরব নিউজ

সৌদি আরবের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, পরিবারগুলো বিদেশ থেকে নারী চালক নেওয়ার চিন্তা করছে। সপ্তাহখানেক আগেই সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান নারীদের গাড়ি চালানোর অনুমতি দিয়েছেন।

জেদ্দায় আরাফাত রিক্রুটমেন্ট নামের একটি প্রতিষ্ঠানে এজেন্ট আলম রাজাক বলেন, সরকারি বিধানে দেওয়া হলে বিদেশি নারী চালক নিয়োগ দেওয়ার ক্ষেত্রে দীর্ঘ সময় লাগবে। এটা করলে গণপরিবহন ব্যবস্থার উন্নয়ন এবং নারী ও শিশুদের সুবিধা হবে। তিনি বলেন, নিয়োগকারী সংস্থা ও ব্যবসায়িক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান নতুন বিধানের অপেক্ষায় আছে, আগামী কয়েক মাসের মধ্যে এটা প্রকাশিত হবে।

আলম রাজাক বলেন, সাধারণভাবে নারীরা গাড়ি চালালে বিদেশি চালকের ওপর নির্ভরতা কমে যাবে। বর্তমানে সৌদি আরবে বিদেশি গাড়িচালক ১৩ লাখের বেশি।

গাড়ি ভাড়াবিষয়ক অ্যাপ কারিমের সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী আবদুল্লাহ ইলিয়াস আশা প্রকাশ করেন, এই ব্যবসা আরো বিকশিত হবে। তিনি বলেন, ‘সরকারের এ সিদ্ধান্ত কারিমের মতো রেন্ট-এ-কার বা আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের ওপর প্রভাব ফেলবে না।’ সৌদি আরবের গাড়ি চালানোর জন্য কারিম এক লাখ নারী কর্মচারী নিয়োগ দেওয়ার পরিকল্পনা করছে।

সৌদির বিশিষ্ট আলেম ও সমাজসেবী হুসেইন জুলকারনাইন বলেন, ‘এটার (নারী চালক অনুমোদন) আরেকটা ভালো দিক হলো স্কুল ও বিশ্ববিদ্যালয়ে মেয়েদের আনা-নেওয়ার জন্য বিদেশি দক্ষ নারী চালকদের নিয়োগ দেওয়া যেতে পারে।’

ওই আলেম বলেন, ‘পুরুষের চেয়ে ভালো করবে। নারীরা বাড়িতে থাকতে পারবে এবং গৃহস্থালি কাজে সহায়তা করতে পারবে। এ জন্য আলাদা গৃহকর্মীর প্রয়োজন হবে না।’

সৌদির নারী ব্যবসায়ী নোরা আল-হামদান বলেন, নারীরা গাড়ি চালাতে শুরু করলে পরিস্থিতি খুব শিগগিরই নারীবান্ধব হয়ে যাবে। এজন্য দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে হবে। আর প্রতিদিনই পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে।’

Advertisement
0.79491400718689