দাদিকে ডাইনি সাব্যস্ত, মাথা কেটে গ্রাম ঘুরল নাতি!

১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ১৮:২৬

কলকাতা সংবাদদাতা

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে তান্ত্রিক ডাইনি আখ্যা দেওয়ায় ৬৫ বছর বয়সী দাদির মাথা কেটে নিয়ে গোটা গ্রাম ঘুরেছে তাঁরই নাতি। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার ঝাড়গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

ওই নাতির নাম রাধাকান্ত বেরা। পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, রাধাকান্ত এক মাস আগে মানসিক রোগে অসুস্থ হয়ে পড়ে। এরপর তাকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয় উড়িষ্যার এক তান্ত্রিকের কাছে। তান্ত্রিক নিদান দেন, রাধাকান্তের দাদি চেপি বেরা আসলে ডাইনি। তার কারণেই রাধাকান্ত অসুস্থ হয়ে পড়েছে।

তান্ত্রিকের কাছ থেকে এসব কথা শোনার পর রাধাকান্ত দাদির ওপর চটে যায়। কিছুদিনের মধ্যে ওই নাতিও বিশ্বাস করে, তার দাদি আসলেই ডাইনি। এর পর থেকে তার শরীর একটু খারাপ হলেই দাদিকে গালাগালি করত।

বৃহস্পতিবার স্থানীয় বাজার থেকে মুড়ি ও চপ কিনে নিয়ে বাড়িতে যায় রাধাকান্ত। তারপর সেই মুড়ি ও চপ খাওয়ানোর কথা বলে দাদিকে বাড়ির পাশে একটি দেবতার থানে (যেখানে হিন্দু দেবদেবীর পুজো হয়) নিয়ে যায়। সেখানে যাওয়ার পর দাদিকে তার পা ধরে ক্ষমা চাইতে বলে। কিন্তু এতে ওই বৃদ্ধ রাজি না হওয়ায় তাকে খুন করার হুমকি দেয়। তবুও তিনি পা না ধরায় রাধাকান্ত হঠাৎ টাঙ্গি (কুড়ালজাতীয় অস্ত্র) বের করে দাদির মাথা গলা থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে। পরে রক্তমাখা মাথা নিয়ে গোটা গ্রাম ঘুরে বেড়ায়।

এই ঘটনায় গ্রামের মানুষ প্রথমে ভয় পেয়ে যায়। পরে তারা একত্রিত হয়ে রাধাকান্তকে ধাওয়া দিলে সে রক্তমাখা মাথা ফেলে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ রাধাকান্তকে আটক করে।

পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) ভারতী ঘোষ জানান, বৃহস্পতিবার রাতেই রাধাকান্ত বেরাকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনার তদন্ত শুরু করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে, রাধাকান্ত মানসিকভাবে অসুস্থ।