অভিনয় আমার একমাত্র সাধনা : তমালিকা কর্মকার

২৯ অক্টোবর ২০১৫, ১১:১৬

‘অভিনয় আমার একমাত্র ধ্যান-ধারণা। আমার সারা জীবনের সাধনা ছিল আমি অভিনয় করে যাব। আর অন্য কিছুতে আমার মনোযোগ নেই। নাটক পরিচালনা করার জন্য অনেকে আমাকে বলেছেন। কিন্তু আমি আগ্রহ পাইনি। কেন আমি পরিচালনা করব? কারণ আমি তো লাইট-ক্যামেরা কীভাবে পরিচালনা করতে হয় তা-ই জানি না। শুধু শুধু দর্শকদের ধোঁকা দেওয়ার কোনো মানে হয় না। এখন তো অনেকেই ভালো একজন ক্যামেরাম্যান নিয়ে কাজ করে পরিচালক হন। অথচ তাঁদের পরিচালনা করার কোনো যোগ্যতাই নেই।’ কথাগুলো বলছিলেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী তমালিকা কর্মকার। গত মঙ্গলবার চয়নিকা চৌধুরীর পরিচালনায় ‘দমকা হাওয়া’ নাটকের শুটিং করছিলেন গুণী এই অভিনেত্রী।

তমালিকা কর্মকার তিন বছর বয়সে প্রথম ক্যামেরার সামনে দাঁড়ান। শিশুশিল্পী হিসেবেও পেয়েছেন অনেক সম্মাননা ও পুরস্কার। দীর্ঘদিন ধরে  মঞ্চ ও টিভি নাটকে অভিনয় করছেন তিনি। চলচ্চিত্রেও ছিল তাঁর পদচারণা। ২০০০ সালে ‘কীর্তনখোলা’ ছবিতে অভিনয় করে অর্জন করে নিয়েছেন জাতীয়  চলচ্চিত্র পুরস্কারও। সব সময় স্পষ্ট ভাষায় কথা বলতে পছন্দ করেন তিনি। সময়ের প্রতি তিনি নিষ্ঠাবান। শুটিংয়ের সময় কখনো তিনি দেরি করেননি। প্রতিটি কাজ সততার সঙ্গে করেছেন। এভাবেই নিজেকে মূল্যায়ন করছিলেন তমালিকা। আমৃত্যু অভিনয়ের সঙ্গে নিজেকে ধরে রাখতে চান বলে জানান গুণী এই অভিনয়শিল্পী। যশ-খ্যাতি পাওয়ার চেয়ে মানুষের ভালোবাসা অর্জন করাই তাঁর একমাত্র লক্ষ্য।

তমালিকা কর্মকার আরো বলেন, ‘আমি যখন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছি তখন আসলে আমি বুঝতাম না পুরস্কারের গুরুত্ব কতখানি। আমার কাছে পুরস্কার মুখ্য নয়। বরং সারা জীবন আমি চেয়েছি মানুষের ভালোবাসা ও সম্মান।’

 দীর্ঘদিন ধরে অভিনয় করছেন। অভিনয় বলতে মূলত আপনি কী বোঝেন? জানতে চাইলে তমালিকা কর্মকার বলেন, ‘কোনো কিছু সহজ করে ফুটিয়ে তোলাই হলো অভিনয়। অভিনয় যেন ঢং করে কথা বলা না হয়। যথাযথ অভিনয় করতে হলে চরিত্রের সঙ্গে মিশে যেতে হবে। সেই চরিত্র নিজের মধ্যে লালন করতে হবে। তাহলেই ভালো অভিনয় করা সম্ভব।’