Beta

এনটিভি

ঈদের তৃতীয় দিনে ‘পাঁচ রঙে অপু’

০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৯:২৯ | আপডেট: ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১৫:২৩

ফিচার ডেস্ক
‘পাঁচ রঙে অপু’ অনুষ্ঠানে নাচ পরিবেশন করছেন অপু বিশ্বাস। ছবি : সাইফুল সুমন

ঈদ উপলক্ষে এনটিভিতে চলছে টানা সাতদিনের আয়োজন। আগামীকাল সোমবার ঈদের তৃতীয় দিন এনটিভিতে বিশেষ নাটক ছাড়াও প্রচারিত হবে বিশেষ অনুষ্ঠান ‘আমার বসন্তে তোমার নিমন্ত্রণ’। এ ছাড়া থাকছে নায়িকা অপু বিশ্বাসের বিশেষ নৃত্যানুষ্ঠান ‘পাঁচ রঙে অপু’।  চলুন দেখে নিই, ঈদের তৃতীয়  দিনে আরো কী থাকছে এনটিভির আয়োজনে।

বিশেষ টেলিফিল্ম ব্যাচ ২৭ : দ্য লাস্ট পেজ

দুপুর ২টা ২০ মিনিটে প্রচারিত হবে ঈদের বিশেষ টেলিফিল্ম ‘ব্যাচ ২৭ : দ্য লাস্ট পেজ’। মিজানুর রহমান আরিয়ানের রচনা ও পরিচালনায় এতে অভিনয় করেছেন অপূর্ব, মিথিলা, মেহজাবীন, কায়েস চৌধুরী, মিলি বাশার, আনন্দ খালেদ প্রমুখ।

টেলিফিল্মের গল্পে দেখা যাবে, অয়ন আগের সবকিছু ভুলে আবার নিজের জীবন গুছিয়ে নেয়। এয়ারপোর্ট, বাসা, মা আর বন্ধুদের নিয়ে তার জীবন চলতে থাকে। বন্ধুর সঙ্গে গাজীপুরের এক রিসোর্টে বেড়াতে গিয়ে পরিচয় হয় সায়রার সঙ্গে। একসময় পরিবারের সম্মতিতে বিয়ে ঠিক হয় অয়ন ও সায়রার। দুজনের মাঝে ভালোলাগা বাড়তে থাকে। এমন সময় জেরিনকে এয়ারপোর্টে দেখে অয়ন। জেরিনের বাবার কাছ থেকে জানতে পারে, সিঙ্গাপুরে একটি বিমান ভিয়েতনাম যাওয়ার পথে উধাও হয়ে যায়। সেই বিমানের পাইলট ছিল জেরিনের স্বামী। আবার অয়নের সবকিছু এলোমেলো হয়ে যায়। সে জেরিনের পাশে দাঁড়াতে চায়। সায়রার কাছ থেকে দূরে সরতে থাকে অয়ন। জেরিন জেনে যায় যে, সায়রার সঙ্গে বিয়ে ঠিক হয়ে আছে অয়নের। অয়নের জীবন থেকে সরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় জেরিন।

বিশেষ অনুষ্ঠান : আমার বসন্তে তোমার নিমন্ত্রণ

বিকেল ৫টা ১৫ মিনিটে প্রচারিত হবে বিশেষ অনুষ্ঠান ‘আমার বসন্তে তোমার নিমন্ত্রণ’। পারিহার উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানটি প্রযোজনা করেছেন কাজী মোহাম্মদ মোস্তফা। অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছেন সুজাতা, ইলিয়াস কাঞ্চন ও  নাবিলা।

৭ পর্বের ধারাবাহিক রূপকথার গল্প : যুবরাজ

সন্ধ্যা ৬টা ১০ মিনিটে প্রচারিত হবে সাত পর্বের বিশেষ ধারাবাহিক রূপকথার গল্প ‘যুবরাজ’-এর প্রথম পর্ব। মূল পরিকল্পনা, গল্প ভাবনা ও উপদেষ্টা পরিচালক হিসেবে আছেন এস এম সালাহউদ্দিন। চিত্রনাট্য ও সংলাপ রচনা করেছেন আফরোজ রায়হান। আতিকুর রহমান বেলালের পরিচালনায় নাটকটির পর্ব পরিচালনা করেছেন মাকসুদুল হক ইমু।

 মূল চরিত্রগুলোতে অভিনয় করেছেন রিয়াজ, নিলয়, আজমেরি আশা, প্রমা আজিজ, আতাউর রহমান, ইলোরা গহর প্রমুখ।

নাটকের গল্পে দেখা যাবে, ছোট জাতের জিন রন্ধলকে ভালোবাসার অপরাধে পরীস্থান থেকে নির্বাসিত হয় রানির ছোট বোন ইস্তা। তারই অভিশাপে পরী থেকে বানরে রূপান্তরিত হয় রাজকুমারী। ১৮ বছর বয়সের মধ্যে কারো সত্যিকারের ভালোবাসা পেলে তবেই সে তার পূর্ব রূপ ফিরে পাবে। একদিন বঙ্গ সুন্দরের ছোট যুবরাজের ভালোবাসার তীর সেই বানরের কাছে পতিত হলে যুবরাজ তাকে রাজপ্রাসাদে নিয়ে যান। যুবরাজরা সাত ভাই ছিলেন। ভালোবাসার তীর নিক্ষেপ করে প্রত্যেকেই তাঁদের জীবনসঙ্গীকে খুঁজে পেয়েছেন। তাঁদের সবাই কোনো না কোনো মানবকন্যা। একমাত্র ছোট যুবরাজ এই বানরটাকে সঙ্গী করেই তাঁর বাকি জীবন কাটিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। রাজা, রানি, মন্ত্রীসহ বাকি ছয় ভাই তাঁকে অনেক বোঝান। কিন্তু ছোট যুবরাজ তাঁর সিদ্ধান্তে অটল।

৭ পর্বের ধারাবাহিক নাটক : অ্যাব-নরমাল

সন্ধ্যা ৬টা ৫০ মিনিটে প্রচারিত হবে সাত পর্বের বিশেষ ধারাবাহিক নাটক ‘অ্যাব-নরমাল’-এর প্রথম পর্ব। মাসুদ সেজানের রচনা ও পরিচালনায়  নাটকটিতে  অভিনয় করেছেন  মাহফুজ আহমেদ, মেহজাবীন চৌধুরী, মিশু সাব্বির, ডা. এজাজ, শামীমা নাজনীন, সিফাত শাহিন, আল আমিন সবুজ, শহীদ উন নবী, মিষ্টি মারিয়া, মুনিয়া ইসলাম, তন্দ্রা, রিমি করিম, শফিক মুক্তা প্রমুখ। নাটকের গল্পে দেখা যাবে, তোফা সবকিছুতেই তার বউকে সন্দেহ করে। বউ এ্যানি এটা কিছুতেই মেনে নিতে পারছে না। প্রতিনিয়ত সব কাজের ব্যাখ্যা দিতে দিতে সে ক্লান্ত। সত্য কথা বললেও সেটা মানতে পারছে না তোফা। একসময় এ্যানি তাকে অ্যাব-নরমাল বলে তিরস্কার করলে তোফা চুপ হয়ে যায়। তোফার সন্দেহ হয়, আসলেই সে অ্যাব-নরমাল হয়ে যাচ্ছে কি না! তার পরিচিত মানুষগুলো কি ভালো আছে।

বিশেষ নাটক : মেঘ বৃষ্টি রোদ

রাত ৮টা ৫ মিনিটে প্রচারিত হবে বিশেষ নাটক ‘মেঘ বৃষ্টি রোদ’। শাহরিয়ার আদনানের রচনায় নাটকটি পরিচালনা করেছেন কৌশিক শংকর দাশ। অভিনয় করেছেন রিয়াজ, ফারহানা মিলি, শনারৈ দেবী শানু, শ্যামল মাওলা প্রমুখ।

নাটকের গল্পে দেখা যাবে, জারা সিনেমার নায়িকা, তানভীর একটা অ্যাড ফার্মে চাকরি করে। অথচ একসময় সে ছিল জাতীয় দলের ক্রিকেটার। ইনজুরির কারণে দল থেকে ছিটকে পড়ে। জারা ও তানভীর বিবাহিত জীবনের সতেজতা হারিয়েছে বহুদিন আগেই। নায়িকা জারার ব্যস্ততা যেন দিন দিন বেড়েই চলেছে। জারা আর তানভীরের একমাত্র ছেলে আপন। একটা দুর্ঘটনাকে কেন্দ্র করে নীরার সঙ্গে দেখা হয় তানভীরের। নিরাও ব্যক্তিগত জীবনে ভীষণ অসুখী। নীরার স্বামী সাব্বির মদ্যপ এবং জবলেস। সবকিছু মিলে নীরা ও তানভীর দুজনেই একটু ভালো থাকার চেষ্টায় মরিয়া হয়ে ওঠে। দুজনের পারিবারিক টানাপড়েন এমন একটা পর্যায়ে এসে দাঁড়ায় যে তানভীর ও নীরা তাদের সব বন্ধন ছিন্ন করতে আর দ্বিধা করে না।

একক নৃত্যানুষ্ঠান : পাঁচ রঙে অপু

এনটিভিতে ঈদের তৃতীয় দিন রাত ৯টা ৫ মিনিটে প্রচারিত হবে একক নৃত্যানুষ্ঠান ‘পাঁচ রঙে অপু’। অনুষ্ঠানটি প্রযোজনা করেছেন মোহাম্মদ নুরুজ্জামান। কোরিওগ্রাফার ইভান শাহরিয়ার সোহাগের নৃত্য পরিকল্পনায় অনুষ্ঠানটিতে একক নৃত্য পরিবেশন করেছেন চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস।

৭ পর্বের ধারাবাহিক নাটক : নবারের প্রেম

রাত ৯টা ৫০ মিনিটে প্রচারিত হবে ধারাবাহিক নাটক ‘নবাবের প্রেম’-এর তৃতীয় পর্ব। বৃন্দাবন দাসের রচনায় নাটকটি পরিচালনা করেছেন সাগর জাহান। অভিনয় করেছেন জাহিদ হাসান, তিশা, ফজলুর রহমান বাবু, আ খ ম হাসান, আরফান আহমেদ, শাহনাজ খুশি, মুনিরা মিঠু, নুসরাত জাহান ডায়না প্রমুখ।

নাটকের গল্পে দেখা যাবে, নবাব আলী একতরফা প্রেমে পরে, ব্যর্থ হয়, তার ভাষায় হিট খায়, তারপর নিজেই তাকে মেন্টাল হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলে। এমন ঘটনা অনেকবার ঘটেছে নবাব আলীর জীবনে। একের পর এক ব্যর্থ হলেও সে হাল ছাড়ে না। নবাব আলী প্রচলিত প্রস্তাবিত বিয়ের বিরোধী, তাই তার বয়স পেরিয়ে গেলেও বিয়ে করা হয়ে ওঠেনি। নবাব আলীর বড়ভাই বাদশা মিয়া অবিবাহিত, বলা যায় চিরকুমার। যৌবনে কাউকে ভালোবেসে না পাওয়ায় সেই বিরহ বয়ে চলেছেন এখনো। ছোট ভাই রাজা প্রেম করে একটি মেয়ের সঙ্গে। কিন্তু মেন্টাল হাসপাতাল ফেরত নবাব আলীর ভালোবাসার দৃষ্টি পড়ে তার ওপর। সৃষ্টি হয় জটিলতা। ওদের একমাত্র বোন সুলতানা। প্রেম করে বিয়ে হয়েছে, তবে তার স্বামী নবাবদের বাড়িতেই ঘরজামাই থাকে।

বিশেষ নাটক : প্রেমের রঙে রাঙানো

রাত ১১টা ১০ মিনিটে প্রচারিত হবে বিশেষ নাটক ‘প্রেমের রঙে রাঙানো’। মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজের রচনা ও পরিচালনায় এই নাটকে অভিনয় করেছেন আফরান নিশো, শবনম ফারিয়া, আব্দুল্লাহ রানা, মনিরা মিঠু, আহসানুল হক মিনু প্রমুখ।

নাটকের গল্পে দেখা যাবে, পুরান ঢাকায় বুড়িগঙ্গার তীর ঘেঁষে এখানকার মানুষের জীবন-জীবিকা। ঢাকাইয়া ভাষায় কথা বলা এখানকার মানুষের পারিবারিক বন্ধন সুদৃঢ় ও ভোজনরসিক। এই পুরান ঢাকারই দুই পরিবারের গল্প নিয়ে নাটকের কাহিনী। একটি পরিবারের কর্তা আব্দুল্লাহ রানা সরকারি কর্মকর্তা। তাঁর স্ত্রী মনিরা মিঠুও স্বামীর মতো পরহেজগার। তাঁদেরই মেয়ে শবনম ফারিয়া হিজাব পরে, নিয়মিত কলেজে যায়। আরেকটি পরিবারের কর্তা আহসানুল হক মিনু। গম্ভীর প্রকৃতির এই মানুষটি নামকরা ব্যবসায়ী তাঁদের ছেলে নিশো পড়াশোনার পাশাপাশি এলাকায় মোটরসাইকেল নিয়ে টো টো করে বেড়ায়। একদিন শবনম আর নিশোর দেখা হয়। প্রেমে পড়ে যায় নিশো।

Advertisement
1.0623421669006