Beta

'পোস্ট গ্র্যাজুয়েট’ নাটকের গল্প সমসাময়িক : রাজ

১৭ জুলাই ২০১৭, ১৫:৩৬ | আপডেট: ২০ জুলাই ২০১৭, ১৪:৫১

নির্মাতা মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ। ছবি : সংগৃহীত

এনটিভিতে প্রতি সপ্তাহের বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার রাত ৮টা১৫ মিনিটে প্রচারিত হচ্ছে ধারাবাহিক নাটক ‘পোস্ট গ্র্যাজুয়েট’। সম্প্রতি মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ পরিচালিত নাটকটির ৪০তম পর্ব প্রচারিত হয়েছে। নাটকটিতে অভিনয় করেছেন চঞ্চল চৌধুরী, ফারহানা মিলি, আজমেরী আশা, বাবর প্রমুখ। নাটকটির বিভ্ন্নি প্রসঙ্গ নিয়ে এনটিভি অনলাইনের সঙ্গে কথা বলেছেন মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ।

এনটিভি অনলাইন : ‘পোস্ট গ্র্যাজুয়েট’ নাটকটির সাড়া কেমন পাচ্ছেন?

মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ : ইতিবাচক সাড়া পাচ্ছি। নাটকটির ৪০তম পর্ব অনেক মজার ছিল। নাটকটি নিয়ে ফেসবুকে নিয়মিত দর্শকদের অনেক খুদে বার্তা ও সুন্দর সুন্দর কমেন্ট পাই। বাইরে দর্শকদের সঙ্গে দেখা হলে নাটকটির প্রশংসাও অনেকে করেন। অনেকেই আবার বলেন,‘ গ্র্যাজুয়েট’ নাটকে জাহিদ হাসান ছিলেন, এখন তিনি নেই কেন? আমি তাঁদের বলি, ‘দেখুন, নাটকে চরিত্রের গতি ও বৈশিষ্ট্যে চঞ্চল চৌধুরীর সঙ্গে জাহিদ হাসানের তেমন কোনো মিল নেই। যেহেতু এটা ‘গ্র্যাজুয়েট’ নাটকের সিক্যুয়েল তাই হয়তো অনেকে ভাবেন, ‘জাহিদ হাসান কোথায়?’

এনটিভি অনলাইন : অনেকেই ভাবেন টেলিভিশনে দর্শক নাটক দেখেন না। এ বিষয়ে আপনার অভিমত কী?

মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ : টেলিভিশনে নাটক দর্শক একবারে দেখে না, বিষয়টা সেরকম নয়। হয়তো তুলনামূলক ভাবে কম দেখে। ইউটিউবে অনেকে নাটক দেখতে এখন আরামবোধ করেন। ‘পোস্ট গ্র্যাজুয়েট’ নাটকটিতে অভিনেতা বাবরের অভিনয়ের অনেক উল্লেখ্যযোগ্য দৃশ্য ভাইরাল হয়েছে। দর্শক নাটক না দেখলে এমনটা হওয়ার কথা নয়।

এনটিভি অনলাইন : নাটকটির শুটিংয়ের প্রস্তুতি আপনার কেমন থাকে?

মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ : ‘পোস্ট গ্র্যাজুয়েট’ নাটকের গল্প সমসাময়িক। অনেক সময় শুটিং স্পটে এসেও নাটকের চিত্রনাট্য আমি লিখি। এর কারণ, আমাদের সমাজে এখন নিয়মিত যে ঘটনাগুলো ঘটছে সেই বিষয়গুলো নাটকে আমি ফোকাস করি। সমসাময়িক বিষয়গুলো বেশি করে ফুটিয়ে তোলার জন্য অনেক সময় কিছুদিন আগের লেখা চিত্রনাট্য বদল করতে হয়।

এনটিভি অনলাইন : শুনলাম নাটকের একটি সংলাপ অনেক জনপ্রিয় হয়েছে...

মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ : নাটকে সাজু খাদেম, আরফান ও প্রাণ রায় অনেক মজার মজার সংলাপ দেন। এর মধ্যে ‘এটা আমাদের কাজ না, ওটাই আমাদের কাজ’, এই সংলাপটি অনেক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। নাটকের অভিনেতারাই আমাকে এই খবর দিয়েছেন। প্রাণ রায় আমাকে বলেছেন, ‘দাদা, বাইরে বের হলে এই সংলাপের কথা দর্শক আমাকে বেশি মনে করিয়ে দেন’। এটা একটা শিল্পীর জন্য খুব ভালো খবর কারণ তাঁর দেয়া সংলাপ দর্শক গ্রহণ করছেন। তখন কিন্তু নাটক বানিয়েও অনেক আনন্দ লাগে।

এনটিভি অনলাইন : দীর্ঘ ধারাবাহিক নাটক বানাতে কোনো সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়?

মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ : কিছু সমস্যা তো আছেই। যেহেতু নাটকের শিল্পীরা অন্যান্য নাটকের শুটিং নিয়েও ব্যস্ত থাকেন তাই ধারাবাহিক নাটকের শুটিং শিডিউল জটিলতা দেখা দেয়। এটা অনেক সময় নাটকে প্রভাব পড়ে। ভালো লোকেশন ও বড় বাজেটের অভাব তো রয়েছেই।

Advertisement
Advertisement
1.8758058547974