Beta

কুবির শিক্ষার্থী তন্ময়কে কি আমরা বাঁচাতে পারব না?

২১ এপ্রিল ২০১৭, ১৭:৩৯ | আপডেট: ২১ এপ্রিল ২০১৭, ১৯:৪৩

কুবি সংবাদদাতা

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাব ও তথ্যবিজ্ঞান বিভাগের ষষ্ঠ সেমিস্টারের মেধাবী শিক্ষার্থী তন্ময় চন্দ্র রায় জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে লড়ছেন।

দুরারোগ্য ‘অ্যাকিউট অ্যাপ্লাস্টিক অ্যানিমিয়া’ রোগে আক্রান্ত তন্ময়। তাঁর অস্থি-মজ্জা প্রতিস্থাপন করতে হবে।  অর্থের অভাবে চিকিৎসাবঞ্চিত হয়েছেন তন্ময় চন্দ্র রায় (২২)। বর্তমানে তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডা. এম আর খানের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন। চিকিৎসকরা বলেছেন, প্রায় অর্ধকোটি টাকা প্রয়োজন তাঁর চিকিৎসার জন্য।

নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারে বেড়ে ওঠা তন্ময়ের বাড়ি চাঁদপুর জেলার কচুয়া উপজেলার চাঙ্গিনী গ্রামে। দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত তন্ময় ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজ থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শেষে ভর্তি হন দেশের মধ্য-পূর্বাঞ্চলের উচ্চ বিদ্যাপীঠ কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে। দুই ভাই, এক বোনের মধ্যে তাঁর বড় ভাই মারা যান চার বছর বয়সে। ছোট বোন পড়াশোনা করছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগে। বাবা সুকুন চন্দ্র রায় পেশায় একজন স্কুলশিক্ষক। বাবার আয় দিয়েই চলে সংসারের যাবতীয় খরচ আর দুই ভাইবোনের লেখাপড়ার খরচ।

তন্ময়ের অবস্থা দিন দিন খারাপের দিকে যাচ্ছে। এ জন্য যত দ্রুত সম্ভব তাঁর উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা। ভারতে গিয়ে অস্থি-মজ্জা প্রতিস্থাপনের পরামর্শ দিয়েছেন তাঁরা। শুধু এ জন্যই প্রয়োজন ৩০-৪০ লাখ টাকা। এ ছাড়া ওষুধসহ চিকিৎসার আনুষঙ্গিক ব্যয়েও প্রয়োজন অনেক টাকা। এ বিশাল পরিমাণ টাকার জোগান দেওয়া তন্ময়ের পরিবারের জন্য অসম্ভব। ফলে হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে মৃত্যুর প্রহর গুনেই দিন কাটছে এই মেধাবী শিক্ষার্থীর।

সদা হাসিখুশি, আড্ডাবাজ সবার প্রিয় তন্ময়ের অসুস্থতায় আর সেই উচ্ছ্বাস নেই বন্ধুদের আড্ডায়। সব কিছু থমকে গেছে। অন্ধকারের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে তন্ময়ের জীবন প্রদীপ। বিশ্ববিদ্যালয়ের বন্ধুদেরও ঘুম নেই। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নেমে পড়েছেন অর্থ সংগ্রহে। সেই সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরাও। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ছয় হাজার শিক্ষার্থী যে যেভাবে পারছেন তন্ময়ের চিকিৎসার সহায়তায় সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। সেই সঙ্গে কুমিল্লাসহ দেশের মানুষের কাছেও তন্ময়ের জন্য আর্থিক সহযোগিতা চাচ্ছেন সহপাঠীরা। 

হিসাব ও তথ্য বিজ্ঞান সহযোগী অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ চন্দ্র দেব বলেন, ‘আমাদের মেধাবী শিক্ষার্থী তন্ময়। আমরা সবাই চেষ্টা করলে তাকে আবার ফিরে পাবো।’

তন্ময়কে সুস্থ করতে তাই সমাজের সব হৃদয়বান ব্যক্তির সহযোগিতা কামনা করেছে তাঁর পরিবার। চিকিৎসায় সহযোগিতা দিতে সরাসরি যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে এই মোবাইল নম্বরে- ০১৭১৫-৮৬২১৯১ (খালা), ০১৭১৫-১৩২৮১৫ (মামা)। সহযোগিতা পাঠাতে হিসাব নম্বর ২৪৯৯৩০, জনতা ব্যাংক, ঢাকা মেডিকেল কলেজ শাখা, ডাচ-বাংলা মোবাইল ব্যাংক (রকেট) হিসাব নম্বর-০১৬৭৫২৯৩০৫২৪, বিকাশ নম্বর- ০১৭১৫-৮৬২১৯১।

Advertisement
Advertisement
0.86837816238403