Beta

রোহিঙ্গা ইস্যুতে পাশে থাকবে ভারত : রাম মাধব

০৯ অক্টোবর ২০১৭, ১৮:৩৩

নিজস্ব প্রতিবেদক
আজ সোমবার সকালে রাজধানীর একটি হোটেলে নাস্তা ও আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে ফিরে যাচ্ছেন রাম মাধব। ছবি : এনটিভি

রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে ভারতের পক্ষ থেকে বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন দেশটির ক্ষমতাসীন দল বিজেপির সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব। নদী বিষয়ক একটি উৎসবে যোগ দিতে গতকাল রোববার বাংলাদেশে এসেছেন তিনি। 

আজ সোমবার সকালে রাজধানীর একটি হোটেলে এই বিজেপি নেতার সঙ্গে একসঙ্গে নাস্তা করেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা এবং আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতারা। এই নাস্তা পর্বের আয়োজন করেছিল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। পরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, সচিব ও আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে অনানুষ্ঠানিক বৈঠকও করেন রাম মাধব।
এ সময় রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস দেন বিজেপির এই নেতা।

এ সম্পর্কে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেন, ‘তাঁদের মতামত ব্যক্ত করেছে যে রোহিঙ্গা সমস্যাটা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের থেকে যেভাবে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে সমস্যা সমাধানের জন্য ভারতও আশা করে যে এই সমস্যাটা এভাবে সমাধান হয়ে যাবে। মিয়ানমারই এটা সমাধানের উদ্যোগ নেবে এবং সমাধান হবে।’

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ আগেও গঠন করার একটা প্রক্রিয়া হয়েছিল মিয়ানমার থেকে নামও এসেছিল তারপরে সরকার পরিবর্তনের পরে এটাকে আপডেট করা হয়নি। মন্ত্রী যিনি এসেছিলেন অং সান সু চির দপ্তরের তিনি আমাদের প্রস্তাবনাগুলো নিয়েছেন। সরকারের সঙ্গে আলাপ করে শিগগিরই তাঁদের নামগুলো প্রস্তাব করবেন। আমরা আশা করছি, খুব দ্রুততম সময়ে আমরা নামগুলো পাব। সেই নামগুলো পেলে বাংলাদেশ থেকেও কমিটি গঠন করা হবে এবং দুই কমিটি বসবে। খুব শিগগিরই বসবে।’

এ ছাড়া বৈঠকে আর কী আলোচনা হয়েছে জানতে চাইলে হানিফ বলেন, ‘আমাদের দুই দেশের সম্পর্কের বিষয় নিয়ে কিছু আলোচনা হয়েছে। আমাদের প্রতিবেশী রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশ এবং ভারতের সঙ্গে দীর্ঘদিন একটা বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আছে। এই বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক দুই দলের মধ্যেও যাতে আরো গভীর হয় সেই ব্যাপারে আমাদের পরস্পরের সঙ্গে কথা হয়েছে। আমরা আশা করছি যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সঙ্গে ভারতীয় জনতা পার্টির সম্পর্ক ক্রমান্বয়ে আরো গভীর থেকে গভীরতর হবে। দুই দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য দুই দেশের রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা যেমন প্রয়োজন আছে তেমনি প্রত্যেকটা রাজনৈতিক দলের সঙ্গে পরস্পরের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়ন দরকার। সেই বিষয়গুলো নিয়েই আলোচনা হয়েছে।’

এ বিষয়ে শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘বাংলাদেশের সঙ্গে বিশেষ করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বিজেপি চায়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগও চায়। এ লক্ষে দলের মধ্যে যোগাযোগ বৃদ্ধির ওপরে গুরুত্বারোপ করেছেন এবং তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে ভারত সফরের আমন্ত্রণও জানিয়েছেন। একটি দল যাবে। সেটা দল থেকেই পরিষ্কারভাবে বলা হবে।’

ভারতে বিজেপির থিংক ট্যাংক খ্যাত ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশনেরও পরিচালক রাম মাধব। এই ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে দুই দেশের সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের মধ্যে সীমানা, পানি, নদীসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়। যা পরে সরকারি পর্যায়ে আলোচনায়ও উঠে আসে বলে জানান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

Advertisement
1.0426340103149